স্পিডবোটের জন্য কঠিন নিয়ম

মাওয়া-কাওরাকান্দি রুটে ফেরি চলাচল শুরু
মাদারীপুরের শিবচরের মাওয়া-কাওরাকান্দি ফেরিঘাটের পরিস্থিতি শান্ত হয়ে এসেছে। প্রশাসনের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমে সোমবার সন্ধ্যার পর থেকেই ফেরি চলাচল শুরু হলেও উভয়পাড়ের যানজট এখনো কাটেনি। মঙ্গলবার সকাল থেকে এ রুটে লঞ্চ চলাচলও শুরু হয়েছে। তবে স্পিডবোট চলাচল বন্ধ রেখেছে প্রশাসন। স্পিডবোট চালকদের ছবিসহ তালিকা, স্থানীয় প্রশাসন কর্তৃক নম্বর প্লেট সরবরাহের পর আজ বুধবার সকাল থেকে স্পিডবোট চলাচল শুরু হবে।

শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, আতাহার বেপারীর ওপর হামলার অভিযোগে ২২ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এদের মধ্যে মনিরুজ্জামান নামে এক সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল মাওয়ায় মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোশাররফ হোসেন, কেন্দ্রীয় পরিবহন নেতা মনির চৌধুরীর উপস্থিতিতে সভায় স্পিডবোট চলাচলের ক্ষেত্রে কঠোর নিয়ম আরোপ করেছে প্রশাসন। নিয়মগুলো হচ্ছে স্পিডবোটগুলোকে ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে সিরিয়াল নম্বর নিতে হবে ও তা স্পিডবোটে লাগাতে হবে, ড্রাইভারদের ছবি সংবলিত পরিচয়পত্র ধারণ করতে হবে, বেলা শেষ হওয়ার আগে বোট চলাচল বন্ধ করতে হবে এবং ১২০ টাকার বেশি ভাড়া নেওয়া যাবে না।

মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মোশাররফ হোসেন বলেন, স্পিডবোটগুলো নিয়ন্ত্রণে আমরা কঠোর হয়েছি। জনস্বার্থে এগুলো চলতে দিলেও এরা অনেক অনিয়মে জড়িত। এবারের মতো বিধি-নিষেধের মাধ্যমে স্পিডবোটগুলোকে ছাড় দেওয়া হলো। এর পরও কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে স্পিডবোট চলাচল নিষিদ্ধ করা হবে। উল্লেখ্য, মাওয়া-কাওরাকান্দির স্পিডবোট শ্রমিকদের সংঘর্ষের পর সমঝোতা বৈঠকে যোগ দিতে গত সোমবার কাওরাকান্দি স্পিডবোট ও লঞ্চ মালিক সমিতির সভাপতি আতাহার বেপারীসহ নেতারা মাওয়ায় গেলে স্থানীয় শ্রমিকরা তাঁদের ওপর হামলা চালায়। এতে আতাহার বেপারীসহ তিন জন আহত হলে সোমবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কাওরাকান্দি এলাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক ও নৌরুটটি অবরোধ করে রেখেছিল কাওরাকান্দির শ্রমিকরা। পরে মাওয়ার স্পিডবোট চালক মনিরুজ্জামান কাজীকে গ্রেপ্তার ও প্রশাসনের সঙ্গে সমঝোতার পর রাতে নৌ ও সড়ক অবরোধ তুলে নেয় কাওরাকান্দির শ্রমিকরা।

[ad#co-1]

Leave a Reply