স্বাধীনতা ও তরুণসমাজ

ড. মীজানূর রহমান শেলী
স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ আমাদের ঐতিহাসিক মুক্তিযুদ্ধের কাáিক্ষত অর্জন। ৩৯ বছর আগে ১৯৭১-এ যে রক্তরঞ্জিত সংগ্রাম জাতীয় মুক্তির দ্বার খুলে দেয় তার প্রধান চালিকাশক্তি ছিল সেই সময়ের তরুণ সমাজ। মানব ইতিহাসের সব যুদ্ধেই তরুণদের অগ্রণী ভূমিকা অনস্বীকার্যভাবে সক্রিয় থাকে। এ জন্যই বুঝি প্রাচীন গ্রিসের দর্শনিক ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অ্যারিস্টটল যুদ্ধ ও শান্তির সময়ের পার্থক্য বিচার করে বলেছিলেন, ‘শান্তি হলো সেই সময় যখন পুত্ররা তাদের পিতাদের সমাধিস্খ করে, আর যুদ্ধ হলো সেই সময় যখন পিতারা তাদের পুত্রদের সমাধিস্খ করে।’ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে যে লাখ লাখ মুক্তিযোদ্ধা প্রাণাহুতি দেন, তাদের প্রায় সবাই ছিলেন তরুণ। তারুণ্যের কাছে বাংলাদেশের বাঙালি জাতির ঋণ অপরিমেয়। শুধু সে কারণেই নয়, জাতীয় মুক্তি ও স্বাধীনতার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য সফলভাবে অর্জন করতে হলেও প্রয়োজন দেশের তরুণ সমাজের আশা-আকাáক্ষা পূরণের সর্বাত্মক ও সুবিন্যস্ত প্রচেষ্টা চালানো। তরুণ-তরুণীদের সমস্যা, অভাব ও চাহিদা সম্পর্কে রাষ্ট্র ও সরকার অর্থাৎ গোটা জাতীয় সমাজকে সচেতন থাকতে হবে। তরুণ-তরুণীদের অভাব সফলভাবে মেটানো ও তাদের চাহিদা সার্থকভাবে পূরণের মধ্যেই নিহিত রয়েছে সার্বিক জাতীয় উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির চাবিকাঠি।

অতীতেও যেমন তেমনি বর্তমানেও বাংলাদেশের তরুণ-তরুণী, কিশোর-কিশোরী ও শিশুরা মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক। এক হিসাবে এরাই আমাদের জনসংখ্যার ৪৫ শতাংশ। জাতিসঙ্ঘের সংজ্ঞা অনুযায়ী যাদের বয়স ১২ থেকে ৩৫ বছর তাদের তরুণ-তরুণী বলে অভিহিত করা হয়। সেই নিরিখে বাংলাদেশের লোকসংখ্যার অন্তত এক-পঞ্চমাংশ অর্থাৎ তিন কোটিরও বেশি নাগরিক তরুণ বয়সী। আর এর নিচের বয়সের যারা বিকাশমান তরুণ তাদের হিসাবে নিলে এ সংখ্যা দাঁড়ায় মোট জনগোষ্ঠীর ৪৫ থেকে ৫০ শতাংশ।

দুনিয়ার উন্নয়নশীল ও স্বল্পোন্নত দেশগুলোতেও একই অবস্খা দেখা যায়। কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর বেশির ভাগই এই শ্রেণীর, যার মধ্যে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কাসহ অনেক দেশই রয়েছে। এদের কথা বলতে গিয়েই কমনওয়েলথ প্রধান গ্রেট ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ২০০৯ সালের ৮ মার্চ কমনওয়েলথ দিবস উপলক্ষে প্রদত্ত তার বাণীতে বলেন, ‘কমনওয়েলথের (প্রায় ২০০ কোটি নাগরিকের অর্ধেক) ১০০ কোটি নাগরিকের বয়সই ২৫ বছরের নিচে। কমনওয়েলথকে ভবিষ্যতে এদেরই সেবা করে যেতে হবে। এরাই আজকের কমনওয়েলথকে গড়ে তুলতে সাহায্য করবে এবং এদের সন্তান-সন্ততিরাই আগামী দিনের কমনওয়েলথের উত্তরাধিকারী হবে। তারা যাতে তাদের সুযোগের পূর্ণ সদ্ব্যবহার করতে পারে, সে জন্য প্রয়োজন তাদের সেই সুযোগ-সুবিধা দেয়া, যার মাধ্যমে তারা তাদের নিজ নিজ সমাজের সক্রিয় ও দায়িত্বশীল নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে পারে।’ এ কথা বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও সর্বাংশে প্রযোজ্য।

বস্তুত বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে দৃঢ় ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য এবং এ দেশের জনগণের জন্য উন্নত ও সমৃদ্ধ জীবন অর্জনের লক্ষ্যে তরুণ-তরুণীদের পরিপূর্ণ বিকাশের সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি আশু প্রয়োজন।

সম্ভাবনাময় এবং পরিশ্রমী জনগোষ্ঠীর অধিকারী বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে এবং শিল্পায়ন ও প্রযুক্তি প্রয়োগে এখনো অনগ্রসর। জনসংখ্যা স্ফীতি, সম্পদের অপ্রতুলতা, প্রযুক্তির অপূর্ণ ব্যবহার, ব্যবস্খাপনা ও জনপ্রসাশনের দুর্বলতা বাংলাদেশকে এখনো দরিদ্র দেশের কাতারে শামিল করে রেখেছে। প্রশাসনিক ও সার্বিক ব্যবস্খাপনায় যে অপূর্ণতা ও ত্রুটি-বিচ্যুতি রয়েছে, তা আবার অনেকাংশেই রাজনৈতিক স্তরের দুর্বলতা ও ব্যর্থতার অবাঞ্ছিত ফসল। নানা সাফল্য সত্ত্বেও রাজনৈতিক নেতৃত্ব প্রায় চার দশক ধরে অনেক ক্ষেত্রেই নিরাশাজনক দুর্বলতার পরিচয় দিয়েছে। গণতন্ত্র মোটামুটিভাবে ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পারলেও এর সবল ও মজবুত ভিত আশানুরূপভাবে সৃষ্টি করা সম্ভব হয়নি। প্রধান রাজনৈতিক শক্তিগুলোর মধ্যে প্রবল মতানৈক্য তৈরি করেছে দ্বন্দ্বময় ও সাংঘর্ষিক আবহ। অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ ও মৌলিক জাতীয় বিষয়ে ঐকমত্যের অভাব দেশকে প্রায় দ্বিধাবিভক্ত করেছে। রাজনৈতিক মেরুকরণ প্রক্রিয়া জাতীয় ঐক্যকে বিঘিíত করে তুলছে। জনপ্রশাসন, পেশাজীবী সমাজ, বুদ্ধিজীবীসহ সমাজের অনেক গুরুত্বপূর্ণ অংশ সাংঘর্ষিক পরিস্খিতির শিকারে পরিণত হয়েছে। এর ফলে এক দিকে যেমন দেখা দিয়েছে সুশাসনের অভাব ও ব্যবস্খাপনার অদক্ষতা, তেমনি দারিদ্র্যপীড়িত, বেকারত্বে জর্জরিত তরুণ সমাজও হয়ে পড়েছে বিভ্রান্ত ও দিশেহারা।

এসব কারণেই স্বাধীনতা-পরবর্তী ৩৯ বছরে দারিদ্র্য বিমোচন, বেকারত্ব নিরসন, শিক্ষা ও স্বাস্খ্যের কাáিক্ষত উন্নয়ন বাঞ্ছিত গতিতে সম্ভব হয়নি। দারিদ্র্য বিমোচনের ক্ষেত্রে এ সময়ে কিছুটা অগ্রগতি হলেও তা যথেষ্ট নয়। প্রতি বছর এক শতাংশ হারে দারিদ্র্য হন্সাস করার পর আজো দেশের ৪০ শতাংশের অধিক নাগরিক দারিদ্র্যের কশাঘাতে জর্জরিত। গড়পড়তা বার্ষিক মাথাপিছু আয় ১৯৭০-এর দশকের ৭০ মার্কিন ডলারের চেয়ে হালে ছয় শতাধিক ডলারে পৌঁছলেও মূল্যস্ফীতি ও চাহিদা বৃদ্ধির কারণে তার অভিঘাত কাáিক্ষত সুফল আনতে পারেনি। কর্মসংস্খানের ক্ষেত্রে অনগ্রসরতার ফলে সক্ষম জনগোষ্ঠীর এক বিশাল অংশ, প্রায় তিন কোটি, এখনো বেকারত্ব বা ছদ্মবেশী বেকারত্বের মারাত্মক আঘাতে জর্জরিত। আর এদের সবাই তরুণ সমাজভুক্ত।

এক দিক থেকে দেখলে অর্থনৈতিক পরিমণ্ডলে এবং কৃষি, শিক্ষা ও স্বাস্খ্য খাতে স্বাধীন বাংলাদেশের অর্জন নগণ্য নয়। দুর্বল ও দুষ্ট রাজনীতি, সামরিক হস্তক্ষেপ, একনায়ক-ধর্মী ও স্বৈরাচারী ব্যক্তিকেন্দ্রিক শাসন এবং প্রশাসনিক দুর্বলতা সত্ত্বেও বাংলাদেশের পরিশ্রমী মানুষ এসব ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন করেছে। দেশের কর্মনিষ্ঠ দরিদ্র ও সমস্যাগ্রস্ত কৃষকরা উদয়াস্ত পরিশ্রম করে দেশকে খাদ্যশস্যে প্রায় স্বনির্ভর করতে সক্ষম হয়েছেন। বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশের বাঙালি কর্মীরা বছরে প্রায় এক হাজার ২০০ কোটি ডলার বৈদেশিক মুদ্রা আয় করে দেশে পাঠাচ্ছেন। পোশাক শিল্প তার উৎপাদিত পণ্য রফতানির মাধ্যমে ফি বছর ৯০০ কোটি ডলার সমপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা আয় করছে। আর এসব সম্ভব হচ্ছে বিশ্বব্যাপী মহামন্দা ও অর্থ সঙ্কটের বিরূপ পরিবেশেও। বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংকে সংরক্ষিত বৈদেশিক মুদ্রা তহবিল এ যাবৎ সর্µোচ্চ পরিমাণ অর্থাৎ এক হাজার কোটি ডলার ছাড়িয়ে গেছে।

কিন্তু এসব সত্ত্বেও রাজনৈতিক, প্রশাসনিক ও ব্যবস্খাপনার দুর্বলতায় দেশীয় ও বিদেশী বিনিয়োগ আশানুরূপ মাত্রায় পৌঁছতে পারছে না। অবকাঠামোর অনগ্রসরতা ও দুর্বলতা বিশেষত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সরবরাহের অপ্রতুলতা, যোগাযোগ ও পরিবহনে ত্রুটি ও অব্যবস্খা এবং শিল্পে মালিক ও শ্রমিক সম্পর্কের টানাপড়েন এ পরিস্খিতিকে আরো নেতিবাচক করে তুলেছে। ফলে কর্মসংস্খানের অতি প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রটিতে আসছে না কাáিক্ষত গতিশীলতা। এর ফলে সারা দেশ যেমন দুর্ভোগ পোহাচ্ছে, তেমনি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তরুণসমাজ। কর্মসংস্খানের অভাব শিক্ষিত, অল্পশিক্ষিত এবং অশিক্ষিত তরুণ-তরুণীর মধ্যে সৃষ্টি করছে দারুণ হতাশা ও বিভ্রান্তির। দিশেহারা হয়ে অনেকেই শরণ নিচ্ছে মারাত্মক মাদকের নেশায়। আবার অনেকেই পরিণত হচ্ছে সুযোগ সìধানী চরমপন্থী ও উগ্রবাদী সন্ত্রাসী শক্তির সহচরে। জাতির বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য তৈরি হচ্ছে এক মারাত্মক হুমকি। বাংলাদেশের কোটি কোটি তরুণ-তরুণীকে হতাশা ও বিভ্রান্তি থেকে মুক্ত করা এ মুহূর্তে সবচেয়ে বড় প্রয়োজন। এটি না করতে পারলে স্বাধীনতার মূল ও চূড়ান্ত লক্ষ্য অর্জিত হবে না।

আমাদের তরুণ সমাজের সমস্যা অনুন্নত ও স্বল্পোন্নত দেশের তরুণ সমাজের সমস্যা থেকে ভিন্ন কিছু নয়। সমাজে ন্যায়পরতার অভাব, তাদের সম্ভাবনার পূর্ণ বিকাশের সুযোগের অভাব তরুণ-তরুণীদের অস্খির করে। অস্খিরতা তারুণ্যের বৈশিষ্ট্য। সামাজিক ও অর্থনৈতিক পরিবেশ অনুকূল না হলে এ অস্খিরতা আরো প্রবল ও বিধ্বংসী রূপ নেয়।

বর্তমান বিশ্বের অস্খিতিশীল পরিপ্রেক্ষিত তারুণ্যের অস্খিরতাকে বাড়িয়ে তুলছে। দুনিয়াজোড়া মহামন্দা এখনো প্রশমিত হয়নি। অন্য দিকে সারা পৃথিবীতে চলছে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবিরোধী এক প্রলম্বিত সশস্ত্র সঙ্ঘাত। এ পরিস্খিতিতে তরুণসমাজকে সঠিক পথে রাখতে হলে প্রয়োজন নতুন এবং কার্যকর কৌশল ও কর্মপন্থা। বাংলাদেশের মতো সমস্যা জর্জরিত দেশে এ প্রয়োজন আরো জরুরি।

১৯৭৭ সালে জামাইকার ওচোরিওস শহরে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথের প্রথম যুব সম্মেলন উদ্বোধন করার সময় জ্যামাইকার তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মাইকেল ম্যানলি যথার্থই বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ও জাতীয় রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বিদ্যমান প্রক্রিয়া ও পদ্ধতির পরিবর্তনের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক এবং অন্যবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করা দরকার। প্রধানত মৌলিক ন্যায়পরতা প্রতিষ্ঠায় ব্যর্থ আজকের এ দুনিয়ার অনাকাáিক্ষত পরিবেশ বদলের জন্যই এ পরিবর্তন প্রয়োজন। অর্থবহ পরিবর্তন আনার প্রক্রিয়ায় এক অতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার জন্য তরুণসমাজকে অধিকতর প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। এ ভূমিকা পালনের জন্য যে গুরুদায়িত্ব তাদের নিতে হবে তার জন্য সযত্ন প্রস্তুতি দরকার।’

মাইকেল ম্যানলি আরো বলেন, ‘সুশৃঙ্খল ও স্খিতিশীল পরিবর্তনের এ মহা-অন্বেষায় তরুণসমাজকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে অগ্রপথিকের ভূমিকা নিতে হবে।’

জ্যামাইকার সবেক প্রধানমন্ত্রী মাইকেল ম্যানলির এই উদাত্ত আহ্বানের পরিপ্রেক্ষিত রচনাকারী নেতিবাচক উপাদানগুলো একবিংশ শতাব্দীর দুনিয়াতে, বিশেষ করে বাংলাদেশে প্রবলভাবে অস্তিত্বশীল। ম্যানলি যথার্থই সাবধান বাণী উচ্চারণ করেছিলেন­ ‘আমাদের তরুণ-তরুণীরা ক্রমেই সংশয়াকুল এবং উদাসীন হয়ে উঠছে। অঙ্গীকার ও বাস্তবায়নের মধ্যের বিরাট ফারাক তাদের অনেকাংশেই হতাশ ও নিরাশ করে রাখছে। সংস্কারের মাধ্যমে কার্যকরী পরিবর্তন আনার সম্ভাব্যতা সম্পর্কে তারা এখন সìিধহান ও অনিশ্চিত। এ অনিশ্চিতির পরিপ্রেক্ষিতে তাদের অনেকেই হয়তো গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নাগরিক হিসেবে তাদের অধিকার স্বেচ্ছায় বর্জন করছেন। অন্যরা আবার বিদ্যমান ব্যবস্খার বাইরে গিয়ে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনার চ্যালেঞ্জ গ্রহণে সক্রিয় হয়ে উঠছেন।’ এ অবস্খায় মাইকেল ম্যানলির মতে, ‘প্রতিকারের জন্য যা আশু প্রয়োজন তা হচ্ছে সব ধরনের জননীতি প্রণয়নে তরুণসমাজকে সক্রিয় অংশীদারের ভূমিকা দেয়ার লক্ষ্যে কৌশল ও কার্যক্রম রচনা।’

অর্থনৈতিক নিরাশা এবং সংঘর্ষ ও সঙ্ঘাত-জর্জরিত আজকের দুনিয়ার এক নাজুক অংশ বাংলাদেশ। সে জন্যই সারা দুনিয়ার জন্য যেমন, তেমনি বিশেষ করে স্বাধীন বাংলাদেশেও মাইকেল ম্যানলির পরামর্শ গ্রহণ আশু প্রয়োজন। স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের বর্তমানকে সুব্যবস্খায় আনতে হলে এবং ভবিষ্যৎকে মজবুত ভিত্তিতে গড়তে হলে দেশের তরুণসমাজকে সক্রিয় অংশীদারে পরিণত করতে হবে। বাংলাদেশের আজকের দিনের সমস্যা ও সঙ্কট মোকাবেলায় এবং আগামী দিনের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি গড়ে তোলার কাজে তরুণ-তরুণীদের সংহত ও সুসংগঠিত ভূমিকা অপরিহার্য। সে ভূমিকা যাতে তারা রাখতে পারে তার ব্যবস্খা নিতে হবে অবিলম্বে ও এখনই। দারুণ দারিদ্র্য, অপ্রতুল কর্মসংস্খান এবং অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে তাদের বিকাশ লাভের সুযোগের অভাব তরুণসমাজের সদস্যদের নিরাশ ও হতোদ্দ্যম করে। আশার অভাব তাদের বিপথে পরিচালিত করে। পরিণামে তারা হয় মাদকাসক্তির শিকার অথবা সন্ত্রাসী ও উগ্রবাদী শক্তির সহচর। সারা বিশ্বে যেমন তেমনি বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে তরুণসমাজকে সুরক্ষা করার একমাত্র উপায় আশার মজবুত ভিত তৈরি করা। আর তা করা সম্ভব শুধু তাদের সব জাতীয় পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের অংশীদার করে গড়ে তোলার মাধ্যমে। তরুণসমাজকে সব কাজে সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত করার ব্যবস্খা নিতে হবে দ্রুতগতিতে।

মনে রাখতে হবে, সময় দ্রুতচারী এবং কারো জন্য থেমে থাকে না। কাল-উপযোগী পদক্ষেপ না নিতে পারলে আমাদের তরুণসমাজ হবে বিপথগামী, ভবিষ্যৎ হবে আরো কন্টকাকীর্ণ। ‘সময় গেলে, সাধন হবে না’ অলস বসে থাকলে আমরা দেখব সময়ের ফেরে আমাদের সব সম্ভাবনাময় আগামীকাল পরিণত হয়েছে নির্জীব ও নিশ্চল গতকালে।

লেখক : চিন্তাবিদ, সমাজবিজ্ঞানী ও সাহিত্যিক সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ, বাংলাদেশের (সিডিআরবি) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এবং আর্থসামাজিক ত্রৈমাসিক ‘এশিয়ান অ্যাফেয়ার্সের’ সম্পাদক।

[ad#co-1]

Leave a Reply