জাটকা না ধরার পুরস্কার পাচ্ছে জেলেরা

জাটকা না ধরার পুরস্কার পাচ্ছে জেলেরা। জাটকা আহরণে বিরত থাকা এক লাখ ৬৪ হাজার ৭৪০ জেলে পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করবে সরকার। প্রতি মাসে পরিবার প্রতি ৩০ কেজি করে এ খাদ্য সহায়তা দেয়া হবে। এজন্য জাটকাপ্রবণ ১০ জেলার ৫৯ উপজেলায় প্রায় ২০ হাজার মেট্রিক টন খাদ্য শস্য দেয়া হবে। ফেব্র“য়ারি থেকে মে এই চার মাস এ খাদ্য সহায়তা দেয়া হবে।

জাটকা জেলেদের খাদ্য সহায়তা প্রদান প্রসঙ্গে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মো. আব্দুল লতিফ বিশ্বাস বলেন, পরিবার প্রতি মাসে ১০ কেজি চাল খুবই অপ্রতুল। এ সহায়তা দিয়ে তাদের জাটকা ধরা থেকে বিরত রাখা যাচ্ছে না। তাই সরকার এ বছর জেলেদের সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সহায়তা ১০ কেজি থেকে ৩০ কেজি করেছে।

সহায়তা বিতরণে কোনো অনিয়ম হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি জানান। উল্লেখ্য, প্রতি বছর নভেম্বর থেকে মে মাস পর্যন্ত নদ-নদীতে জাটকা ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ সময় ৯ ইঞ্চির ছোট কোনো ইলিশ মাছ ধরা যাবে না।

দেশের জাটকাপ্রবণ ১০টি জেলা হচ্ছে- চাঁদপুর, ভোলা, লক্ষ¥ীপুর, বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর, শরীয়তপুর, ঝালকাঠি ও মুন্সীগঞ্জ। ২০টি জেলার মধ্যে এই ১০ জেলার নদ-নদীতে অধিক পরিমাণে জাটকা দেখা যায়।

চাঁদপুরের ৪ উপজেলার ২৬ হাজার ৩৩৫ জেলে পরিবারকে, ভোলার ৭ উপজেলার ৪০ হাজার ৩৭২ জেলে পরিবারকে, লক্ষ¥ীপুরের ৪ উপজেলার ২১ হাজার ৪৪৪ জেলে পরিবারকে, বরিশালের ৯ উপজেলার ২৬ হাজার ২১১ জেলে পরিবারকে, পটুয়াখালীর ৭ উপজেলার ১৯ হাজার ৭৮৪ জেলে পরিবারকে, বরগুনার ৫ উপজেলার ১০ হাজার ৬৮২ জেলে পরিবারকে, শরীয়তপুরের ৬ উপজেলার ৯ হাজার ১৬৯ জেলে পরিবারকে, ঝালকাঠির ৪ উপজেলার ৯১৯ জেলে পরিবারকে এবং মুন্সীগঞ্জের ৬ উপজেলার ১ হাজার ৯৩০ পরিবারকে এই খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হবে ।

বিগত বছরগুলোতে দেশের ১ লাখ ৪৩ হাজার ২৫২টি জেলে পরিবারকে ১০ কেজি করে ৫ হাজার ৭৩০ মেট্রিক টন খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হতো। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে এ বছর থেকে তা বাড়িয়ে ৩০ কেজি করা হয়েছে।

ইতোমধ্যে খাদ্যশস্য জেলা প্রশাসক বরাবর পাঠানো হয়েছে। ভিজিএফ পরিপত্র ২০০৯ অনুসরণ করে যথানিয়মে খাদ্যশস্য বিতরণের জন্য জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বরাদ্দের বিষয় সংশ্লিষ্ট এলাকায় মাননীয় সংসদ সদস্যকে অবহিত করে বিতরণের ব্যবস্থা নেয়ার জন্যও জেলা প্রশাসকদের বলা হয়েছে। জেলা/উপজেলা খাদ্যগুদাম হতে বিতরণ কেন্দ্র পর্যন্ত চাল পৌঁছানোর পরিবহন ও আনুষঙ্গিক খরচ সরকারি খাত হতে বহনের জন্য নির্দেশপত্রে বলা হয়েছে।

অভিজিৎ ভট্টাচার্য

[ad#co-1]

Leave a Reply