টঙ্গীবাড়ীতে সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় সম্পত্তি গ্রাসের অভিযোগ

আতংকে দিন কাটছে পঞ্চাশ পরিবারের
টঙ্গীবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড় ইউনিয়নের মূলচর গ্রামের বাবুর বাড়ীর মাঠে প্রায় একশত বৎসর ধরে হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রায় ৫০টি পরিবার বসবাস করে আসছে। এখানে চারটি মন্দিরও রয়েছে। প্রতি বৎসর এখানে শারদীয় দুর্গাপূজা, কালিপূজা, স্বরস্বতী পূজা, লোক নাথ ব্রহ্মচারীর উৎসব, রথযাত্রা, বৈশাখী মেলাসহ বিভিন্ন ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মূলচর বাবুর বাড়ীর মাঠ হিসাবে এ জায়গাটির অনেক সুখ্যাতিও রয়েছে। টংগিবাড়ী উপজেলার জনৈক ক্ষমতাধর ব্যক্তি সম্প্রতি এ জায়গাটি দখল করেছে। এ নিয়ে এলাকায় তীব্র অসন্তোষ বিরাজ করছে। এই মূলচর মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি শঙ্কর ভট্টচার্যসহ কয়েক সদস্য মঙ্গলবার প্রেসক্লাবে এসে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান।

শঙ্কর ভট্টচার্য জানান,এসব সম্পত্তির প্রকৃত মালিক হচ্ছেন ভারত উপমহাদেশের প্রখ্যাত সেন বংশের লোকজন। সেন বংশের শেষ বংশধর হিসাবে অক্ষয় কুমার সেন সর্বশেষ এখানে বসবাস করেছিলেন। পাক-ভারত যুদ্ধের সময় তিনি ও তার পরিবার দেশ ছাড়েন। এরপর এ সম্পত্তি লিজ এনে হিন্দুরা এখানে বসবাস শুরু করে। জনৈক শফিউদ্দিন আহম্মেদ নামে একজনব্যক্তি ১৯৬৯ সালে উক্ত সম্পত্তি জাল দলিলের মাধ্যমে দখল করার চেষ্টা করেন। তৎকালীন সময় স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ আদালতের শরণাপন্ন হলে আদালত উক্ত সম্পত্তি অর্পিত সম্পত্তি হিসাবে রায় ঘোষণা করে। উক্ত সম্পত্তির পরিমাণ ২ একর ৭৩ শতাংশ। তন্মধ্যে ১ একর ৩৮ শতাংশ মন্দির কমিটির নামে লিজ দেয়া হয়। শফিউদ্দিন আহম্মেদ মামলায় হেরে গিয়ে এই জায়গা উপরোল্লেখিত ক্ষমতাবান ব্যক্তির কাছে জাল দলিল মূলে বিক্রি করে দেয়। এর আগে বিগত বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে মন্দিরের নামে লিজ বাতিল করে জনৈক ডাঃ লোকমান হোসেন, দীঘিরপাড় উচ্চ বিদ্যালয় ও আজিজুল হক দেওয়ানের নামে লিজ দেয়া হয়। মন্দির কমিটির নামে লিজ পুনর্বহাল করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আবেদন করা সত্তে¦ও কোন প্রতিকার মিলেনি।

এদিকে ক্ষমতাধর ব্যক্তি এখানে জোরপূর্বক ঘর-বাড়ি নির্মাণ শুরু করেছে। আদালতের শরণাপন্ন হলে আদালত কারণ দর্শানোর নোটিস প্রদান করে কাজ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়। কিন্তু সে আদালতের নোটিস উপেক্ষা করে ঘর-বাড়ি নির্মাণ অব্যাহত রেখেছে বলে শঙ্কর ভট্টাচার্য। এ পর্যন্ত উক্ত স্থানে পাঁচটি ঘর নির্মাণ করেছেন এবং তার সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। শতবর্ষী একটি গাছসহ ছোট-বড় আরও বহু গাছ কেটে নেয়া হয়েছে। এই সম্পত্তির বড় দুটি পুকুর জোর দখল পূর্বক ভোগ করছেন। তার কর্মকাণ্ডে বাধা দেয়ায় হিন্দুদের পুড়িয়ে মারার হুমকি দিচ্ছেন ক্ষমতাধর ঐ ব্যক্তি। এ অবস্থায় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন আতঙ্কে দিনযাপন করছে বলে শঙ্কর ভট্টাচার্য অভিযোগ করেন।

[ad#co-1]

Leave a Reply