ফায়দা লুটছে হিমাগার মালিক, কোটা সংরক্ষণকারী ও চাঁদাবাজরা

মুন্সীগঞ্জে লোকসানের আশঙ্কায় আলুচাষিদের ঘুম হারাম
মাহবুব আলম লিটন, মুন্সীগঞ্জ
দেশের সর্ববৃহৎ আলু উৎপাদনকারী জেলা মুন্সীগঞ্জের আলুচাষিরা এবার লোকসানের আশঙ্কায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। হিমাগার মালিক, কোটা সংরক্ষণকারী এবং চাঁদাবাজদের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছেন তারা।
অভিযোগে জানা গেছে, এ বছর হিমাগার ভাড়া বস্তা প্রতি ৮৫ থেকে ১০০ টাকা বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এছাড়া গত নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে অধিকাংশ হিমাগার মালিক অগ্রিম কোটা বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে জেলার প্রকৃত কৃষকরা আলু সংরক্ষণে কোটা সংরক্ষণকারীদের দ্বারস্থ হতে বাধ্য হচ্ছেন। এ সুযোগে মধ্যস্বত্বভোগী কোটা সংরক্ষণকারীরা বাড়তি ফায়দা লুটছে। এদিকে আলু তোলা থেকে শুরু করে হিমাগার পর্যন্ত পেঁৗছতে কৃষকদের নানাভাবে চাঁদা দিতে হচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে আলু তুলে জমিতে স্তূপ দিয়ে এবং হিমাগারের সামনে আলু সংরক্ষণের আশায় অসহায় কৃষকরা বিনিদ্র রাত কাটাচ্ছেন।

সরেজমিনে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মুক্তারপুরস্থ নিপ্পন হিমাগারের সামনে আলু সংরক্ষণে অপেক্ষমাণ কৃষক খাসকন্দি গ্রামের রফিকুল ইসলাম জানান, অনুকূল আবহাওয়ায় এবার ফলন যথেষ্ট ভাল হয়েছে; কিন্তু ক্রেতা না থাকায় প্রতিদিনই আলুর দাম কমছে। বর্তমানে আলু সাড়ে ৩০০ থেকে ৩৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আলু উৎপাদন খরচ না ওঠায় সচ্ছল কৃষকরা আলু বিক্রি করতে চাচ্ছেন না। কিন্তু অধিকাংশ হিমাগারের কোটা ২ মাস আগে বস্তা প্রতি ১১৫-১২০ টাকায় অগ্রিম বিক্রি হয়ে যাওয়ায় কৃষকরা আলু রাখতে কোটা সংরক্ষকদের কাছে ছুটছেন।

এদিকে হিমাগার মালিক এসোসিয়েশন এ বছর প্রতি বস্তায় ২৬০ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করে দেয়ায় ওইসব কোটা সংরক্ষণকারীরা আলু না রেখে কোটা অন্যের কাছে বিক্রি করে নগদ লাভ গুনছেন। হিমাগারের কোটা বিক্রি সম্পর্কে নিপ্পন হিমাগারের ম্যানেজার মনোরঞ্জন সাহা দৈনিক সংবাদকে বলেন, ১ লাখ ৪০ হাজার বস্তা ধারণক্ষম কোল্ডস্টোরেজে প্রতি বছর ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ১ কোটি ৪ লাখ টাকা গৃহীত ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে হয়। যে জন্য অগ্রিম কোটা বিক্রি ছাড়া টাকা সংগ্রহের উপায় থাকে না। জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চল খাসের হাটে নূরানী কোল্ডস্টোরেজে প্রতি বস্তা আলু ঢোকাতে ২০ টাকা, সিরাজদিখান ফাইভ স্টার ও আনাম কোল্ডস্টোরেজে ৫০ টাকা করে নিচ্ছে। প্রতিটি কোল্ডস্টোরেজেই দালাল ও ফড়িয়াদের টাকা দিতে হচ্ছে বলে কৃষকরা অভিযোগ করেছেন। জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জের ৬৯টি হিমাগারের মধ্যে ৬৩টি বর্তমানে সচল রয়েছে। এসব হিমাগারে ৪ লাখ ৭৫ হাজার মেট্রিক টন আলু সংরক্ষণ করা যাবে। এ বছর জেলায় আবাদকৃত ৩৬ হাজার ৬৭০ হেক্টর জমিতে ১১ লাখ ৭০ হাজার মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হয়েছে। বিগত বছরে ৩৫ হাজার হেক্টর জমিতে আলু উৎপাদিত হয়েছিল ৯ লাখ ৬৫ হাজার মেট্রিক টন।

[ad#co-1]

Leave a Reply