পদ্মা সেতুতে ঘরহারাদের পুনর্বাসনের কাজ শুরু

পদ্মা সেতুর জন্য মুন্সীগঞ্জের মেদিনীমণ্ডল গ্রামে যাদের জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে তাদের পুনর্বাসনে পাশের গ্রাম যশোলদিয়ায় জমি ভরাটের কাজ শুরু হয়েছে বুধবার। সকালে আনুষ্ঠানিকভাবে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন। সেতু বাস্তবায়নে মুন্সীগঞ্জ, শরীয়তপুর ও মাদারীপুর জেলায় পদ্মার দুই পাড়ে এক হাজার হেক্টর জমি অধিগ্রহণ করার কথা। এতে মোট চার হাজার পরিবারকে তাদের ঘর-বাড়ি সরিয়ে নিতে হবে।

সেতুর নির্মাণ শুরু হওয়ার আগেই এদের পুনর্বাসনের শর্ত দিয়েছিল দাতাগোষ্ঠী।

মাদারীপুর ও শরীয়তপুরে পুনর্বাসনের কাজ শিগগিরই শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন যোগাযোগমন্ত্রী।

মেদিনীমণ্ডলের বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হবে পাশের তিন গ্রাম কুমারভোগ, যশোলদিয়া ও কান্দিপাড়াতে। এর মধ্যে যশোলদিয়ায় মাটি ভরাট শুরু হলো বুধবার।

এ সময় সেতু বিভাগের সচিব মোশরফ হোসেন ভূইয়া, মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. মোশারফ হোসেন, উপজেলার চেয়ারম্যান ওসমান গনি তালুকদার আরও উপস্থিত ছিলেন।

তিন দফায় বাড়িয়ে পদ্মা সেতুর সর্বশেষ নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে দুশ ৪০ কোটি ডলার। প্রথম ব্যয় ধরা হয়েছিল একশ৪০ কোটি ডলার। গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তা বাড়িয়ে একশ ৮০ কোটি ডলার করা হয়। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর করা হয় একশ ৯০ কোটি।

সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংক একশ ২০ কোটি, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ৫৫ কোটি, জাপান ইন্টারন্যাশনাল ব্যাংক অব কো-অপারেশন (জেবিআইসি) ৩০ কোটি, ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক (আইডিবি) ১২ কোটি এবং আবুধাবি ডেভেলপমেন্ট ফান্ড (আবুধাবি ফান্ড) তিন কোটি ১০ লাখ ডলার সহায়তা দেবে। পুঁজিবাজারে বন্ড ইস্যু করে সংগ্রহ করা হবে ১৪ কোটি ডলার।

বিডি নিউজ 24
==============================================

পদ্মা সেতু নির্মাণ: ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে যশলদিয়া মৌজায় পুনর্বাসন কাজ শুরু
কাজী দীপু হ মুন্সীগঞ্জ থেকে:
যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন বলেছেন, চলতি বছরের শেষেরদিকে পদ্মা সেতুর মূল নির্মাণ (কনস্ট্রাকশন) কাজ শুরু করা সম্ভব হবে। দাতা সংস্থার লোকজনরাও পদ্মা সেতুর কাজের অগ্রগতিতে সন্তুষ্ট। এছাড়া পদ্মা সেতু নির্মাণে ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে যশলদিয়া মৌজায় পুনর্বাসন কাজ শুরু হয়েছে। গতকাল মুন্সীগঞ্জের মাওয়ার পদ্মা সেতুর মাটি ভরাটের কাজ পরিদর্শনকালে উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, দেশবাসীর স্বপ্নের পদ্মা সেতুর দরপত্র আহ্বান সময়ের ব্যাপার মাত্র। দরপত্র আহ্বানের পূর্বে আনুষঙ্গিক কার্যক্রম ইতোমধ্যে সম্পন্নের বিষয়টি দাতারা অবগত আছেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সেতু বিভাগের সচিব মো. মোশারফ হোসেন ভূঁইয়া, প্রকল্প পরিচালক মো. রফিকুল ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মোশাররফ হোসেন প্রমুখ।

এর আগে মন্ত্রী স্থানীয় পদ্মা সেতু প্রকল্প অফিসে সেতু বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও স্থানীয় প্রশাসনের কাছে কাজের অগ্রগতির বিষয়ে খোঁজখবর নেন।

এ সময় তিনি গুরুত্বপূর্ণ ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের মেরামত কাজের ধীরগতি ও গুণগত মান নিয়ে সড়ক ও জনপদ অধিদফতরের ওপর অসন্তোষ প্রকাশ করেন।

আমাদের সময়

[ad#co-1]

Leave a Reply