মুন্সীগঞ্জে কিশোরীর শ্লীলনীতা হানী: আদালতে মামলা

প্রতারনার ফাঁদে ফেলে মুন্সীগঞ্জের গ্রামে এক কিশোরীর ইজ্জত লুটে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলের চরকেওয়ার ইউনিয়নের হোগলাকান্দি গ্রামে। কিশোরীর ইজ্জত লুণ্ঠনকারী লম্পটের নামে মুন্সীগঞ্জ আদালতে মামলা করা হয়েছে। আদালত ওই মামলায় লম্পট আনিস মোল্লার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে অসহায় কিশোরী সালামা বেগম বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

এদিনই আদালত সদর থানা পুলিশকে অভিযুক্ত আনিছ মোল্লাকে গ্রেফতারের নিদের্শ দিয়েছেন। তবে গতকাল বুধবার পর্যন্ত আদালতের ওই নির্দেশের কাগজ পত্রাদি থানায় এসে পৌঁছায়নি বলে থানা পুলিশ দাবী করেছেন। তাতে কিশোরীর ইজ্জত লুন্ঠনকারী আনিসকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেননি। সম্প্রতি চরাঞ্চলের হোগলাকান্দি গ্রামের সম্ভ্রান্ত পরিবারের নাতনী সালমা বেগম ও একই গ্রামের খোরশেদ মোল্লার ছেলে আনিসের মধ্যে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠে। কিশোরী সালমা হোগলাকান্দি গ্রামের সালামতউল্লাহ মুন্সীর মেয়ে। ভালোবাসার সম্পর্কের মধ্য দিয়ে আনিস গেলো ২০ জানুয়ারী গোপনে ভুয়া কাবিননামায় সালমার স্বাক্ষর নেয়। এতে তাদের মধ্যে বিয়ে হয়ে গেছে বলে দাবী করে আনিস।

তারা রাজধানীতে ভাড়া বাসা নেয়। সেখানে দু’জনে একত্রে বসবাস শুরু করে। বিয়ের মাধ্যমে সালমার সঙ্গে আনিস দৈহিক সর্ম্পক গড়ে তোলে। এক পর্যায়ে আমোদ-প্রমোদ শেষে সালমাকে তাড়িয়ে দেয় আনিস। তাতে সালমা গ্রামের বাড়ি ফিরে আসে। সে সময় পরিবারের অভিভাবকদের সামনে ঘটনা খুলে বলে সালমা। এ প্রসঙ্গে সালমার অভিভাবকরা আনিছ মোল্লাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সালমার সঙ্গে বিয়ে ও সর্ম্পকের কথা অস্বীকার করে। বাদী সালমা বেগম জানান, দু’জনের বিয়ে ও সম্পর্কের কথা গ্রাম্য মাদবরদের জানালে আনিস তাকে ও তার মামা সেলিম মোল্লাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

[ad#co-1]

Leave a Reply