আলু চাষে বিপ্লব : মুন্সীগঞ্জের দু’চাষীর সাফল্য

ভোলার বোরহানউদ্দিনে আলু চাষে বিপ্লব ঘটিয়েছে ঢাকার মুন্সীগঞ্জের দুই চাষী। বোরহানউদ্দিনের বড় মানিকা ইউনিয়নের আলিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন উত্তরের বিলে ১৫ একর এবং বাটামারা গ্রামে ১৫ একর আলুর মাঠের পাশ দিয়ে হেঁটে গেলে কয়েক সেকেন্ডের জন্য হলেও যে কেউ থমকে দাঁড়াবে। বিস্তৃত ওই দুই আলু মাঠের মালিক মুন্সীগঞ্জের আতিক হাওলাদার ও তার চাচাতো ভাই খালেক হাওলাদার। গত দুই বছর স্বল্প পরিসরে আতিক একা আলু চাষ করত। এবার বৃহত্ পরিসরে তার চাচাতো ভাই খালেককে গ্রাম থেকে এখানে নিয়ে এসে আলু চাষ করাচ্ছেন। আতিক হাওলাদারের শ্বশুরবাড়ি স্থানীয় মিলন বাজারের কাছে। ওই সূত্রে তার বোরহানউদ্দিনে আসা। কোনো সরকারি-বেসরকারি প্রশিক্ষণ ছাড়া উত্তরাধিকার সূত্রে তার বাবা খলিলুর রহমানের কাছ থেকে আলু চাষের ওপর যতটুকু বিদ্যা শিখেছেন তাই নিয়ে আলু চাষে এগিয়ে যাচ্ছেন। এ বছর এককভাবে ১৫ একর জমিতে আলু চাষের পাশাপাশি খালেককে সঙ্গে নিয়ে বাটামারার মাঠের ১৫ একরের অংশীদার তিনি। উভয়ই বাটামারা অংশ দেখাশুনা করছেন। পেশাদার আলু চাষী আতিক জানান, মুন্সীগঞ্জে তার গ্রামে জমির অত্যধিক মূল্য এবং দুষ্প্রাপ্যও। সে কারণে অধিকতর সহজলভ্য এবং কম দামে এই এলাকাকে আলু চাষের উপযুক্ত স্থান হিসেবে বেছে নিয়েছেন। সেই সঙ্গে তার শ্বশুরবাড়ির যোগসূত্রও আছে।

এই এলাকার বিভিন্ন জমির মালিকদের কাছ থেকে প্রতি ৪ শতাংশ জমি তিন মাসের জন্য ৩০০ টাকা করে তিনি বর্গা নিয়েছেন, যা মুন্সীগঞ্জে ৭০০ টাকা। ওই জমিতে তিনি বেশিরভাগ ডায়মন্ড জাতের বীজ ব্যবহার করেছেন, কিছু ফেন্সিলা জাতের বীজ লাগিয়েছেন। বীজের মূল্য এবার বাজারে বেশি থাকায় উত্পাদন খরচ বেশি পড়েছে। টিএসপি, এমপি ও ইউরিয়া সার তিনি একই অনুপাতে ব্যবহার করেন এবং প্রতি একরে তিন কেজি জিংক ব্যবহার করেন। কোনো প্রকার রোগবালাইয়ে নিজেই ওষুধ নির্বাচন করে ব্যবহার করেন। কৃষি অফিসের সংশ্লিষ্ট কারো সাক্ষাত্ বা খোঁজ-খবর আতিক কখনও পায়নি। এ বছরের আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় আতিকের আশা, প্রতি ৪ শতাংশ জমিতে ১৫ মণ আলু উত্পন্ন হবে। বোরহানউদ্দিনে একই স্থানে এত বেশিসংখ্যক জমিতে আলু চাষ এই প্রথম। এলাকার কৃষকরা সর্বোচ্চ ৩/৪ একর জমিতে আলু চাষ করে থাকেন। আতিকের প্রজেক্টে উত্সাহিত হয়ে অনেক কৃষক ভবিষ্যতে দীর্ঘ পরিসরে আলু চাষে আশা প্রকাশ করেন। পেশাদার আতিক মৌসুমে কিছু আলু তার এলাকার কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষণ করেন। আতিকসহ আরো অনেক কৃষকের দাবি, সরকারি কিংবা ব্যক্তি পর্যায়ে ভোলায় একটি কোল্ড স্টোরেজ স্থাপন হলে আলুসহ অন্যান্য সবজির জন্য ঢাকা কিংবা বরিশালের মুখাপেক্ষী হতে হবে না।

[ad#co-1]

Leave a Reply