একজন সফল রাষ্ট্রদূতের বিদায়

রাহমান মনি
টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে দায়িত্বপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতদের মধ্যে একজন সফল রাষ্ট্রদূত আশরাফ-উদ-দৌলা। যিনি ক্যাপ্টেন (অব.) তাজ নামে পরিচিত। একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধে তিনি সরাসরি অংশ নেন। তখন ছিলেন একজন ল্যাফটেনেন্ট। ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে আত্রাইয়ের সৈয়দপুরে চরমপন্থীদের সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধে তিনি একটি পা হারান। তারপর যুগোশ্লাভিয়ায় উন্নত চিকিৎসা শেষে দেশে ফেরেন। জাপানের রাষ্ট্রদূত হয়ে আসেন ২০০৬ সালের জুলাই মাসে। এর মধ্যে তিনি চার চারটি সরকার প্রধানের ক্ষমতার বলে অতিক্রান্ত করেন বিএনপির সময় তিনি জাপানে নিয়োগ পান। মাঝখানে দুইটি তত্ত্বাবধায়ক সরকার এবং সর্বশেষ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। এমন বিরল কৃতিত্ব কম লোকের ভাগ্যেই জোটে।

রাষ্ট্রদূতের বিদায় উপলক্ষে তাঁর বাসভবনে গত ২৪ মার্চ ২০১০ এক বিদায় ‘ককটেল পার্টির’ আয়োজন করেন। সন্ধ্যা ৬টায় শুরু হওয়ার কথা থাকলেও জাপানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী আসো তারোউ সাড়ে পাঁচটার মধ্যে চলে আসেন বাংলাদেশের মতো একটি গরিব দেশের রাষ্ট্রদূতের বিদায় পার্টিতে। আরো উপস্থিত ছিলেন জাপানের বর্তমান সংসদের আপার হাউসের মাননীয় স্পিকার সাৎসুকি এদা (Satsuki EDA), প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর মিসেস কোমুরা, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতগণ, বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর চিফ প্রটোকল অফিসার, সরকারের নীতিনির্ধারক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, একাধিক সংসদ সদস্য, বিভিন্ন মিশনের কূটনীতিক বৃন্দ, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন NGO প্রধান মানবাধিকার কর্মী, বাংলাদেশ দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, প্রবাসী ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, শিল্পী সমাজ এবং স্থানীয় প্রবাসী মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন। সন্ধ্যা ৬টা থেকে শুরু হয়ে মধ্যরাত পর্যন্ত পার্টি চলে। বিদেশী অতিথিগণ বাংলাদেশি ডিশ তৃপ্তি সহকারে উপভোগ করেন। তারা বাংলাদেশি খাবারের ভূয়সী প্রশংসা করেন। রাষ্ট্রদূত অতিথিদের তার দায়িত্ব পালনকালে বিভিন্ন সহযোগিতার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানান এবং বাংলাদেশে ভ্রমণ করায় অনুরোধ জানান।

একজন রাষ্ট্রদূতের সফলতা যেমন থাকে তেমনি কিছু ব্যর্থতাও থাকে। সফলতা এবং ব্যর্থতার হিসেব নিকেষে সফলতার পাল্লাই ভারি বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের। তিনি প্রবাসীদের খুব কাছাকাছি পৌঁছতে পেরেছিলেন। প্রতিটি জাতীয় দিবসে এবং ধর্মীয় আয়োজনে প্রবাসীদের একত্রিত করতে পেরেছেন। তারই স্বীয় উদ্যাগে দূতাবাসের প্রধান ফটকের নিকটেই বীর শ্রেষ্ঠদের মানুষই স্থাপন করতে পেরেছে যা আজও স্ব-অবস্থানেই বিরাজ করছে। একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার পক্ষেই এমন মহৎ উদ্যোগ নেয়া সম্ভব।

রাষ্ট্রদূত আশরাফউদদৌলার সবচেয়ে বড় সাফল্য হচ্ছে টোকিওতে বাংলাদেশ দূতাবাসের জন্য একটি স্থায়ী ঠিকানা গড়তে পারা। তারই অক্লান্ত পরিশ্রমে ২০০৮-এর ১৬ মে টোকিওর প্রসিদ্ধ এলাকা Chiyoda-ku, Kioicho 3-47তে ৭১৪ বর্গমিটারের একটি জায়গা কেনার কাজ সম্পন্ন করেন দুই দেশের চুক্তির মাধ্যমে। ক্রয়কৃত জমির দাম একশত এগারো কোটি ইয়েন হলেও প্রতিমাসের ভাড়ার টাকা গুনলে মাত্র কয়েক বছরে এই টাকার সমপরিমাণ। দূতাবাস নিজস্ব জায়গায় হওয়ার কথা শুনে প্রবাসীদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়। দূতাবাস ভবনে একটি স্থায়ী শহীদ মিনার স্থাপনের জোড়ালো দাবি উঠতে থাকে। সেখানে ইচ্ছেমতো প্রবাসীরা শহীদদের প্রতি সুষ্পার্ঘ আপনি করতে পারবেন।

এত সাফল্যের পরও রাষ্ট্রদূত আশরাফ্-উদ-দৌলার জাপান কর্মক্ষেত্রের শেষ দিকে হাতেগোনা ২-৩ তথাকথিত রাজনৈতিক নেতার অযাচিত হস্তক্ষেপের ক্রীড়নকে পরিণত হয়েছিলেন। খোদ আওয়ামী লীগের মধ্যে থেকেই এর প্রতিবাদে সোচ্চার হয়। তাদের কথা হলো আওয়ামী লীগ বলতে ঐ ২/৩ জনই নয়। এতে করে দলের বদনাম হয়। তাছাড়া তারা মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির নেতা। যখন তখন দূতাবাসে গিয়ে সব কিছুতেই নাক গলানোতে সরকারেরও ভাবমূর্তিও নষ্ট হয়। দলের তো বটেই। সর্বশেষ গত ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্ম দিবস ও জাতীয় শিশু দিবসে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে সামনে রাখা চেয়ারে নিজ আসন মনে করে একজন নেতা বসে পড়েন। রাষ্ট্রদূত ছিলেন অসহায়। প্রবাসীরা ছিল গুঞ্জনরত।

rahmanmoni@gmail.com

[ad#co-1]

Leave a Reply