এ্যাবরোজ-এর আত্মপ্রকাশ

রাহমান মনি
জাপানের বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের উদ্যোগে একটি নতুন সংগঠন আত্মপ্রকাশ করেছে। সংগঠনটির নাম দেয়া হয়েছে ABROJ (এ্যাবরোজ) (ASSOCIATION OF BANGLADESHI RESTAURANT OWNERS IN JAPAN)। জাপানে প্রায় তিন শতাধিক রেস্টুরেন্ট রয়েছেÑ যা বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত। যদিও ৫%-ই হলো ইন্ডিয়ান ফুড নামে পরিচালিত।

জাপানে বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত ব্যবসাগুলোর মধ্যে পুরনো গাড়ি ব্যবসা, হালাল ফুড ব্যবসা, রেস্টুরেন্ট ব্যবসা এবং টেলিফোন কার্ড ব্যবসাগুলো প্রধান। ২০০৩ সাল থেকে গাড়ি ব্যবসায়ীদের সংগঠন বিজনেস ফোরাম থাকলেও রেস্তরাঁ ব্যবসায়ীদের কোনো সংগঠন ছিল না। অথচ প্রবাসীদের যে কোনো সামাজিক, সাংস্কৃতিক আয়োজনে রেস্তরাঁ ব্যবসায়ীদের অনুদান কম নয়। কিন্তু সংগঠিত না হওয়ায় অবদান থাকা সত্ত্বেও অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছতে পারেননি। না প্রবাসী সমাজে, না জাপান সরকারের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধায়।

গত দুই বছর ধরে সারা বিশ্বজুড়ে যে অর্থনৈতিক মন্দা চলছে তার বড় প্রভাব পড়ে বিশ্বের দ্বিতীয় অর্থনৈতিক পরাক্রমশালী দেশ জাপানেও। সারা জাপানের রেস্তরাঁগুলোতে ২০০২ সালের পর প্রথমবারের মতো বিক্রি হ্রাস পায় প্রায় ২%-এর কাছাকাছি। জাপান ফুড সার্ভিস এ্যাসোসিয়েশন সূত্র মতে, রেস্তরাঁগুলোতে কাস্টমার (০.২%) বাড়লেও তাদের ব্যয় সংকোচ কমিয়েছেন প্রায় ১.৭%। এর প্রভাব বিদেশি রেস্তরাঁগুলোতেও পড়েছে। জাপান সরকার বাংলাদেশিদের কুক ভিসায় কড়াকড়ি আরোপ করায় স্বল্প পারিশ্রমিকে কাজ করাতে না পারায় একদিকে যেমন মুনাফা করতে পারছে না, তেমনি কুক ঘাটতিতে রেস্তরাঁগুলো বন্ধ হওয়ার উপক্রম। এমতাবস্থায় রেস্টুরেন্ট মালিকগণ সংগঠিত হয়ে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেন।

দীর্ঘ চার মাসে পাঁচটি সভা করে গত ৩০ আগস্ট টোকিওর অভিজাত এলাকায় জিমবোচো রাঁধুনী রেস্টুরেন্টে আয়োজিত ষষ্ঠ সভায় শতাধিক মালিকের উপস্থিতিতে ABROJ আত্মপ্রকাশ করে। রাঁধুনীর কর্ণধার আহসান হাবীবের অক্লান্ত পরিশ্রম, মেধা, সময় এবং অর্থ এর পেছনে ব্যয় করতে হয়। ষষ্ঠ সভায় সংগঠনের নাম, মনোগ্রাম এবং ওয়েবসাইট চূড়ান্ত করে সর্বসম্মতিক্রমে ইয়াকুব নবীকে আহ্বায়ক করে ৭ সদস্যবিশিষ্ট একটি আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে তিন মাসের মধ্যে একটি পূর্ণাঙ্গ গঠনতন্ত্র তৈরি, ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের আয়োজন করে নবনির্বাচিত প্রতিনিধিদের হাতে নেতৃত্ব অর্পণ করার সুনির্দিষ্ট দায়িত্ব ন্যস্ত করা হয়। শর্ত থাকে যে, আহ্বায়ক কমিটির কেউ নির্বাচনে প্রতিনিধিত্ব করতে পারবে না। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন সাহাবুদ্দিন আহমেদ, কাজী সারোয়ার হাবীব, ড. জাকির হোসেন মাছুম, ফেরদৌস আহমেদ, মোঃ হারুন-অর-রশীদ এবং নাজমুল হাসান। কাজী সারোয়ার হাবীব অপারগতা প্রকাশ করে নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার ঘোষণা দিলে সাকুরা সাবেরকে উপদেষ্টা নিয়োগ করে সদস্য সংখ্যা পূর্ণ করা হয়।

কমিটির সদস্যগণ অক্লান্ত পরিশ্রম করে ২৭ ডিসেম্বর নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করলে নির্দিষ্ট দিনে কাজী সারোয়ার হাবীব-আহসান হাবীব প্যানেল ছাড়া অন্য কোনো প্যানেল না থাকায় হাবীব-হাবীবকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। প্যানেলের পূর্ণাঙ্গ সদস্যরা হলেন কাজী সারোয়ার হাবীব (সভাপতি), মোঃ ইলিয়াছ মুনশী এবং নুরুল ইসলাম সরদার (সহ-সভাপতি), হাবীব মোঃ আহসান (সাধারণ সম্পাদক), আসাদুজ্জামান (সহ-সাধারণ সম্পাদক), মোঃ মাহমুদুল হক স্বপন (সাংগঠনিক সম্পাদক), মোস্তাফিজুর রহমান লিটন (সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক), মোঃ ইসমাইল (অর্থ সম্পাদক), সাইদ আহমেদ খোকন (দপ্তর সম্পাদক), নিয়াজ আহমেদ জুয়েল (সাংস্কৃতিক সম্পাদক), রহমান শরিফুল শিপলু (প্রচার সম্পাদক) এবং কার্যকরী পরিষদ সদস্যরা হলেন মোঃ মনির হোসেন মাঝি, গাউস ভূঁইয়া, মাৎসু হাসি জহিরুল ঝন্টু ও মোঃ মাঝহারুল আলম।

গত ৯ জানুয়ারি ২০১০ জিমবোচো স্টেশন সংলগ্ন রাঁধুনী রেস্টুরেন্টে কার্যকরী পরিষদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন ABROJ-এর প্রথম নির্বাচিত সভাপতি কাজী সারোয়ার হাবীব। এ সময় স্থানীয় মিডিয়া, গণ্যমান্য ব্যক্তি, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ এবং বয়োজ্যেষ্ঠ রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী মানিক চৌধুরী, নুরুল আমিন আলো এবং সাকুরা সাবের উপস্থিত ছিলেন। কমিটি ঘোষণা শেষে রাঁধুনীর কর্ণধার এবং নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক হাবীব এমডি আহসান উপস্থিত সকলকে নৈশভোজে আপ্যায়ন করেন।

rahmanmoni@gmail.com

[ad#co-1]

Leave a Reply