মুন্সীগঞ্জে ৫৮ বছরেও গড়ে ওঠেনি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার

মোঃ আরিফ উল ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ থেকে
ভাষা আন্দলনের ৫৮ বছর এবং স্বাধীনতার ৩৮ বছর পর আজও মুন্সীগঞ্জবাসীর ভাগ্যে দেখা মেলেনি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। প্রতিবার একুশ আসলেই আমাদের ফুল দিতে হয় সরকারি হরগঙ্গা কলেজ প্রাঙ্গণের শহীদ মিনারে। এ নিয়ে সভা-সমাবেশে দাবি উঠেছে, আন্দোলন হয়েছে রাজপথে। রাজনীতিবিদরা আশ্বাস দিয়ে বাহবা নিয়েছেন। বর্তমান জেলা প্রশাসক এবারই ২১ ফেব্র“য়ারিতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেয়ার ঘোষণা দিয়ে আন্দোলন থেকে সরিয়ে এনেছেন সাংস্কৃতিক কর্মীদের। কিন্তু তা আজও হয়নি। রাজনীতিবিদ ও বিত্তবান কেউ এগিয়ে আসেনি।

এবারও ফুল দিতে হবে সরকরি হরগঙ্গা কলেজের শহীদ মিনারে। ফেব্র“য়ারি মাস ভাষার মাস এ মাস আসলেই সবার মনে প্রশ্ন জাগে আমরা কোথায় শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে যাব ? আমরা কি বারবার অপশক্তির হাতে পরাজিত হব ? কিন্তু এভাবে আর কতদিন ? আট মাস আগে মুন্সীগঞ্জ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে মুন্সীগঞ্জের সর্বস্তরের মানুষ এক হয়ে পথে নেমেছিল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণের দাবিতে। মানববন্ধন, ডিসি অফিস ঘেরাও এবং স্মারকলিপি পেশ করে।

এ সময় জেলা প্রশাসক তাদের আগামী ফেব্র“য়ারি মাসে মুন্সীগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেয়ার আশ্বাস দিয়ে আন্দোলন স্থগিত করতে বলে এবং শহীদ মিনারের জায়গা নির্ধারণ হয়েছে বলে জানান। কিন্তু সেটা শুধু আশ্বাসই রয়ে গেল। এব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সম্মিলিত সাং¯ৃ‹তিক জোটের সভাপতি শাহীন মোঃ আমান উল্লাহ জানায়, বর্তমান সরকার স্বাধীনতার স্বপক্ষের সরকার, তার পরও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণের দাবিতে সাংস্কৃতিক কর্মীদের মাঠে নামতে হয়েছে।

প্রশাসন নানা ভয় ভীতি দেখিয়ে এবং মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে আন্দোলনকে স্থগিত করতে বাধ্য করেছে। তার পরও জোটের পক্ষ থেকে আমরা বার বার তার কাছে তাগাদা দিয়েছি, তিনি বলেন, জায়গা নির্ধারণ হয়েছে, অচিরেই কাজ শুরু হবে এবং ২১ ফেব্র“য়ারি সে শহীদ মিনারে ফুল দেব বলে জানান। আসলে জেলা প্রশাসক না করার জন্যই আশ্বাস দিয়েছিল। সঞ্চালক নাট্য চর্চা কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক আঞ্জুমান আরা রুমা বলেন, একুশ আসলেই মনে হয় আমরা সাংস্কৃতিক কর্মীরা খুবই অবহেলিত, আমাদের নেই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এবং তাকে ঘিরে উš§ুক্ত মঞ্চ। যেখানে আমরা স্বাধীনভাবে অনুষ্ঠান করতে পারি। প্রশাসন এবং রাজনীতিবিদরা চায় অমরা তাদের মুখাপেক্ষি হয়ে থাকি। এ জন্য আন্দোলন ও দাবির পরও শহীদ মিনার করছে না। মুক্তিযোদ্ধা এমএ কাদের মোল্লা বলেন, প্রশাসন প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে এ আশ্বাস দিয়ে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় ফেলে শহীদ মিনার না করার পাঁয়তারা করছে।

জেলা প্রশাসন মুন্সীগঞ্জবাসীর দাবির প্রতি শ্রোদ্ধাশীল নয়। উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর, মুন্সীগঞ্জের সাধারণ সম্পাদক আবু তৈয়ব ভূঁইয়া বলেন, আমরা কেন্দ্রীয়ভাবে শহীদ মিনার বাস্তবায়ন করতে পারিনি সেটা অত্যন্ত দুঃখের বিষয়। রাজনৈতিক নেতাদের কর্মকাণ্ডের মধ্যে কিছু অসহযোগিতার কারণে এত বছরেও নির্মাণ হয়নি শহীদ মিনার। জেলা প্রশাসক মোঃ মোশারফ হোসেন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণের ব্যাপারে জানান, সরকারি গণগ্রন্থাগার এবং শহীদ মিনারের জন্য জায়গা বরাদ্দের জন্য মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। গ্রন্থাগারের অনুমোদন এসেছে। শহীদ মিনারের অনুমোদন আসলে আমরা কাজ শুরু করে দেব। বিভিন্ন সমস্যার কারণে এবারই একুশে ফেব্র“য়ারিতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেয়ার প্রতিশ্র“তি রাখতে পারেননি বলে তিনি জানান।

[ad#co-1]

Leave a Reply