প্রবাসে মৃত্যু এবং কিছু কথা

রাহমান মনি
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রী মেহেরুন নাহার মুক্তা গ্রাজুয়েশন শেষে উচ্চতর শিক্ষার জন্য মনবুশো স্কলারশিপ নিয়ে জাপানের গিফু বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি করার সময় প্রিয় সহধর্মী বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েট খন্দকার হাবিব আল রাজীকে নিয়ে আসেন ডিপেনডেন্ট ভিসায়। মুক্তা যেখানে (গিফু ইউনিভার্সিটি) মাস্টার্স কমপ্লিট করে পিএইচডির প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন সেখানেই প্রিয় স্বামী হাবীবকে মাস্টার্সে এডমিশনের ব্যবস্থা করে দেন। ব্যস্ততা, খুনসুটি, পড়াশোনা সব মিলিয়ে ভালোই চলছিল দুজনের মধুর দিনগুলো। এরই মধ্যে আনন্দের সংবাদ বহন করে মুক্তা-হাবীব দম্পতির সন্তান সম্ভাবনার। ব্যস্ততাকে মেনে নিয়ে সন্তানের দেখভাল করার জন্য বাংলাদেশ থেকে হাবীবের মা-বাবাকে আনার সিদ্ধান্ত নেন। গত ২৬ জানুয়ারি, ২০১০ তারা উভয়ে জাপান এসে পৌঁছেন। ইতোমধ্যে মুক্তা ২০ জানুয়ারি গিফু পাবলিক হাসপাতালে এক কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। সব কিছুই স্বাভাবিক ছিল। ছক মতোই সব এগুচ্ছিল। ২৭ জানুয়ারি মুক্তা হঠাৎ করেই তার বাম পায়ে ব্যথা অনুভব করলে চিকিৎসকরা সিটিস্ক্যান করে মুক্তার বাম পায়ে লম্বা করে রক্ত জমাট বাঁধা অবস্থায় দেখতে পান। মাঝ রাতে তার ফুসফুসের তলায় একটি ছাতা আকৃতির ফিল্টার লাগিয়ে দেন যাতে জমাট বাঁধা রক্তপি- ফুসফুস বা মস্তিষ্কে যেতে না পারে। একই সঙ্গে রক্ত তরল করার ওষুধও চলতে থাকে। কিন্তু চিকিৎসকদের সকল ব্যবস্থা, স্বামীর ভালোবাসা এবং নাড়িছেঁড়া ধন প্রিয় সন্তানের মুখের দুধের কোনো দাবিই পূরণ না করে মুক্তা চলে গেলেন সেই দেশে যেখানে থাকতে ভিসা, পাসপোর্ট, ব্যস্ততা, মায়ার বন্ধন কিছুরই প্রয়োজন হবে না। গত ২৮ জানুয়ারি মেহেরুন নাহার মুক্তা জাগতিক সব হিসেব নিকেষের ঊর্ধ্বে কোমায় চলে যান। মরে লাশ হয়ে ফেরেন ১ ফেব্রুয়ারি ভোরে।

ঢাকার হলিক্রস স্কুল এবং কলেজ থেকে ১৯৯৭ সালে এসএসসি এবং ১৯৯৯ সালে এইচএসসি শেষ করে ভর্তি হন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে। কৃষি অনুষদ থেকে স্নাতক এবং ২০০৬ সালে উদ্যানতত্ত্বে মাস্টার্স করেন। এই একই বছর তিনি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন এবং স্কলারশিপ নিয়ে জাপানের গিফু বিশ্ববিদ্যালয়ে চলে আসেন। এখানেও তিনি আবার মাস্টার্স করেন এবং ২০০৯ সালে পিএইচডি প্রথম বর্ষে ভর্তি হন।

মুক্তার মৃত্যু রহস্য এবং পরবর্তী কিছু ঘটনা মুক্তার বন্ধুমহল, স্বামী, দূতাবাস এবং প্রবাসী সমাজে বেশ আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসে। ২ ফেব্রুয়ারি মুনশী আজাদ, ড. রফিকুল ইসলাম, সুখেন ব্রহ্ম প্রমুখ এ প্রতিবেদককে ফোন করে সহযোগিতা কামনা করেন লাশ দেশে পাঠানোর প্রক্রিয়া এবং পাঠানোর খরচ সম্পর্কে। গিফুতে একটি সংস্থা লাশ বাংলাদেশে পাঠানো বাবদ ১৩ লাখ ইয়েন দাবি করে। সাপ্তাহিক প্রতিনিধি টোকিও একটি কোম্পানির সঙ্গে আলাপ করে প্রথমে ৯ লাখ ইয়েন দাবি করলেও ৮ লাখ ইয়েনে রাজি করিয়ে লাশ পাঠানোর বন্দোবস্ত করে। ইতোমধ্যে গিফু বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করে ১৩ লাখ ইয়েনে লাশ পাঠানো চুক্তিবদ্ধ হয়। এ ক্ষেত্রে ৮ লাখ ইয়েনে চুক্তিবদ্ধকৃত কোম্পানির গৎ. ণড়ংরফধ লাশ আনতে গেলে বিষয়টি ধরা পড়ে। ৫ লাখ ইয়েন কেন বেশি খরচ হলো জানতে চাইলে দূতাবাসের প্রথম সচিব এবং দূতালয় প্রধান নাজমুল হক জানান, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আসলে ঠিক করে ফেলেছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ৫ লাখ ইয়েন দেবে, স্থানীয় প্রবাসীরা এক লাখ ইয়েন যোগাড় করেছে এবং বাকি সাত লাখ ইয়েন বাংলাদেশ দূতাবাস বহন করবে। একটি চেকের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ড. শোয়েবের মাধ্যমে হস্তান্তর করা হয়েছে।

নাজমুল হক আরো বলেন, এটি একটি মানবিক ব্যাপার। প্রথমত তিনি উচ্চ শিক্ষায় এসেছেন, দ্বিতীয়ত তিনি একজন মহিলা এবং সর্বোপরি একজন বাংলাদেশি। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের আবেদনে একজন প্রবাসী নাগরিকের প্রতি সরকারের দায়বদ্ধতা থেকে আমরা এ কাজটি করেছি।

নিঃসন্দেহে দূতাবাসের একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ। তারা ধন্যবাদ পাওয়ার দাবি রাখে। প্রবাসী সকলেই এক বাক্যে প্রশংসা করেছেন দূতাবাসের এমন মহতী উদ্যোগকে। কিন্তু প্রশ্ন হলো ৫ লাখ ইয়েন কেন বেশি খরচ করা হলো এবং পরবর্তীতে এ ধারা অব্যাহত থাকবে কিনা? এ প্রশ্নের জবাবে প্রথম সচিব নাজমুল হক জানান, ব্যাপারটা আসলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ চুক্তি করেছে আমরা শুধু ঘাটতিটুকু পূরণ করেছি। আমরা চাই না প্রবাসে এসে এইভাবে কেউ মারা যাক। এটা কারো কাম্য নয়। তার পরও যদি হয়ে যায় এমন ঘটনা এবং যদি কোনো সোর্স না থাকে তখন দূতাবাস তার সাধ্যমতো চেষ্টা করবে। কারণ প্রবাসীদের প্রতি সরকারের দায়িত্ব তো আছেই। তবে আমরা যে টাকাটা দিয়েছি একটি শর্ত দিয়েছি। তা হলো জাপান সরকার থেকে যদি লাশ পাঠানো বাবদ কোনো টাকা আদায় হয়, তা হলে যেন দূতাবাসের টাকাটা ফেরত দেয়া হয়। তবে আদায়কৃত অন্য টাকা থেকে ফেরত দেয়া প্রয়োজন নেই।

ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এবং গিফু বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকৃত ড. শোয়েব বলেন, হাসপাতালের রিপোর্ট অনুসারে মৃত্যুর কারণ হিসেবে গভীর রক্তনালীর রক্তের জমাটবদ্ধতার কথা বলা হয়েছে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের তথ্য অনুসারে অন্তঃসত্ত্বা বা সার্জারি বা সন্তান জন্মদানের সময় উঠঞ (উববঢ় ঠবরহ ঞযৎড়নড়ংরং) একটি রিক্স ফ্যাক্টর। এই রিক্স ফ্যাক্টরটি মাথায় রেখেই চিকিৎসকগণ প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিয়ে রাখেন, জাপানের মতো অতি উন্নত স্পর্শকাতর চিকিৎসা ব্যবস্থায় এ ধরনের মৃত্যু খুবই অস্বাভাবিক। প্রকৃতপক্ষে কি ঘটেছিল তা অনুসন্ধান করাটা জরুরি। রেজিমেন্টেড জাপানি সমাজ ব্যবস্থায় বিদেশিদের ক্ষেত্রে কর্তব্য অবেহলার বহু ঘটনাই সম্মিলিতভাবে ধামাচাপা দিয়ে রাখা হয়। মুক্তা এ রকম কোনো অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার শিকার নন তো?

ড. শোয়েব আরো বলেন, মুক্তা জাপান সরকারের বৃত্তিধারী ছিলেন। যার অর্থ হচ্ছে জাপান সরকারের আমন্ত্রণে তিনি গবেষণা করতে এসেছিলেন। স্বাভাবিক নিয়মেই মরদেহ দেশে পাঠানোর বিষয়টি জাপান সরকার বা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দায়িত্বের আওতায় পড়ে। অথচ এ ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষ অর্থসংস্থানের বিষয়ে যেভাবে সহপাঠী, বন্ধুবান্ধব, স্বজন এবং দূতাবাসের ওপর নির্ভর করেছেন তা রীতিমতো বিস্ময়কর। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সাহায্য দিচ্ছে যে জাপান সরকার তারা তাদের দেশে তাদেরই আমন্ত্রণে আসা একজন বিদেশি ছাত্রীর মরদেহ মাতৃভূমিতে পাঠানোয় আর্থিকভাবে অক্ষম বা দায়িত্ব কেন নিতে চাচ্ছে না বোধগম্য নয়। বাংলাদেশ দূতাবাসের ত্বরিত পদক্ষেপসহ মোটা অঙ্কের তাৎক্ষণিক সাহায্য সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে।

ড. রফিকুল ইসলাম বলেন, দূতাবাস ভালো কাজটি করেছে। তাদের এটাই করা উচিত। তবে প্রশ্ন হলো এটা কি কেবলই উচ্চ শিক্ষার্থে আসাদের জন্য? নাকি সকল প্রবাসীর জন্য? তিনি বলেন, প্রতিটি প্রবাসীর প্রতি দূতাবাসের দায়িত্ব রয়েছে। এটা নাগরিক অধিকারও বটে।

মুন্সী খ. আজাদ বলেন, দীর্ঘ ৪০ বছর জাপান জীবনে এমন ঘটনা আর দেখিনি। এটা একটি ভালো উদ্যোগ নিঃসন্দেহে। আশা করি এ ধারা অব্যাহত থাকবে। দূতাবাসকে প্রবাসীরা সব সময় কাছে পাবে।

মুক্তার স্বামী হাবীব অবশ্য ডাক্তারদের কর্তব্যে অবহেলা দেখছেন না। তিনি মনে করেন কপালে যা ছিল তাই হয়েছে। ডাক্তাররা তাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করেছেন। যা হওয়ার তা হয়েছে। এখন সন্তানটিকে মানুষ করতে চাই। মুক্তার ছায়া, মুক্তার আদর্শ তিনি ওর মধ্যে দেখতে চান। মুক্তার আদর্শে তিনি তার সন্তানটিকে লালন-পালন করতে চান।
বন্ধু-বান্ধবের অনেক প্রশ্ন। তারা বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর খুঁজে ফিরছেন। তার মধ্যে প্রধান হলো, ইউনিভার্সিটি হাসপাতাল থাকতে কেন পাবলিক হাসপাতালে ভর্তি হতে গেলেন? জাপানে যেখানে পৃথিবী শ্রেষ্ঠতম নিরাপদ স্থান (জন্ম) প্রসূতিদের জন্য সেখানে মুক্তাকে কেন ঝরে যেতে হলো। তাও আবার সন্তান জন্মদানের এক সপ্তাহ পরে। ৫ লাখ ইয়েন কম হওয়া সত্ত্বেও কেন বেশি টাকায় লাশ পাঠানো হলো? এই অতিরিক্ত টাকা মুক্তার পরিবারকে দিলেও তো কাজে লাগত। তা ছাড়া পরবর্তীতে লাশ পাঠানোতে এর প্রভাব নিশ্চয়ই পড়বে। যদিও মৃত্যু কারো কাম্য নয়। তবুও মানুষ মরে। প্রবাসেও।

১ ফেব্রুয়ারি গিফু মসজিদে মুক্তার প্রথম জানাজা হয়। ৬ ফেব্রুয়ারি থাই এয়ারওয়েজে বাংলাদেশে পৌঁছে এবং ওইদিনই কুমিল্লার লাকসামে কবর দেয়া হয়। মাত্র ২৯ বছর বয়সে মুক্তা এ পৃথিবী থেকে চলে গেলেন। রেখে যান একমাত্র কন্যা সন্তান, ছোট দুই ভাই, দুই বোন, পিতা-মাতা, দাদা-দাদি এবং নানিকে।

জাপান থেকে প্রকাশিত ওয়েব সাইট পত্রিকা পড়সসঁহরঃু.ংশুহবঃ.লঢ়.পড়স-এর কমিউনিটি নিউজে দূতাবাসের বরাত দিয়ে বলা হয় দূতাবাস মুক্তার লাশ দেশে পাঠানোর জন্য অর্থ পরিশোধ করতে সম্মত হয়েছে। এর ফলে লাশ দেশে পাঠানোর জটিলতা দূর হলো। কাজেই এ সংক্রান্ত আর কোনো অর্থ সংগ্রহ করতে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য, এর আগে লাশ নিয়ে চাঁদাবাজি করে অর্থ আত্মসাৎ করার সুস্পষ্ট অভিযোগ রয়েছে জাপান প্রবাসীদের মধ্যে।

rahmanmoni@gmail.com

[ad#co-1]

Leave a Reply