ছিঃ ছিঃ

নূহ-উল-আলম লেনিন
জাতীয় সংসদে খিস্তিখেউড় নতুন নয়। অসংযত ভাষা প্রয়োগ, পরস্পরের প্রতি কুৎসিত আক্রমণ, ব্যক্তিগত চরিত্র হনন এমনকি শারীরিক আক্রমণ বা আক্রমণের চেষ্টা- এ সবের সঙ্গে আমরা মোটামুটি পরিচিত। এটা কেবল বাংলাদেশের সংসদেই হয়- এমনও নয়। দীর্ঘদিনের সংসদীয় গণতন্ত্রের ঐতিহ্য রয়েছে এমন অনেক দেশেই আমরা সংসদ সদস্যদের হাতাহাতি, মারামারি করতেও দেখেছি বা সংবাদপত্রের পাতায় পড়েছি। নিঃসন্দেহে এটা গণতন্ত্রের মর্মবাণীর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। উনিশ শতকে- গণতন্ত্রের প্রদোষকালে, পার্লামেন্টের ভেতরে তর্ক-বিতর্কের ধরন এবং অসংযত, অসভ্য আচরণ দেখতে পেয়েই কার্ল মার্কস পার্লামেন্টকে শুয়োরের খোঁয়াড়ের সঙ্গে তুলনা করেছেন। আমরা মার্কসের মতো অত তীর্যক বা বিদ্বেষপূর্ণ মন্তব্য করব না। আমরা একে গণতন্ত্রের সাংস্কৃতিক সমস্যা হিসেবেই দেখব।

এ কথা সত্য, সংসদে অসংসদীয় আচরণ বা কথাবার্তা হলেও স্পীকার তা কার্যবিবরণী থেকে বাদ (এক্সপাঞ্জ) দিতে পারেন বা দেন। কিন্তু কার্যবিবরণীতে তা বাণীবদ্ধ বা লিপিবদ্ধ থাক বা না থাক, সংসদ সদস্যদের অসংসদীয় আচরণ জনগণের মধ্যে রাজনীতিবিদদের সম্পর্কে, সংসদ সম্পর্কে এবং গণতন্ত্র সম্পর্কে যে বিরূপ ধারণা সৃষ্টি হওয়ার তা তো আর নিরসন হয় না।

আজ আমি রাজনীতিবিদ হিসেবে নয়, দেশের একজন সাধারণ নাগরিক এবং অভিভাবক হিসেবে ৪ এপ্রিল জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার একটি মন্তব্য সম্পর্কে রাজনীতিবিদ এবং দেশবাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই।

গত ৪ তারিখ রাতে আমি এবং আমার মতো কয়েকজন অভিভাবক ক্ষোভে, দুঃখে, লজ্জায় ঘুমুতে পারিনি। সংসদে বিরোধী দলের নেতা ও সংসদ নেতার মধ্যে প্রাণবন্ত নয়, বরং এক ধরনের প্রাণঘাতী বিতর্ক হয়েছে। সব বিষয়ে আমি বলব না। আমি কেবল বেগম জিয়ার একটা গুরুতর অভিযোগ ও নির্দয়, নিষ্ঠুর, কুৎসিৎ মন্তব্য শুনে স্তম্ভিত হয়েছি। আমার চোখ- কানকে বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করেনি। আমি ভাবতেও পারিনি, দেশের দু’-দু’বারের প্রধানমন্ত্রী, বর্তমানে বিরোধী দলের নেতা এবং অন্যতম প্রধান দলের চেয়ারপার্সনের মতো একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তি কী করে এ মন্তব্য করতে পারেন- ‘ইডেন কলেজের ছাত্রীদের সরকারের মন্ত্রী-এমপিদের মনোরঞ্জনের জন্য পাঠানো হচ্ছে।’ ছিঃ খালেদা ছিঃ। এ আপনি কী মন্তব্য করেছেন! ইডেন কলেজে অধ্যয়নরত হাজার হাজার মেয়ের অভিভাবকরা কী ভাববেন মাননীয় বিরোধী দলের নেতা, আপনি কি ভেবে দেখেছেন?

সংসদে আপনারা পরস্পরের চরিত্র হনন করে যত ইচ্ছে খিস্তিখেউড় করুন, তাতে সাধারণ দেশবাসীর কিছু এসে যায় না। কিন্তু আপনি একজন ‘মা’ হয়ে কেমন করে এ ধরনের ঢালাও মন্তব্য করে ইডেন কলেজের তরুণী ছাত্রীদের চরিত্র হনন করলেন? বেগম জিয়া, আপনার না হয় কোন মেয়ে নেই। আপনার দুই পুত্র যথেষ্ট কীর্তিমান। কিন্তু আমার দু’টি মেয়ে আছে। আমার মতো হাজার হাজার অভিভাবক আছেন, যাঁরা আওয়ামী লীগ, বিএনপি বা অন্য কোন রাজনৈতিক দল করেন না; যাঁদের মেয়ে, বোন বা আত্মীয় ইডেনে পড়ে, পড়ে অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। মাননীয় বিরোধী দলের নেতা, আপনি তাঁদের কথা একটি বারও ভাবলেন না? আপনি প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন করেছেন, ‘ইডেনের ঘটনা তিনি জানেন না?’ প্রধানমন্ত্রী নয়, উত্তর দিয়েছেন আপনি, মন্তব্য করেছেন আপনি। সরকারী দলের মন্ত্রী-এমপিদের চরিত্র হনন করতে গিয়ে মাতৃতুল্য আপনি; আপনার-আমার-আমাদের মেয়েদের ‘মনোরঞ্জনের বস্তু’তে প্রকারান্তরে তাদেরকে দেহপসারিণী হিসেবে চিহ্নিত করে নিজেকে আপনি কোথায় নামালেন? এ ধরনের মন্তব্য করতে আপনার একটুও বাধল না? একটুও কুণ্ঠা ও লজ্জাবোধ হলো না? ওই কলেজের মেয়েরা আপনার সন্তানতুল্য না?

বেগম জিয়া, আপনি কি ভেবেছেন যে, দেশবাসীর কাছে চিহ্নিত দুই পুত্রের মতো সব মায়ের সন্তানই ও রকম? না, আপনার দুই পুত্র সম্পর্কে আমি এ ধরনের বিশেষণ ব্যবহার করতাম না, যদি না তারা ওই ধরনের অভিযোগে আদালতে বিচারের আসামি না হতেন।

যে যা-ই মনে করুন, আমি সংসদে যে কোন নেত্রী-নেতার বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ, অসংযত, অসংসদীয় এবং ব্যক্তিগত চরিত্র হননের মতো আক্রমণের বিরোধী। অন্যদের মতো আমারও ধারণা ছিল, অনেকে অসত্য, অপপ্রচার এবং বিদ্বেষপূর্ণ রাজনৈতিক আক্রমণে অভ্যস্ত হলেও বেগম জিয়া শব্দ চয়নে অনেক সতর্ক, সংযত এবং স্বল্পভাষী। কিন্তু সম্প্রতি তিনি দেশবাসীর সে ধারণা ভেঙ্গে দিয়েছেন। ৪ এপ্রিল জাতীয় সংসদে সন্তানতুল্য ছাত্রীদের সম্পর্কে তিনি যে মন্তব্য করেছেন অথবা সম্প্রতি আরও কয়েকটি সভায় যে ধরনের অশালীন, অসংযত ও কুৎসিৎ মন্তব্য করেছেন তাতেই প্রশ্ন উঠেছে, একি কোন সুস্থ মন্তব্য কোন সুস্থ মানুষ কি নিজেদের সন্তানদের (ইডেনের ছাত্রীদের) চরিত্র সম্পর্কে এ রকম অশ্লীল মন্তব্য করতে পারেন?

মাননীয় বিরোধীদলীয় নেতা, আপনি আপনার এই মন্তব্যটি প্রত্যাহার করুন। দেশবাসী বিশেষত ইডেনের ছাত্রী এবং অভিভাবকদের কাছে ৰমা চেয়ে দুঃখ প্রকাশ করুন। এটা করলে আপনি ছোট হবেন না। সবাই ভাবে এটা ছিল আপনার স্লিপ অব টাং, অসতর্ক মন্তব্য। অন্যথায় আর কিছু না হোক, নিরপরাধ হাজার হাজার অভিভাবক, ছাত্রী-শিক্ষকের ঘৃণা ও অভিশাপ আপনাকে বয়ে বেড়াতে হবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply