মুন্সীগঞ্জে কোল্ড স্টোরেজ নিয়ে যা হচ্ছে

মুন্সীগঞ্জের কদমরসুল কোল্ড স্টোরেজের এক ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরম্নদ্ধে দুর্নীতি ও অদক্ষ ব্যবস্থাপনার অভিযোগ এনে কোল্ড স্টোরেজটির ক্ষতিগ্রসত্ম ৭ পরিচালক তাদের শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন। ৫ হাজার শেয়ার হোল্ডারের মধ্যে তারা ৭ জন ৪ হাজার ৩৭৫টি শেয়ারের মালিক ছিলেন। ওদিকে এই শেয়ার হোল্ডার কিনে কোল্ড স্টোরেজটির প্রায় ৯৪ শতাংশের মালিক বিএনপি নেতা মহিউদ্দিন আহাম্মেদ এখন বেকায়দায়। দু’ভাই মিলে মাত্র ৬২৫ শেয়ার হোল্ডারের মালিক খাজা বাহাউদ্দিন সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মহিউদ্দিনকে সরিয়ে কোল্ড স্টোরেজটি দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে।

মুক্তারপুর কদমরসুল কোল্ড স্টোরেজের মোট শেয়ার হোল্ডার ৯ জন। কোল্ড স্টোরেজের পরিচালক খাজা বাহাউদ্দিন অন্য ৮ পরিচালকের কাছ থেকে ১৯৯৯ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জ নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে পাঁচ বছর অন্তর নবায়নের মাধ্যমে ১৫ বছরের জন্য ভাড়া নেয়। যা ১লা জানুয়ারি ২০০০ সাল থেকে কার্যকর হয়ে ২০১৪ সাল পর্যন্ত চুক্তিবদ্ধ হয়। ১৫টি শর্ত সাপেক্ষে ভাড়ার চুক্তিপত্র হয়। কিন্তু খাজা বাহাউদ্দিনের অদক্ষ ব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতির কারণে ২০০৬-২০০৭-এই দু’বছর কোল্ড স্টোরেজটি বন্ধ থাকে। ভাড়া চুক্তির আরো কয়েকটি শর্ত পূরণে তিনি ব্যর্থ হন। এরপর নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে খাজা বাহাউদ্দিন ও মোসলেম উদ্দিন আহমদ গংয়ের মধ্যে ২০০৮ সালের ৫ই মার্চ কদমরসুল কোল্ড স্টোরেজের মেয়াদি ভাড়ার চুক্তি বাতিল হয়। এরপর কোল্ড স্টোরেজটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোসলেম উদ্দিন আহমদ গং কোম্পানির পরিচালক খাজা বাহাউদ্দিনের নানা ষড়যন্ত্র ও ব্যবসায়ী ক্ষতির শিকার হয়ে তারা তাদের শেয়ার হোল্ডার বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়।

পরবর্তী সময়ে গত ১৮ই ফেব্রুয়ারি কদমরসুল কোল্ড স্টোরেজ (বিডি) লিঃ-এর নারায়ণগঞ্জের ৩নং স্টিমার ঘাটের নিবন্ধিত অফিসে পরিচালকদের এক সভায় ৭ পরিচালক ৫ হাজার শেয়ারের মধ্যে ৪ হাজার ৩৭৫টি শেয়ার বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়। ওই ৭ পরিচালক তাদের শেয়ারগুলো বিএনপি নেতা মহিউদ্দিন আহাম্মেদের কাছে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়। পরে ওই শেয়ার বিক্রয় সংক্রান্ত যাবতীয় কাগজপত্র সই করে জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ এন্ড ফার্মস, ঢাকা-এর মাধ্যমে মহিউদ্দিন আহাম্মেদের নামে শেয়ার হস্তান্তর করেন। গত ১৮ই মার্চ মোসলেম উদ্দিন আহমদ কোল্ড স্টোরেজের অনুকূলে গৃহীত সিসি প্লেজ ও টিআর ঋনের সুদ মওকুফের জন্য নারায়ণগঞ্জ অগ্রণী ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপকের কাছে আবেদন করেন এবং ১৫ লাখ টাকা তারা ব্যাংকে জমা দেয়। আবেদনে তারা বলেন, ২০০৪ সালে ঋণ নবায়ন করার পর প্রতিষ্ঠানের এমডি খাজা বাহাউদ্দিন তাদের নাজানিয়ে ব্যাংকের প্লেজকৃত মালামাল সরিয়ে ফেলে। তখন ব্যাংক তাদের সবার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করে। এরই মধ্যে বিক্রয়কারীরা বিএনপি নেতা মহিউদ্দিন আহাম্মেদ ও এলাইড কোল্ড স্টোরেজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলামকে কোল্ড স্টোরেজের মালিকানা বুঝিয়ে দেয়।

এমডি হিসেবে মহিউদ্দিন আহাম্মেদ কোল্ড স্টোরেজে গত ৫ই মার্চ মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে দাওয়াতপত্র দিলে খাজা বাহাউদ্দিন এর বিরোধিতা করেন। এরই মধ্যে খাজা বাহাউদ্দিনের শ্যালক মেহেদী হাসান তুহিন মুন্সীগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধি আইনের ১৪৪ ধারায় গত ৪ঠা মার্চ মামলা করেন। মামলায় মহিউদ্দিন আহাম্মেদ ও সিরাজুল ইসলামকে বিবাদী করা হয়। এরপর খাজা বাহাউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে দু’পক্ষকে মুন্সীগঞ্জ থানায় হাজির হওয়ার জন্য পুলিশ নোটিস দেয়। ওদিকে খাজা বাহাউদ্দিন প্রাণনাশের অভিযোগ এনে মহিউদ্দিন আহাম্মেদ ও সিরাজুল ইসলামের নামে মুন্সীগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। এ ব্যাপারে মহিউদ্দিন আহাম্মেদ বলেন, থানায় তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। আমি কোল্ড স্টোরেজের ৯৪ শতাংশের বৈধ মালিক। তারা দু’ভাই ৬ শতাংশের মালিক হয়ে আমাকে কোল্ড স্টোরেজ থেকে বিতাড়িত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। নানা অপব্যাখ্যা ও অপপ্রচারসহ হুমকি-ধামকি দিয়ে যাচ্ছে। আমি তাদের সঙ্গে মিলেমিশে কাজ করতে চাই যেহেতু তারাও মালিক।

[ad#co-1]

Leave a Reply