অবশেষে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে চরসৈয়দপুরে ডাইভার্সন হচ্ছে

জনকণ্ঠে সংবাদ প্রকাশের পর
অবশেষে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে চরসৈয়দপুরে ডাইভার্সন হচ্ছে। বৃহস্পতিবার জনকণ্ঠে সচিত্র রিপোর্ট প্রকাশের পর সড়ক ও জনপথ বিভাগ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে কর্তৃপ জানিয়েছে। এদিকে জনকণ্ঠের রিপোর্ট দেখে দুপুরে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোশারফ হোসেন সড়ক বিভাগ ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সরাসরি কথা বলেছেন। তিনি ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কের পোস্তগোলা রাস্তারও সংস্কারের তাগিদ দেন।

বৃহস্পতিবার বিকালে সরেজমিন চরসৈয়দপুর গিয়ে জানা যায়,সড়ক ও জনপথের লোকজন সেখানে গিয়ে মাপ ঝোপ করে ঠিকাদার নিয়োগ দিয়েছে। নিয়োগকৃত ঠিকাদার সানি এন্টারপ্রাইজের মালিক নান্নু মিয়া রাতে জনকণ্ঠকে জানান, ইটের অর্ডার দেয়া হয়েছে, শুক্রবার থেকেই জরম্নরীভিত্তিতে ইটের সলিং কাজ শুরু হবে। শনিবার সন্ধ্যা থেকে এই ডাইভার্সন দিয়ে যান চলাচল শুরু করা যাবে। তিনি জানান, এই ডাইভার্সনের প্রাক্কলন ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ হাজার টাকা।

রাসত্মাটির কর্তৃপ সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঢাকা অঞ্চলের নির্বাহী প্রকৌশলী মনির হোসেন পাঠান বিকালে জানান, জরুরী অনুধাবন করতে পেরেই ব্রিজ অপসারণ কাজ শুরম্নর ১৬ দিনের মাথায়ই ডাইভার্সনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। উপবিভাগীয় প্রকৌশরী নুরুল হোসেন ঘটনাস্থল ঘুরে এসে বলেন, ডাইভার্সন না করায় আসলে মানুষের অনেক দুর্ভোগ হয়েছে। সংশিস্নষ্টরা জানান, জনকণ্ঠই চোখ খুলে দিয়েছে।

উল্লেখ্য ডায়ভার্সন না করে চরসৈয়দপুর ব্রিজ অপসারণে যানজটে পড়ে চরম ভোগান্তিতে পড়ে লাখো মানুষ। উৎপাদিত আলু বাজারজাত এবং শতাধিক শিল্পকারখানার মালামাল আনা নেয়ায় অচলাবস্তার সৃষ্টি হয়। সড়ক বিভাগের এমন খামখেয়ালিপনায় ভুক্তভোগী মানুষ সরকারকে গাল দিচ্ছিল অনবরত। বিভন্নভাবে কোটি কোটি টাকার তি হচ্ছিল।

[ad#co-1]

Comments are closed.