ইয়াবায় সয়লাব মুন্সীগঞ্জ

মুন্সীগঞ্জে হেরোইন ও ফেনসিডিলসহ অবৈধ বিভিন্ন মাদক ব্যবসাকে ছাড়িয়ে ইয়াবা ব্যবসা এখন শীর্ষে অবস্থান করছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কতিপয় সদস্যকে ম্যানেজ করে ইয়াবা ট্যাবলেট ব্যবসা এখন ওপেন সিক্রেট। উঠতি বয়সের যুবকরা এখন এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। একটি ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ টাকায়।

অনেক মাদকাসক্ত ফেনসিডিল ছেড়ে এখন ইয়াবা ট্যাবলেটে আসক্ত হয়ে পড়েছে। হেরোইন যেভাবে সেবন করা হয় ঠিক একই নিয়মে আসক্তরা ইয়াবা ট্যাবলেট সেবন করে। ইয়াবা সেবনের পর ৮-১০ ঘণ্টা নির্ঘুম রাত কাটাতে হয় আসক্তদের।

একাধিক আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা জানান, মুন্সীগঞ্জে ইয়াবা ট্যাবলেট ব্যবহারের সূত্রপাত ঘটে মুক্তারপুরের বাগবাড়ি থেকে। মরহুম সাবের হাজীর ছেলে শাহীন এ ব্যবসাকে জমিয়ে তোলে। পরে এ ব্যবসা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। শহর থেকে গ্রামাঞ্চলেও এ ব্যবসা এখন ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, মুক্তারপুর সেতু, বিসিক সংলগ্ন চৌধুরী বাড়ি ও মালিরপাথর (ব্রিজের মধ্যবর্তী স্থানের নিচে) এ ব্যবসা জমজমাটভাবে চলছে। চৌধুরী বাড়ির জুম্মন ওরফে জুমন, মালিরপাথরের হোসেন ও ইমরান এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। মুক্তারপুর পান্না সিনেমা হলের আগে দুলাল ও রানা দেদার বিক্রি করছে ইয়াবা। কমলাঘাটে রয়েছে কালু নামে মাদক ব্যবসায়ী। শহরের উত্তর ইসলামপুরে ইয়াবা ব্যবসার হাট বসিয়েছে রফিক ও মাসুম নামে দুই যুবক। সোনারং বাজার সংলগ্ন এলাকায় ইয়াবা বিক্রি করছে রহমান মলিস্নক। এছাড়া শহরের হাটলক্ষ্মীগঞ্জ, দড়্গিণ ইসলামপুর, যোগিনীঘাট, খালইস্ট, মধ্য কোটগাঁও, দেত্তভোগ, হাসপাতাল এলাকা, মানিকপুর, নতুনগাঁও, নয়াগাঁও, সিপাহিপাড়া, গণকপাড়া, কাটাখালী, ঐতিহ্যবাহী মুন্সীরহাট বাজারে ইয়াবাসহ ফেনসিডিল, মদ, গাঁজা, হেরোইন অবাধে বিক্রি হচ্ছে। ঢাকা থেকে জনৈক হারম্নন ও মামুন নামে ২ মাদক ব্যবসায়ী ইয়াবা সাপস্নাই দিচ্ছে।

[ad#co-1]

Leave a Reply