মুন্সীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষিকার মৃত্যু প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ

সিরাজদিখান উপজেলার আব্দুল্লাহপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় এক শিক্ষিকা নিহত হয়েছেন। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ করে। বুধবার রাতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে আব্দুল্লাহপুরে রাস্তা পারাপারকালে একটি পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় শিক্ষিকা রানু বেগম (৩৪) মারা যান। তিনি জেলার সিরাজদিখান উপজেলার বাঘাপুর হাই স্কুল এন্ড কলেজের সহকারী শিক্ষিকা। তার মৃত্যুর ঘটনায় বৃহস্পতিবার বাঘাপুর হাই স্কুল এন্ড কলেজের বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে অবরোধ সৃষ্টি করে। সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত অবরোধ চলাকালে মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট দেখা দেয়। আব্দুল্লাহপুর থেকে ঢাকার কেরানীগঞ্জ এবং মুন্সীগঞ্জ প্রান্তের শ্রীনগর উপজেলার ছনবাড়ি চৌরাস্তা পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে যানজট। এ সময় উভয় পাশে সহস্রাধিক যানবাহন আটকা পড়ে।

ইত্তেফাক
—————————————————————–

সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষিকার মৃত্যুতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ

সিরাজদিখান উপজেলার সীমান্ত এলাকা আব্দুল্লাহপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় এক শিক্ষিকা নিহত হয়েছেন। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার বিক্ষুব্ধ শিার্থীরা ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ করে।

বুধবার দিবাগত রাতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের আব্দুল্লাহপুর নামক স্থানে পারাপারকালে একটি পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় শিকিা রানু বেগম (৩৪) মারা যান। তিনি জেলার সিরাজদিখান উপজেলার বাঘাপুর হাইস্কুল এ্যান্ড কলেজের সহকারী শিক্ষিকা। তাঁর মৃত্যুর ঘটনায় বৃহস্পতিবার বাঘাপুর হাইস্কুল এ্যান্ড কলেজের কয়েক শতাধিক বিুব্ধ শিার্থী ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ব্যারিকেড সৃষ্টি করে। সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যনত্ম মহাসড়কে ওই ব্যারিকেড থাকে।

ওই অবরোধের মুখে মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট দেখা দেয়। আব্দুলস্নাহপুর থেকে ঢাকার কেরানীগঞ্জ এবং মুন্সীগঞ্জ প্রানত্মের শ্রীনগর উপজেলার ছনবাড়ি চৌরাসত্মা পর্যনত্ম ছড়িয়ে পড়ে যানজট। এ সময় উভয় পাশে সহস্রাধিক যানবাহন আটকা পড়ে।

পুলিশ জানায়, বুধবার রাত ৯টার দিকে মহাসড়ক হয়ে ঢাকাগামী হলুদ রঙের একটি পিকআপ ভ্যান দ্রম্নতগতিতে ছুটে চলছিল। এ সময় শিত্রী রানু বেগম পথ পারাপার হচ্ছিলেন। কিন্তু পথ পার আগেই পিকআপ ভ্যানটি তাঁকে সজোরে ধাক্কা মারে। তিনি মহাসড়কের উপর লুটিয়ে পড়েন। পথচারীরা এ সময় দৌড়ে ছুটে এসে রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে হাসপাতালে নেয়ার প্রস্তুতি মুহূর্তে তিনি মৃতু্যর কোলে ঢলে পড়েন।

কেরানীগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, একই শিৰা প্রতিষ্ঠানের দশম শ্রেণীর বাণিজ্যিক বিভাগের ছাত্রী দোলনা আক্তারকে (১৫) বখাটেরা অপহরণের চেষ্টা করে বাড়ি যারার সময়। জনতা দোলনার চিৎকার শুনে এগিয়ে আসলে বখাটেরা মাইক্রোবাস নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে তার আত্মীয়স্বজনরা দৰিণ কেরানীগঞ্জ থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। পরে উপজেলা চেয়ারম্যানের নির্দেশে মামলা নিতে বাধ্য হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ আবদুলস্নাপুর বেড়িবাঁধ এলাকা থেকে দু’জনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হলো কলি (৩৫) ও হামিদ। সড়ক দুর্ঘটনা এবং শিৰার্থী অপহরণ এই দুই ঘটনার জের ধরে আজ আবদুলস্নাপুর এলাকায় অর্ধবেলা চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

জনকন্ঠ

[ad#co-1]

Leave a Reply