ইমরানের নিয়ন্ত্রণে পঞ্চসার ইউনিয়ন

ধলেশ্বরী নদী সংলগ্ন এলাকা এখন সন্ত্রাসীদের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। প্রকাশ্যেই সেখানে চলছে চাঁদাবাজি, ছিনতাই, রাহাজানি, মাদক ব্যবসাসহ সব ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড। আর এসবের মূল নায়ক ফেরারি আসামি যুবলীগের ক্যাডার ইমরান।

তার বিরম্নদ্ধে রয়েছে এলাকাবাসীর অসংখ্য অভিযোগ। তার আছে নিজস্ব বাহিনী। যার সদস্য সংখ্যা ১০ থেকে ১৫ জন। এই বাহিনী দিয়ে সে মুন্সীগঞ্জের পঞ্চসার ইউনিয়নের ৩৪টি গ্রাম নিজের নিয়ন্ত্রণে রেখেছে। আওয়ামী লীগ ড়্গমতায় আসার পর থেকে সে বেপরোয়া হয়ে ওঠে। ভয়ে তার বিরম্নদ্ধে কেউই মামলা করতে সাহস পাচ্ছে না। ফলে একের পর এক অপকর্ম ইমরান বাহিনী করেই চলেছে। ইমরান ও তার বাহিনীর হাতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র কর্মীরাও নির্যাতনের শিকার হয়েছে। চাঁদাবাজি ও ছিনতাইয়ের মামলায় ইমরানের বিরম্নদ্ধে আদালত ওয়ারেন্ট ইস্যু করেছে। তার বিরম্নদ্ধে রয়েছে ৩টি মামলা। জিডি রয়েছে কয়েকটি। সর্বশেষ গত ২রা মার্চ ইমরানকে প্রধান আসামি করে ১৩ জনের বিরম্নদ্ধে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় চাঁদাবাজি ও হত্যা প্রচেষ্টা মামলা হয়। মামলায় তার বাহিনীর সমরাজ, কুখ্যাত মাদক সম্রাট, সন্ত্রাসী নাছির ভাণ্ডারী ও মো. হোসেনও রয়েছে। গত ১লা মার্চ রাত ৭টায় ফিরিঙ্গিবাজার চিশতিয়া রাইস মিলে তার বাহিনীর সদস্যরা পঞ্চসার ইউনিয়ন বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আয়াত আলী দেওয়ান (৫০)-কে গুলি করে ও কুপিয়ে জখম করে।

এ সময় বাধা দিতে এলে সোলেমান (৪৫)কেও কুপিয়ে জখম করা হয়। বর্তমানে সঙ্কটজনক অবস্থায় তারা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ইমরান ও নাছির ভাণ্ডারী গংকে ১ লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় এ ঘটনা ঘটানো হয় বলে মামলায় বলা হয়েছে। এখানেই শেষ নয় ইমরান বাহিনীর বর্বরতা। পঞ্চসার-মুক্তারপুর এলাকা এখন আতঙ্কের জনপদ। খোদ তার দলের লোকজনই তার হাত থেকে রড়্গা পাচ্ছে না। ২০০৯ সালের ১৬ই নভেম্বর বিকাল ৩টায় পঞ্চসার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রহিম মেম্বার ও তার সঙ্গী সোমেন ২টি মোটরসাইকেল দিয়ে মুক্তারপুর বিসিক মাঠে পৌঁছলে ইমরান ও তার বাহিনী হামলা করে। রহিম মেম্বারকে কুপিয়ে জখম করা হয়। এ সময় একটি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে ফেলে। এ ঘটনায় পশ্চিম মুক্তারপুরের মোমেন বাদী হয়ে ইমরান, হোসেন, শাহীন, আনিস, আলী, মাসুম, সুমনসহ কয়েক জনের নামে মুন্সীগঞ্জ থানায় মামলা করেন। অন্যদিকে মুক্তারপুরস্থ উজালা ফিশিং নেট ইন্ডাস্ট্রিজে মোটা অঙ্কের টাকা চাঁদা দাবি করে ইমরান বাহিনী।

চাঁদা না দেয়ায় ২০০৯ সালের ২৭শে আগস্ট ওই ফিশিং নেট-এর গোডাউন থেকে এক বসত্মা জাল মুক্তারপুরস্থ বোরাক এন্টারপ্রাইজে নেয়ার পথে বাহককে মারধর করে তারা। এরপর জাল লুটে নেয়। এ ঘটনায় ফিশিং নেট-এর মালিক ফারম্নক দেওয়ান বাদী হয়ে ইমরান, বাবু, জাকির, সাইফুল ও পরাণের নামে মুন্সীগঞ্জ থানায় মামলা করেন। এর আগে ২০০৮-এর ৩০শে ডিসেম্বর রাত ১১টায় মুক্তারপুর পান্না সিনেমা হলের সামনে ঢাকা ট্রান্সপোর্ট লিমিটেডের ২টি বাস পুড়িয়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায়ও ইমরান ও তার বাহিনী জড়িত। অভিযোগ রয়েছে ইমরান বাহিনী ঢাকা ট্রান্সপোর্ট লাইনের ক্যাশিয়ার খোকনকে মুক্তারপুর সেতুর ঢালে মারধর করে টাকা ছিনিয়ে নেয়। ২০০৯-এর ফেব্রম্নয়ারি মাসের শেষের দিকে ডিঙ্গাভাঙায় অজিত ডাক্তারের কাছে ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। গত মাস দেড়েক আগে মালির পাথরের মোখলেছের ফিশিং নেট-এর মিল ইমরান-মিরাজ গং বন্ধ করে দেয়। পরে ২ লাখ টাকার বিনিময়ে মিলটি খুলে দেয়। ২০০৯ সালের আগস্ট-সেপ্টেম্বর মালির পাথরের তোফাজ্জল হোসেনের ৬ লাখ টাকার জাল চুরি করে নিয়ে যায় তারা। ওদিকে মুক্তারপুর ও তার সংলগ্ন এলাকার মিল ফ্যাক্টরিগুলোতেও গণহারে চাঁদাবাজি চলছে। পঞ্চসার ইউনিয়নের মধ্যেই ৫টি সিমেন্ট ফ্যাক্টরি, ৮টি কোল্ড স্টোরেজ, ২টি পেপার মিল, ৩টি টেক্সটাইল মিল, ১টি ম্যাচ ফ্যাক্টরি, ৪টি ব্রেড এন্ড বিস্কুট ফ্যাক্টরি, ছোট-বড় মিলে ৯৫টি ফিশিং নেট ইন্ডাস্ট্রিজ, ৭০টি রাইস মিল, ৫টি পস্নাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজ, ২টি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রসহ ৪৯২টি ছোট-বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব শিল্প প্রতিষ্ঠানে চাঁদাবাজি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ওদিকে ফেরারি আসামি একের পর এক অপকর্ম করে প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিচ্ছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন। এছাড়াও ইমরানের নিয়ন্ত্রণে মুক্তারপুর মালিপাথরে ইয়াবা ও ফেনসিডিল ব্যবসা জমজমাটভাবে চলছে।

[ad#co-1]

Leave a Reply