হামিমের মায়ের পাশে দুর্ঘটনায় স্বজন হারানো শোকার্তরা

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত শিশু হামিমের পরিবারকে সান্ত্বনা জানাতে গতকাল শুক্রবার তাদের পুরান ঢাকার বাসায় এসেছিলেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ও অভিনেত্রী তারানা হালিম। গত নভেম্বরে তাঁর এক নিকটাত্দীয় রাজধানীতে কাভার্ড ভ্যান-চাপায় নিহত হয়েছেন। তারানা হালিম হামিমের শোকাহত মা-বাবা ও পরিবারের সদস্যদের বললেন, ‘এ যন্ত্রণা অসহনীয়।’ তাঁকে কাছে পেয়ে শোকাহত পরিবারটিও অঝোরে কাঁদল। এ সময় চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি উপস্থিত কেউই।

শুধু তারানা হালিমই নন, এ রকম আরো অনেকেই গতকাল নিহত হামিমের মায়ের পাশে ছিলেন। তাঁদের একজন ইকরাম আহমেদ। রামপুরা থেকে এসেছিলেন তিনি। গত নভেম্বরে তাঁর ছেলে সাইফ আহমেদ অর্নব সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়।

ইকরাম আহমেদ বলেন, ‘এ যন্ত্রণা যার যায় শুধু সেই বোঝে।’ তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, সবার উচিত ট্রাফিক আইন

মেনে চলা। বৈধ লাইসেন্স নিয়ে গাড়ি চালানো। আর কোনো মায়ের বুক যেন খালি না হয়, সে ব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে হবে।

গতকাল পুরান ঢাকার লুৎফর রহমান লেনের মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় দোয়া ও মিলাদ। এতে হামিমের কয়েকজন শিক্ষক ও স্থানীয় ওয়ার্ড কমিশনারসহ শত শত লোক অংশ নেন। আগামীকাল রবিবার সকালে হামিমের কাকরাইল উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের সামনের রাস্তায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হবে বলে হামিমের বাবা মোতালেব শেখ কালের কণ্ঠকে জানান। এ ছাড়া হামিমের স্কুলব্যাগটি এখনো অধ্যক্ষের তত্ত্বাবধানে রয়েছে। পরিবারের সদস্যরা জানান, হামিমের নামে স্কুলে একটি জাদুঘর তৈরি হবে এবং হামিমের স্কুলব্যাগটি সেখানে রাখা হবে বলে স্কুলের অধ্যক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে।

গতকাল লুৎফর রহমান লেনের বাসায় গিয়ে দেখা যায়, হামিমের মা সোনিয়া শেখ শয্যাশায়ী। তাঁর চারপাশ ঘিরে বসে রয়েছেন আত্দীয়স্বজন ও প্রতিবেশীরা। ঘটনার দুই দিন পর ছেলের লাশ দাফনের সংবাদ জানানো হয় তাঁকে। এ কথা শুনেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন মা সোনিয়া। কান্নাকাটিতে সেখানকার পরিবেশ ভারী হয়ে ওঠে। চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি হামিমের খেলার সঙ্গীরাও। হামিমের হাতের লেখা ও আঁকা ছবি দেখে ঢুকরে ঢুকরে কান্না করছে হামিমের সমবয়সী সায়মা, ইয়ামিনসহ অনেকেই। পরিবারের সদস্যরা জানান, চোখের সামনে ছেলের এ রকম মৃত্যু দেখে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন সোনিয়া।

মামলার বাদীকে হুমকি: নিহতের পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেন, মামলার বাদী চাচা শহিদুল ইসলামকে মধুমতি পরিবহন বাসের মালিক পরিচয় দিয়ে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। বাদীকে বলা হয়, মামলা তুলে না নিলে পরিণতি ভালো হবে না।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রমনা থানার এসআই দিদারুল আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, বিষয়টি তাঁর জানা নেই। তাঁকে কিছু জানানোও হয়নি। এদিকে গ্রেপ্তারকৃত চালক শামসুর রহমানকে এক দিনের রিমান্ড শেষে আজ শনিবার আদালতে হাজির করা হবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply