হিমাগারে আলু সংরক্ষণ ভাড়া দ্বিগুণ, ক্ষুব্ধ কৃষক

মুন্সীগঞ্জে জরুরী সভায় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত
রেকর্ড পরিমাণ আলু চাষকে পুঁজি করে কোল্ড স্টোরেজ এসোসিয়েশন কৃষকদের জিম্মি করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তারা ৮০ কেজি ওজনের বস্তা প্রতি ২’শ ৬০ টাকা হারে হিমাগারের ভাড়া নির্ধারণ করেছে। এ নিয়ে আলু উৎপাদনের সর্ববৃহৎ জেলা মুন্সীগঞ্জের সাধারণ কৃষকরা চরম ক্ষুব্ধ। মঙ্গলবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ নিয়ে জরুরী সভা বসে। সভায় বাজারকে অস্থিতিশীল করার জন্য কোল্ড স্টোরেজ এসোসিয়েশনকে দায়ী করে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়। এটি সরকারের বিরুদ্ধে একটি ষড়যন্ত্র বলেও সভায় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ও কৃষক প্রতিনিধিরা অভিযোগ করেন। সভায় গেলো বছরের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ ভাড়া নির্ধারণ করায় বাংলাদেশ কোল্ড স্টোরেজ এসোসিয়েশনের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।

প্রসঙ্গত হিমাগারের ভাড়া নির্ধারণ সংক্রান্ত বিষয়ে গত ২০ ও ২৫ ফেব্রুয়ারি জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে সভা বসে। মঙ্গলবার ভাড়া নির্ধারণের জন্য চূড়ান্ত সভা ছিল। কিন্তু সভায় হিমাগার মালিক বা কোল্ড স্টোরেজ এসোসিয়েশনের নেতারা অনুপস্থিত থাকেন। সভা শেষে সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসক জানান, কৃষক ও জাতীয় স্বার্থে একতরফাভাবে এমন ভাড়া নির্ধারণকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ ব্যাপারে কোল্ড স্টোরেজ এসোসিয়েশনের সভাপতি মেজর (অব) মো. জসীম উদ্দীন জানান, বস্তাপ্রতি ২৬০ টাকা ভাড়া নির্ধারণ ঠিকই রয়েছে। তবে কোল্ড স্টোরেজ এসোসিয়েশন এভাবে একতরফা ভাড়া নির্ধারণ করতে পারে কি-না এই প্রশ্নের তিনি সদুত্তর দিতে পারেননি।

এদিকে বাংলাদেশ কৃষক সমিতির আহ্বায়ক ড.ফেরদৌসী বেগম জানান, শুধু অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ই নয়, হিমাগারে আলু সংরক্ষণ করে সাধারণ কৃষকরা জিম্মি হয়ে পড়ে। হিমাগার মালিকদের ব্যাংক ঋণের দায়ের কারণে কৃষক দুর্ভোগ পোহায়। সংরক্ষণের চুক্তিনামায়ও অনেক সমস্যা রয়েছে। সদস্য সচিব মহসীন মাখন বলেন, হিমাগারে যথাযথ তাপমাত্রা ও আলুর সঠিক মান নিয়ন্ত্রণে মনিটরিং ব্যবস্থা থাকা উচিত।

মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ঐ সভায় বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিস, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান, জেলার পিপি অ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন প্রমুখ।

জেলা কৃষি সম্প্রাসরণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক একেএম আমিনুর রহমান এই সভা আহ্বান করেন। তিনি বলেন, এবার জেলায় ৩৬ হাজার ৬৭০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ হয়। গত মৌসুমের চেয়ে এবার ১ হাজার মেট্রিক টন আলু বেশী আবাদ হবে বলে তিনি জানান। জেলায় সাড়ে ৪ লাখ ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ৭১টি হিমাগার রয়েছে। এর মধ্যে ৫৯টি হিমাগার চালু রয়েছে। বাকি হিমাগারগুলো সচলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

[ad#co-1]

Leave a Reply