২০ কোটি টাকার পিলার তৈরির টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু

দলীয় নেতাকর্মীরা কাজ পেতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন
শওকত ওসমান রচি
নদীতীর রক্ষার নামে ২০ কোটি টাকার টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ঢাকার চারপাশে নদীতীরে স্খাপনের জন্য পিলার তৈরিতে বাজেট ২০ কোটি টাকা। এর মধ্যে গাজীপুরের জন্য এক কোটি ৪৩ লাখ টাকা, মুন্সীগঞ্জের জন্য এক কোটি ১৮ লাখ টাকা, নারায়ণগঞ্জের জন্য নয় কোটি টাকা এবং ঢাকা এলাকার জন্য বাকি টাকা। অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে পুরো বরাদ্দ চাওয়া হলেও গতকাল পর্যন্ত শুধু মুন্সীগঞ্জের জন্য বরাদ্দ টাকা পাওয়া গেছে। টাকা পাওয়ার পরই টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু করেছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়। ওদিকে এ পিলার তৈরির কাজ পেতে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা হুমড়ি খেয়ে পড়ছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ে। সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রীর কাছেও তদ্বির চালানো হচ্ছে বলে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান।

নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এ পিলার তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বালু-সিমেন্টের তৈরি এসব পিলার দিয়ে নদীতীর রক্ষা করা হবে। নদীতীর রক্ষার নামে ২০ কোটি টাকার মচ্ছবে মেতে উঠেছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়­ এমনটাই অভিযোগ করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

বর্তমানে ঢাকার চার নদীর পাড়ে সাত হাজারেরও বেশি দখলদার রয়েছে। এ দখল প্রক্রিয়ার সাথে বর্তমানে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরাও জড়িত বলে সংশ্লিষ্টরা জানান। দখলকৃত নদীগুলো হচ্ছে­ বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, বালু ও শীতলক্ষ্যা। এসব দখলদারের উদ্যোগে চার হাজার ২১টি অবৈধ স্খাপনা নির্মাণ করা হয়েছে বলে সম্প্রতি নদীর নাব্যতা রক্ষাসংক্রান্ত টাস্কফোর্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। সিএস ও আরএস রেকর্ড অনুযায়ী ঢাকা জেলায় চার হাজার ২১ জন, নারায়ণগঞ্জে তিন হাজার ১০ জন এবং গাজীপুর জেলায় ১২৩ জন দখলদার রয়েছে। একতলা থেকে ৮তলা পর্যন্ত এমন অবৈধ পাকা বিল্ডিংয়ের সংখ্যা ২৬০টি, আধা-পাকা স্খাপনা ৪১২টি এবং টিনশেড ও অন্যান্য স্খাপনা রয়েছে ৮৩০টি। এ ছাড়া বিভিন্নভাবে আরো দুই হাজার ৫১৯টি স্খাপনা রয়েছে।

এর আগে ঢাকার চার নদীর পার্শ্ববর্তী বেদখল হওয়া জমি ফেব্রুয়ারির মধ্যে উদ্ধারের জন্য উচ্চ আদালতের নির্দেশনা ছিল। এ ছাড়া উদ্ধার করা জমিতে ১৫ মার্চের মধ্যে সীমানা পিলার স্খাপনের ঘোষণা দেয়া হয়েছিল নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। পিলার তৈরিতে সময় লাগার কারণে আপাতত অবৈধ উচ্ছেদ অভিযানও প্রায় বìধ রাখা হয়েছে। সীমানা পিলার তৈরি হওয়ার পর আবারো পুরোদমে নদীর পার্শ্ববর্তী উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু করবে বলে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। এক দিকে উচ্ছেদ এবং অন্য দিকে পুনর্দখল হয়ে যায় এসব নদীপাড়। বিগত জোট সরকারের আমলেও কয়েক দফায় উচ্ছেদ অভিযান চালায় বিআরটিএ। সে সময় বুড়িগঙ্গার দু’পাড়ে ‘ওয়াকওয়ে’ নির্মাণেরও উদ্যোগ নেয়া হয়। স্বার্থান্বেষী মহলের বাধার মুখে পরে তা আর বাস্তবায়ন হয়নি বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

টাস্কফোর্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নদীর পাড় শুধু ব্যক্তি উদ্যোগেই দখল হয়নি। রয়েছে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের স্খাপনা। সামরিক বাহিনীর ব্যবহৃত ভূমি ও স্খাপনা, শিল্প ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবহৃত জেটি, র‌্যাম্প, গ্যাংওয়ে ও ব্যবহৃত তীরভূমি, জাহাজ-লঞ্চ নির্মাণ ও মেরামত শিল্প বা ডকইয়ার্ড, মসজিদ-মাদ্রাসা ও মন্দির রয়েছে। উল্লেখযোগ্য শিল্প প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সিমেন্ট, ভোজ্যতেল রিফাইনারি, লবণের কারখানা, আটা ও ময়দা উৎপাদনকারী শিল্প প্রতিষ্ঠানের জেটি ও তীরভূমি রয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উচ্ছেদ অভিযান চালানোর সময় বিভিন্ন পেশিশক্তি ও অপশক্তির ব্যাপক প্রভাব, কোনো কোনো ক্ষেত্রে রাজনৈতিক চাপের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

দখলদারদের বিরুদ্ধে পরিবেশ আইনে যথেষ্ট শাস্তির বিধান নেই। এ পরিস্খিতিতে আইন সংশোধন না করেই পিলার নির্মাণ এবং উচ্ছেদ অভিযান কতটুকু সার্থক হবে তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। নির্ধারিত আইন না থাকায় এক দিকে উচ্ছেদ হলেও অন্য দিকে আবার নদীপাড় দখল হয়ে যায়। সুনির্দিষ্ট আইন না থাকায় আপাতত জলধারা সংরক্ষণ আইনে মামলা ও জরিমানা করা হবে বলে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বিগত জোট সরকারের আমলে খাম্বা তৈরি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। বিদ্যুতের খুঁটি হিসেবে এসব খাম্বা সরবরাহের কাজ পান ব্যবসায়ী গিয়াসউদ্দিন আল মামুন। এবার নদীর তীর রক্ষার নামে ২০ কোটি টাকার পিলার তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ পিলার তৈরি নিয়েও ইতোমধ্যে সমালোচনা শুরু হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছা থাকলে এ পিলার ছাড়াও নদীতীর রক্ষা সম্ভব।

[ad#co-1]

Leave a Reply