মুন্সীগঞ্জে ৮ লাখ মেট্রিক টন আলু এখন খোলা আকাশের নিচে

কাজী দীপু মুন্সীগঞ্জ: বাম্পার ফলন হলেও সংরক্ষনের অভাবে মুন্সীগঞ্জে ৮ লাখ মেট্রিক টন আলু এখন খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছে। সংরক্ষনের জন্য হিমাগারে জায়গা না থাকায় উৎপাদিত এই আলু রাখতে বিপাকে পড়েছে কৃষককুল। তারা এখন জেলার বির্স্তীর্ন এলাকার জমি গুলোতে রাতের পর রাত জেগে উত্তোলনকৃত আলু স্তুুপ রেখে পাহাড়া দিচ্ছে। অন্যদিকে খোলা আকাশের নিচে থাকা আলু বৃষ্টিতে ভিজে পচে যেতে পারে এমন আশঙ্কায়ও ভুগছে কৃষকরা। এ কারনে অনেক কৃষক কম দামে আলু বিক্রি করে দিতে বাধ্য হচ্ছে।

সূত্র জানায়, চলতি বছরে মুন্সীগঞ্জে আলু উৎপাদন হয়েছে পৌনে ১২ লাখ মেট্রিক টন। আর জেলার ৬৩ টি কোল্ড ষ্টোরেজের ধারন ক্ষমতা ৪ লাখ মেট্রিক টন। বাকী পৌনে ৮ লাখ মেট্রিক টন আলু সংরক্ষনের জায়গার অভাবে কৃষকরা দিশেহারা। কোথাও আলু সংরক্ষন করতে না পেরে এখন খোলা আকাশের নিচে জমিতে স্তুুপ রেখে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে কৃষকরা। সূত্র আরো জানায়, দেশের বিভিন্ন জেলার আলুও মুন্সীগঞ্জের হিমাগারগুলোতে সংরক্ষন করেছে মধ্যস্বত্তভোগীরা। এ কারনে মুন্সীগঞ্জের কৃষকরা হিমাগারে আলূ রাখারে সুযোগ পাচ্ছে না।

কৃষকরা জানায়, এমনিতে জায়গার অভাবে আলু খোলা আকাশের নিচে রাখতে হচ্ছে, তা মধ্যে গভীর রাতে বিভিন্নস্থানে সংঘটিত আলু লুটের ঘটনা কৃষককে ভাবনায় ফেলে দিয়েছে। ফলে অনেক কৃষক কম মূল্যে আলু বিক্রি করে দিচ্ছে। আর এই আলু নিয়ে ক’দিন পর ফায়দা লুটবে মধ্যস্বত্তভোগীরা।

তাই দ্রুত এই আলু দেশের বাইরে সরাসরি রপ্তানী ব্যাপারে সরকারের সহযোগিতা চেয়েছে কৃষককুল। বাংলাদেশ কৃষক সমিতির সাধারন সম্পাদক মহসিন মাখন কৃষকদের এই সুফল নিশ্চিত করতে স্থানীয় প্রশাসন ও কৃষি বিভাগের সমন্বয়ে একটি সেল গঠন করার দাবী জানিয়েছেন।

[ad#co-1]

Leave a Reply