ভালোবাসা, তুমি মহান

ই ম দা দু ল হ ক মি ল ন
একটি ছোট্ট মেয়ে তার বাবার সঙ্গে বইমেলায় এসেছে। চারদিকে এত বই, এত বইয়ের দোকান, এত মানুষজন দেখে সে মুগ্ধ। ‘অনন্যা’র স্টলের সামনে দিয়ে যেতে যেতে বাবাকে বলছে, আমি বড় হয়ে বিরাট একটি আলমারি বানাব। সেই আলমারি বই দিয়ে ভরে রাখব।

আমি বসে আছি স্টলের ভেতর। মেয়েটির কথা শুনে এত ভালো লাগল। ডাকলাম তাকে।

তোমার নাম কী?

এত মিষ্টি মেয়েটি! কী সুন্দর করে যে হাসল! তার হাসিতে চারদিক যেন আরও উজ্জ্বল হয়ে গেল। আমার নাম ঐশী।

কথায় কথায় জানলাম ঐশী ক্লাস টুয়ের ছাত্রী। ভিকারুননিসা নূন স্কুল। আমার ‘কে’ বইটি তার হাতে। বলল, আমি বই খুব ভালোবাসি। আমার অনেক বই আছে। আমি আরও বই চাই।

এই যে এটুকু মেয়েটির বইয়ের প্রতি এমন ভালোবাসা জন্মেছে, এ ভালোবাসাই তার জীবনকে আলোকিত করবে। সত্যিকার যত্ন পেলে এ মেয়ের আলোয় দেশ আলোকিত হবে। ভালোবাসা জীবনের শ্রেষ্ঠতম এক মন্ত্রের নাম। এ মন্ত্রে উজ্জীবিত হলে আর কিছুর দরকার হয় না। ভালোবেসে কেউ নষ্ট হতে পারে না। ভালোবেসে শুধু ভালোই হওয়া যায়। যে মানুষ নিজেকে ভালোবেসেছে, সে ভালো হয়েছে। নিজেকে ভালোবেসে কেউ খারাপ হতে পারে না। অন্যায়-অবিচার, পাপ কাজ করতে পারে না। নিজের ভেতরকার ভালোবাসা তাকে যাবতীয় পাপ কাজ, অন্যায়-অবিচার কিংবা নষ্ট হয়ে যাওয়া থেকে ফেরাবে। যে মানুষ নিজের পরিবারকে ভালোবাসে, মা-বাবা, ভাই-বোনকে ভালোবাসে, ভালোবাসার জোরেই সে শুদ্ধ করে রাখতে পারে পরিবারের মানুষকে। সমাজ, দেশ, সব, সব শুদ্ধ থাকতে পারে মানুষের ভালোবাসায়। যে ভালোবাসে সে কি সন্ত্রাস করতে পারে? দুর্নীতি কিংবা চুরি করতে পারে? মানুষের অকল্যাণ এবং দেশকে ডোবাতে পারে কোন মানুষ? যার ভেতর ভালোবাসা নেই।
ভালোবাসা শব্দটিকে আমরা কিছুটা নষ্ট করে ফেলেছি। শব্দটি শুনলেই অনেকে মনে করে, বিশেষ করে অভিভাবক, বয়স্ক শ্রেণী মনে করে, এ নিশ্চয়ই কিশোর-কিশোরী কিংবা যুবক-যুবতীর বিষয়। মনোদৈহিক সম্পর্ক-টম্পর্কের ব্যাপার। অনেকে ভালোবাসা শব্দটি উচ্চারণও করেন না। অনেকে বিরক্ত হন। আমি খুব কম অভিভাবককেই দেখেছি শব্দটির তাৎপর্য সন্তান-সন্ততি, শিশু-কিশোর বা বয়সে ছোট কাউকে বোঝাতে। শব্দটির ভেতরকার তাৎপর্য বোঝাতে। শব্দটির ব্যাপকতা নিয়ে আলোচনাই করতে দেখি না কাউকে। শব্দটিকে নারী-পুরুষ, যুবক-যুবতীর বিশেষ একটি সম্পর্কের মধ্যে আটকে দেওয়া হয়েছে। অসাধারণ শব্দটিকে অতি সাধারণ করে ফেলা হয়েছে। এই আবর্ত থেকে শব্দটিকে উদ্ধার করা উচিত। শব্দটির মাধুর্য গেঁথে দেওয়া উচিত প্রতিটি মানুষের মনে, হৃদয়ে। মানুষ যেন ভালোবাসা শব্দটি উচ্চারণ করে অতি সমীহের সঙ্গে। মানুষ যেন ভালোবেসে ভালো হয়।
আসুন, আমরা ভালোবাসতে শিখি। ভালোবেসে ভালো থাকি। অন্যদের ভালো রাখি, দেশ-সমাজকে ভালো রাখি। সমাজের যাবতীয় অকল্যাণ-অনাচার দূর করি ভালোবেসে। ভালোবাসাই হোক আমাদের জীবনের প্রধান মন্ত্র।
রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, ‘রঙ যেন মোর মর্মে লাগে, আমার সকল কর্মে লাগে।’ এই ‘রঙ’ হচ্ছে ভালোবাসা। যদি মর্মে এবং কর্মে ভালোবাসা থাকে তাহলেই সার্থক হয় জীবন। কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী লিখেছেন, ‘ভালোবাসা থাকলে সব হয়।’ সত্যি ভালোবাসা থাকলে সব হয়।

২.
ভালো না বাসতে বাসতে ভালোবাসা শব্দটিকে আমরা নষ্ট করে ফেলেছি। ভালোবাসার চেয়ে মহান শব্দ আর কিছু নেই। ভালোবাসার চেয়ে মহান কর্ম আর কিছু নেই। এ পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী শব্দটির নাম ভালোবাসা। ভালোবাসার শক্তি পারমাণবিক বোমার চেয়ে লাখো-কোটি গুণ বেশি। মানুষের সভ্যতাকে আলোয় আলোয় উদ্ভাসিত করে দিতে পারে ভালোবাসা। মানুষের সভ্যতাকে ধ্বংস করে দিতে পারে ভালোবাসাহীনতা। যে মানুষ ভালোবাসে, সে কোনো পাপ কাজ করতে পারে না। ভালোবাসার শক্তি তাকে শুদ্ধ-সুন্দর এবং পবিত্র করে রাখে। তার আলোয় আলোকিত হয় অন্য মানুষ। অনাচার করে সেই মানুষ, যে ভালোবাসতে শেখেনি। সন্ত্রাস, খুন, রাহাজানি করে সেই মানুষ, যে জানে না ভালোবাসা কাকে বলে। মানুষের সম্পদ লুট করে সে-ই স্বার্থপর মানুষ, যে জানে না জগতের সবচেয়ে বড় সম্পদের নাম ভালোবাসা। ভালোবাসা থাকলে সব হয়।

ভালোবেসে রাজ্য বিলিয়ে দেন রাজা। ভালোবাসার মানুষের জন্য হাজার মাইল পথ হাঁটে মানুষ। এত যে মূল্যবান জীবন মানুষের সেই জীবন হাসিমুখে বিসর্জন দেয় ভালোবাসার জন্য।

কে বলেছে হবে না। ভালোবাসা থাকলে সব হয়।

মানুষ মানুষ হয় ভালোবেসে। মানুষ জয় করে ভালোবেসে। আমরা আমাদের ভাষার অধিকার আদায় করেছিলাম ভালোবেসে। আমাদের প্রিয় সন্তানরা ভাষা রক্ষার জন্য বুক পেতে দিয়েছিল ঘাতকের রাইফেলের সামনে, কোন মন্ত্রবলে? সেই মন্ত্রের নাম ভালোবাসা। ঊনসত্তরে ভালোবেসে জেগে উঠেছিল দেশের মানুষ। একাত্তরে স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল দেশকে ভালোবেসে। ভালোবাসা এক অপ্রতিরোধ্য শক্তি। এ শক্তি জেগে উঠলে জয় নিশ্চিত। আমরাও জয়ী হয়েছিলাম। ভালোবাসার দেশটিকে বুকের রক্তে ভিজিয়ে স্বাধীন করেছিলাম। কালক্রমে আমাদের সে ভালোবাসা একটু যেন ফিকে হতে শুরু করেছিল। ভালোবাসাহীনতায় আমরা যেন অন্ধ হয়ে যাচ্ছিলাম। এক ধরনের পচা রাজনীতি ছিন্নভিন্ন করে দিচ্ছিল আমাদের ভালোবাসা, আমাদের গভীর গভীরতর দেশপ্রেম। ভালোবাসার অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছিল আমাদের চরিত্র, কলুষিত হয়ে যাচ্ছিলাম আমরা। সীমাহীন লোভ, স্বার্থপরতা ধ্বংস করে দিচ্ছিল আমাদের। সম্পদের লোভে নয়, আমাদের উচিত ছিল ভালোবাসায় অন্ধ হওয়া, দেশপ্রেমে মগ্ন হওয়া। বায়ান্নোয় যেমন হয়েছিলাম, একাত্তরে যেমন হয়েছিলাম।

আজ থেকে আমাদের জীবনের মূলমন্ত্র হোক ভালোবাসা। জীবন-দর্শন হোক ভালোবাসা। আসুন, আমরা সবাই সবাইকে বলি, ভালোবাসি। ভালোবেসে শুদ্ধ হই আমরা, সুন্দর হই। যা কিছু শুভ তা বরণ করি ভালোবেসে। আসুন, বাংলাদেশের পনেরো কোটি মানুষ আজ আমরা প্রত্যেকে প্রত্যেকের হাত ধরে দাঁড়াই। চিৎকার করে বলি, বাংলাদেশ, আমি তোমাকে ভালোবাসি।

[ad#co-1]

Leave a Reply