মাওয়া-কাওড়াকান্দি চলাচল করে চার শতাধিক অবৈধ স্পিডবোট!

মাত্র দুদিন আগে গভীর রাতে ফেরির সঙ্গে সংঘর্ষে স্পিডবোট ডুবির ঘটনায় একাধিক যাত্রী নিখোঁজ হলেও মাওয়া-কাওড়াকান্দি রুটে আলোকবাতি, শব্দযন্ত্র, জীবনরক্ষাকারী বয়াবিহীন চার শতাধিক স্পিডবোট অবাধে গভীর রাত পর্যন্ত চলাচল করছে। শুধু যাত্রী সুবিধার অজুহাতে ব্যস্ততম এই রুটটিতে লাইসেন্সবিহীন এ সকল স্পিডবোট চালাচ্ছে প্রশিক্ষণবিহীন চালকরা। এদিকে গত মঙ্গলবার রাতে স্পিডবোট ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছেন জামিনা বেগম ও নজরুল মিয়া। স্বজনরা আহাজারি করছেন পদ্মার পাড়ে। তারা ট্রলারে নিখোঁজদের সন্ধান করছেন। কিন্তু প্রশাসন এ ঘটনায় উদ্যোগ নেয়নি বলে নিখোঁজ যাত্রী জামিনা বেগমের মেয়ে হাফিজা গতকাল অভিযোগ করেছেন। বিআইডব্লিউটিসি, বিআইডব্লিউটিএ ও স্পিডবোট মালিক সমিতি সূত্র জানায়, এ রুটের মাওয়ায় ২২০টি, কাওড়াকান্দি ঘাটে ৮০টি ও মঙ্গলমাঝি ঘাটে ৬০টি স্পিডবোট রয়েছে। এগুলোর রেজিস্ট্রেশন নেই। নেই আলোকবাতি, হর্ন ও জীবনরক্ষাকারী বয়া। এগুলোর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ৬ শতাধিক চালকেরও নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স। তারা বেশিরভাগই যুবক বা কিশোর। বন্দর কর্মকর্তা বাবুলাল বৈদ্য বলেন, আমরা গত বৃহস্পতিবার পুলিশসহ দুর্ঘটনাকবলিত স্থান পরিদর্শন করেছি। অবৈধ নৌযান স্পিডবোটগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া জরুরি।

শিবচর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আ. জলিল বলেন, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে তিন উপজেলার ঘাট এলাকায় অভিযান চলবে। সন্ধ্যার পর চলাচলকারী স্পিডবোটের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক আশিকুজ্জামান জানান, এ রুটের পদ্মার সংশ্লিষ্ট শিবচর, জাজিরা ও লৌহজং থানায় রাতে স্পিডবোট চলাচল বন্ধ করতে অনেক আগেই চিঠি দেয়া হয়েছে। কিন্তু পুলিশ প্রশাসন এ ব্যাপারে পদক্ষেপ না নেয়ায় দুর্ঘটনা ঘটছে।

[ad#co-1]

Leave a Reply