সাগরেও নেই এত জল

ফরিদুর রেজা সাগরের জন্মদিন
আকিদুল ইসলাম, সিডনি থেকে:
চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগরের সঙ্গে যখন আমার পরিচয় তখন তিনি অগ্রসর পাঠকের দৈনিক আজকের কাগজের সম্পাদনা পরিষদের সদস্য। কাজী শাহেদ আহমেদের সঙ্গে ইমপ্রেস গ্র“প আজকের কাগজ প্রকাশনার সঙ্গে তখন ব্যবসায়িকভাবে যুক্ত। ওই ভবন থেকেই বের হতো দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় সাপ্তাহিক খবরের কাগজ। কলকাতার এমন কোনো খ্যাতিমান লেখক ছিলেন না যারা ওই কাগজে লিখতেন না। বাংলাদেশ থেকে নিয়মিত কলাম লিখতেন শামসুর রাহমান, আহমেদ শরীফ, হুমায়ুন আজাদ, সৈয়দ শামসুল হক, ইমদাদুল হক মিলন, তসলিমা নাসরিন প্রমুখ। ব্যাংকক থেকে আমি লিখতাম ‘ব্যাংককে আছি’। আজ থেকে প্রায় ১৭ বছর আগে।

ফরিদুর রেজা সাগর একবার ব্যাংকক গিয়ে বললেন, খবরের কাগজে প্রকাশিত তোমার কলামগুলো সংগ্রহে আছে? আমি বলি, আছে। তিনি আমার কাছ থেকে ওগুলো নিয়ে ঢাকায় যান। ’৯৪ সালে বাংলা একাডেমীর বইমেলার প্রথম সপ্তাহে ঢাকা থেকে সাগর ভাই ফোন করে বললেন, তোমার বই বেরিয়েছে এবারের মেলায়। আগামী প্রকাশনী থেকে। আমার চোখে পানি আসে। কথা বলতে পারি না। মনে মনে বলি, ‘আপনি একজন অলৌকিক জাদুকর, সাগর ভাই। থ্যাংকস।’ গত বছর ঢাকায় গিয়ে চ্যানেল আইয়ের তেজগাঁওয়ের নতুন ভবনে তার সঙ্গে দেখা করতে গেলে একসময় বললেন, এখন তুমি আগামী প্রকাশনীর প্রিয় লেখক। তোমার প্রথম বই প্রকাশের স্মৃতি মনে আছে? আমি বলি, সে স্মৃতি কেমন করে ভুলি, সাগর ভাই! আমার চোখে আবার পানি আসে। ওখানে উপস্থিত স্নেহভাজন শহিদুল আলম সাচ্চু তখন আমার দিক থেকে চোখ ফিরিয়ে নিয়ে অন্য দিকে তাকায়।

আমার ওপর সাগর ভাইয়ের স্নেহের দৃষ্টি এতটাই প্রসারিত ছিল যে, একসময় তিনি তাদের বিশাল ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ইমপ্রেস গ্র“পের পরিচালক ও অন্য কর্তাদের বিদেশ ভ্রমণের প্রায় সব টিকিট ইসু করার দায়িত্ব দিয়েছিলেন আমার ব্যাংককের ট্রাভেল কোম্পানিকে। ইমপ্রেস গ্র“পের পরিচালক মামুন ভাই, মজুমদার ভাইয়ের সঙ্গে আমার ঘনিষ্ঠতা ওই সূত্রেই। পরবর্তীকালে জেনেছি, তিনি শুধু আমার জন্যই নয়, সবার পাশে এভাবেই দাঁড়ান।

হুমায়ুন আজাদ যখন ব্যাংককে তখন হাসপাতালের ওভারসিজ টেলিফোন বিল এসেছিল ৯৫ হাজার বাথ। সরকার সেটি দিতে অস্বীকার করলে সব্যসাচী লেখকের দেশে ফেরা অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। হুমায়ুন আজাদ পরবর্তীকালে আমাকে বলেছিলেন, ওই সময় সাগর ভাই ছুটে গিয়েছিলেন ব্যাংককে। এনটিভির পারভেজ চৌধুরী দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হলে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন সাগর ভাই। কথাটি সিডনি শহরে বসে জানিয়েছিলেন ‘সাপ্তাহিক’ পত্রিকার সম্পাদক বন্ধুবর গোলাম মোর্তোজা। তসলিমা নাসরিনের বাংলাদেশের দুঃসহ দিনগুলোতে সাহস জুগিয়েছিলেন তিনি। খ্যাতিমান অনেকের কাছেই শুনেছি। দৈনিক আমাদের সময় সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান তার সাম্প্রতিক একটি লেখায় সাংবাদিকতা জীবনের অবদানের কথা স্বীকার করে যাদের নাম বলেছেন তাদের মধ্যে বিশেষভাবে আছে ফরিদুর রেজা সাগরের নামও। তাছাড়া দৈনিক আমাদের সময় যে সাগর ভাইয়ের কাছে কতভাবে ঋণী সেটা নাঈমুল ইসলাম খানের কাছে বহুবার শুনেছি।

ফরিদুর রেজা সাগরের কর্মযজ্ঞ দেখে মাঝেমধ্যে বিস্ময় মানি। এক জীবনে একজন মানুষ এত কিছু কীভাবে করেন! তাকে দেখে আমার মনে হয়, মানুষের অসাধ্য বলে আসলে কিছু নেই। বাংলাদেশের প্রথম শিশু চলচ্চিত্র ‘প্রেসিডেন্ট’-এর মীল চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তিনি। বাংলাদেশ টেলিভিশনের জš§লগ্ন থেকেই নানা অনুষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত। কেন্দ্রীয় কচি কাঁচার মেলা ও চাঁদের হাটসহ আরো কয়েকটি শিশু-কিশোর সংগঠনের প্রতিষ্ঠাকালীন সংগঠক। পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ও নাটকের বাইরে ‘টেলিফিল্ম’-এর ধারণা তারই। বাংলা ভাষার প্রথম টেলিফিল্ম হুমায়ূন আহমেদের ‘নীতু তোমাকে ভালোবাসি’ ফরিদুর রেজা সাগরের ইমপ্রেস থেকেই প্রযোজিত হয়েছিল। চলচ্চিত্রের মতো একটি শক্তিশালী মাধ্যম যখন অশ্লীলতা আর ফ্যান্টাসির কারণে প্রায় ধ্বংসের মুখে তখন তিনি ব্যবসায়িক ঝুঁকি নিয়ে পরিচ্ছন্ন ও শুদ্ধধারার চলচ্চিত্র নির্মাণে পাশে গিয়ে দাঁড়িয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ, আবু সাঈদ, মোস্তফা সরয়ার ফারুকী আর তৌকির আহমেদদের।

ফারুকী যখন ধার-দেনা করে তার প্রথম চলচ্চিত্র ‘ব্যাচেলর’ নির্মাণের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তখন ওই ছবির কাহিনীকার আনিসুল হককে নিয়ে সাগর ভাইয়ের অফিসে গিয়েছিলেন একদিন। উদ্দেশ্য, চ্যানেল আইয়ে বিনামূল্যে ছবির বিজ্ঞাপন প্রচার। তখন সাগর ভাই জানতে চান, বিজ্ঞাপন প্রচারের টাকা নেই তাহলে ছবি বানানোর টাকা পাচ্ছো কোথায়? ফারুকী আর আনিসুল তখন টাকা সংগ্রহের কষ্টকর কাহিনী শোনান। ফরিদুর রেজা সাগর ছবিটি নির্মাণের পুরো খরচের দায়িত্বটি নিজে নিয়ে নিয়েছিলেন। একজন নতুন পরিচালকের পরীক্ষামূলক একটি ছবির ওপর আর্থিক ঝুঁকি নিতে দ্বিধা করেননি তিনি।

অভিনেতা মাহফুজ আহমেদ এবার সিডনি এসে আমাকে বলেছেন, তাকে অভিনেতা থেকে নির্দেশক বানিয়েছেন সাগর ভাই। এক ঘণ্টার একটি নাটক নির্মাণের জন্য পুরো টিম দিয়ে তাকে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন ইউরোপে। আমার ছোট ভাই লিটু করিম ঢাকায় নাটক লেখে। নাটক বানায়। ওর কাছে শুনেছি, নতুন নাটক নির্মাতাদের জন্য চ্যানেল আই একটি তীর্থস্থান। আমার জানা আর শোনার বাইরেও আছে তার মহত্তম অজস্র কীর্তি।

ফরিদুর রেজা সাগর লিখেছেন ৫০টির অধিক গ্রন্থ। টেলিভিশনের জন্য লিখেছেন অজস্র নাটক। পেয়েছেন বাংলা একাডেমী, শিশু একাডেমী, অগ্রণী ব্যাংক, ইউরো শিশু সাহিত্য, জাতীয় চলচ্চিত্রসহ কয়েক ডজন পুরস্কার। ভ্রমণ করেছেন পৃথিবীর অধিকাংশ দেশ। বর্তমানে তিনি ইমপ্রেস গ্র“পের পরিচালক এবং চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

আজ ২২ ফেব্র“য়ারি, তার ৫৫তম জন্মদিন। আপনাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা, সাগর ভাই।

ই-মেইল: mail@basbhumi.com

[ad#co-1]

Leave a Reply