হুমায়ুন আজাদ: ক্রুশবিদ্ধ দ্বিতীয় সক্রেটিস

আকিদুল ইসলাম : সিডনি থেকে: ২৭ ফেব্র“য়ারি। ২০০৪ সাল। বাংলা একাডেমীর বইমেলা থেকে ঘরে ফেরার পথে মৌলবাদী আততায়ীর চাপাতির আঘাতে ক্ষত-বিক্ষত হয়েছিলেন সব্যসাচী লেখক হুমায়ুন আজাদ। ‘পাক সার জমিন সাদ বাদ’ বইটি লেখার অপরাধে তাকে ক্ষত-বিক্ষত করা হয়। প্রিয় স্বদেশ ভূমির মতোই তার হৃৎপিণ্ড থেকেও ঝরেছিল রক্তের স্রোতধারা। তিনি পৌঁছে গিয়েছিলেন জীবন মৃত্যুর মধ্যবর্তী এক অলৌকিক বিন্দুতে।

রটে যাওয়া মৃত্যু সংবাদকে মিথ্যা প্রমাণিত করে তিনদিন পর সাহসী কবি ফিরে আসেন চেতনা জগতে। সেই অলৌকিক সময়ের বর্ণনা দিতে গিয়ে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালের বেডে শুয়ে ২০০৪-এর ৩ এপ্রিল আমাকে বলেছিলেন, আমার আসলে পুনর্জš§ হয়েছে। আমি তো মরেই গিয়েছিলাম। ওই সময়ের কোনো স্মৃতিও আমার মনে নেই। আমি পরে যখন বেঁচে উঠেছি তখনো বাইরের জগতের সঙ্গে আমার কোনো যোগাযোগ ছিল না। আমি পরে আমার আহত অবস্থার ছবি দেখেছি। আমার মুখমণ্ডল থেকে ঝরঝর করে রক্ত ঝরছে। রক্তাক্ত চিবুক আমি চেপে ধরে আছি। এমন হিংস্রতার মধ্যে আমি পড়েছিলাম। এমন হিংস্রতা বাংলাদেশে রয়েছে। পত্রিকায় প্রথম যখন দেখেছি আমার ছবি, আমি আমার সে ছবি চিনতে পারিনি। আমাকে কখনো ওই দৃশ্যের মতো করে দেখতে চাইনি আমি। কখনো ভাবিনি এমন একটি ঘটনায় আমি এমন একটি দৃশ্যে পরিণত হব। আমার শুধু অপরাধ, আমি বই লিখেছি এবং সত্য প্রকাশ করেছি।

আড়াই হাজার বছর আগের দার্শনিক সক্রেটিসের মতোই হুমায়ুন আজাদের জীবনদৃষ্টি ছিল আকাশের মতো সীমাহীন। স্বচ্ছ। তিনি ছিলেন এরিস্টটলের মতো শুভ চিন্তাশীল। তার চোখজুড়ে ছিল আলোকিত ও কল্যাণময় এক বাংলাদেশের স্বপ্ন। সেই বাংলাদেশ তিনি দেখে যেতে পারেননি। আমরাও কি পারব? একটি বই লেখার অপরাধে যেদেশের মাটিতে তার রক্ত ঝরেছিল সেই বাংলাদেশ নিয়ে তিনি ছিলেন খুবই উদ্বিগ্ন। কাতর। আক্রান্ত হওয়ার পর তিনি বলেছিলেন, আমাদের দেশ এখন মৌলবাদী খুনিতে ভরে গেছে। লাল হয়ে উঠেছে বাংলার মাটি। আজ আমাদের দেশের সমস্ত গ্রাম, আমাদের শহরের প্রতিটি মহল্লা খুনিরা দখল করে নিয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়ও এত খুনি দেখিনি। তখন দেখেছি মুক্তিযুদ্ধ।

সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল আর ব্যাংককের চিকিৎসায় তিনি জীবন ফিরে পেলেও মৌলবাদীরা নিয়ত তাকে হত্যার হুমকি অব্যাহত রাখে। মানসিক চাপ বাড়তে থাকে কবির ওপর। এরই ভেতর তিনি প্রস্তাব পান পেন ইন্টারন্যাশনাল ফেলোশিপের, জার্মান কবি হাইনরিশ হাইনে’র ওপর গবেষণার জন্য। এই গীতিকবির বেশ কয়েকটি কবিতা তিনি অনুবাদ করেছিলেন কয়েক বছর আগে।

৭ আগস্ট ’০৪ তিনি জার্মানির উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন। বিমানবন্দরে হুমায়ুন আজাদ তার পরিবারের সদস্যদের বলেন, ‘জার্মানি যেতে আমার ইচ্ছা করছে না।’ একবুক বেদনা নিয়েই প্লেনে ওঠেন তিনি। ব্যাংককে যাত্রা বিরতি করেন। ওখান থেকে ফোনে পরিবারকে জানান, তিনি শারীরিকভাবে সম্পূর্ণ সুস্থ। ৮ আগস্ট রাতে গিয়ে পৌঁছান জার্মানির মিউনিখ শহরে। পেন ইন্টারন্যাশনালের পক্ষ থেকে এক বছরের জন্য বাংলাদেশের নির্যাতিত লেখকের নামে একটি অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া করা হয়। তিনি ওঠেন সেখানে। ১১ আগস্ট মধ্যরাতে ওই নির্জন কক্ষেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যু আজো অজস্র প্রশ্নবোধক চিহ্ন হয়ে আছে দেশবাসীর কাছে।

হুমায়ুন আজাদের ওপর নৃশংস হামলার বিচার আজো হয়নি। তার স্ত্রী লতিফা কোহিনূর ফোনে আফসোস করে বললেন, বর্তমান সরকার তার মামলার বিচার করতে প্রতিশ্র“তিবদ্ধ। কিন্তু এ ব্যাপারে সরকারের কোনো আগ্রহ দেখতে পাচ্ছি না। তারা রাজনৈতিক মামলাগুলো নিয়ে এখন যতটা আন্তরিক; জাতির বিবেক একজন লেখকের মামলা নিয়ে ততটা আন্তরিক নয়।

আজ এই রোদনভরা দিবসে মনে পড়ছে হুমায়ুন আজাদকে নিয়ে লেখা শামসুর রাহমানের একটি অবিনশ্বর কবিতার কথা: ‘মূর্খেরা ভেবেছে তুমি অস্ত্রাঘাতে নিষ্প্রাণ হলেই নিভে যাবে তোমার সৃষ্টির আলোমালা, অথচ জানে না ওরা সর্বদা সজীব তুমি/ অমর তোমার প্রোজ্জ্বল রচনাবলী/তোমার শরীর কোনওকালে মৃত্তিকায় বিলুপ্ত হলেও যুগ যুগ জ্বলজ্বলে রয়ে যাবে বাংলার দালান, কুটিরে, নদীর ঢেউয়ে/ দেশপ্রেমী প্রতিটি প্রাণের আসনে হে কবি হুমায়ুন তুমি আজ অধিরাজ।’

ই-মেইল: mail@basbhumi.com

[ad#co-1]

Leave a Reply