অবৈধভাবে বালু তোলায় হুমকিতে স্কুল, ঘরবাড়ি

তানভীর হাসান, মুন্সিগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়ি উপজেলার সিলিমপুর গ্রামে তালতলা-ডহরী খাল থেকে সরকারি অনুমতি ছাড়াই একটি প্রভাবশালী চক্র ড্রেজার দিয়ে বালু তুলছে। এর ফলে ওই এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। হুমকির মুখে পড়েছে সিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ এলাকার কয়েক শ ঘরবাড়ি। এলাকাবাসী বালু তোলায় বাধা দিলেও চক্রটি তা শুনছে না।

এলাকাবাসী জানায়, টঙ্গিবাড়ি উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি ও স্থানীয় আউটশাহী ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি রহমতউল্লাহ এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগের কর্মী স্বপন বেপারিসহ একটি চক্র ড্রেজার দিয়ে বালু তুলে টাকার বিনিময়ে আশপাশের এলাকার পুকুর, জমি ও নিচু এলাকা ভরাট করছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এক থেকে দেড় বছর ধরে তালতলা-ডহরী খালের বিভিন্ন স্থানে দুই মাস ধরে ড্রেজার বসিয়ে বালু তুলছে চক্রটি। খালটির এক প্রান্ত পদ্মা ও অন্য প্রান্ত ইছামতী নদীর সঙ্গে মিলেছে। সিলিমপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, দুটি ড্রেজার দিয়ে খাল থেকে বালু তুলে পাশের মির্জানগর গ্রামের একটি পুকুর ভরাট করা হচ্ছে। সিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ভজন চন্দ্র সরকার জানান, বালু তোলার বিষয়ে এলাকাবাসী বাধা দিলেও কোনো কাজ হয়নি।

সিলিমপুরের বাসিন্দা সাথী আক্তার (১৮) জানান, দুই মাস ধরে খাল থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু তোলা হচ্ছে। এর আগেও খাল থেকে বালু তুলে এলাকার পুকুর, নিচু জমি, ডোবা ভরাট করা হয়েছে। বালু তোলার কারণে খালের পাড়ে ভাঙন দেখা দিয়েছে। বর্ষা এলে ভাঙন আরও তীব্র হবে। ওই সময় সিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও গ্রামের বাড়িঘর ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি ও আউটশাহী ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি রহমতউল্লাহ দাবি করেন, এলাকাবাসীর স্বার্থেই বালু তুলে স্কুল, মসজিদ ও মাদ্রাসার নিচু জমি ও পুকুর ভরাট করা হচ্ছে। বালু কাটার ব্যাপারে তিনি সরকারি অনুমতি নেননি বলে স্বীকার করেন। এ ব্যাপারে যোগাযোগের চেষ্টা করেও স্থানীয় আওয়ামী লীগের কর্মী স্বপন বেপারিকে পাওয়া যায়নি।

টঙ্গিবাড়ি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল জলিল বলেন, ‘ওই খাল থেকে বালু তোলার বিষয়ে আমরা অবগত নই। বালু তোলার অনুমতি দেওয়ার প্রশ্নই আসে না। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি।’


Leave a Reply