আলু কার আর ব্যাংক ঋণ সুবিধা পান কে

এম মামুন হোসেন মুন্সীগঞ্জ থেকে ফিরে
মাঠে পড়ে আছে আলু; সংরক্ষণ করা নিয়ে চিন্তিত কৃষক
কৃষকের আলু দেখিয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নেন কোল্ড স্টোরেজ মালিকরা। পরে ঋণ পরিশোধ করতে না পারলে কোল্ড স্টোরেজে রাখা আলু বিক্রির জন্য কৃষককে বের করতে দেয় না ব্যাংক। কোল্ড স্টোরেজে আলু নষ্ট হয়ে গেলেও এর কোনো দায়ভার নিতে চান না মালিকরা। একদিকে আলু আবাদের জন্য কৃষকরা ব্যাংক থেকে কোনো সুবিধা পান না, অপরদিকে কোল্ড স্টোরেজে আলু রেখে জিম্মি হয়ে পড়েন চাষীরা।

অভিযোগ আছে, কোল্ড স্টোরেজের মালিকরা আলুর ফলন ওঠার আগেই জায়গা বিক্রি করে ফেলেন। তখন কম দামে বস্তাপ্রতি আলু রাখার জায়গা কিনে নেন মধ্যস্বত্বভোগী ব্যবসায়ীরা। কৃষক ফলন ওঠার পর আলু রাখতে গেলে হয় দ্বিগুণের বেশি ভাড়া দিতে হয়, নতুবা আলু বাড়িতে রেখে পচাতে হয়। সরেজমিন কয়েকটি হিমাগারে গিয়ে মালিকদের সঙ্গে কথা বলে এই অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। কাটাখালী মুন্সীগঞ্জের কোহিনূর হিমাগারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক উত্তম কুমার সাহা জানান, চাষীর আলু কোল্ড স্টোরেজে আসবে কি আসবে না, তার ওপর নির্ভর করে কোল্ড স্টোরেজ চালানো সম্ভব নয়। চাষীরা আলুর দাম পেলে কোল্ড স্টোরেজে রাখেন না।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জে ৭২টি কোল্ড স্টোরেজের মধ্যে ৬৪টি চালু আছে। এর ধারণক্ষমতা মাত্র ৪ লাখ ৩৩ হাজার ৪০২ টন। এ বছর ৩৬ হাজার ৬৭০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করা হয়েছে। হেক্টরপ্রতি উৎপাদন ৩২ টন। মোট উৎপাদন ১১ লাখ ৭৩ হাজার ৪৪০ টন। উৎপাদিত আলুর মাত্র ৩০ শতাংশ কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষণ করা সম্ভব হয়। বিদ্যুৎ-সংকটে হিমাগারে রাখা আলুতেও পচন ধরার আতঙ্কে থাকেন কৃষকরা। কোনো কারণে আলু নষ্ট হয়ে গেলে এর কোনো দায়ভার নিতে চান না হিমাগারের মালিকরা। চাষীরা আলু রাখার সময় ‘চুক্তিনামায় সুকৌশলে আলু বিনষ্ট হলে কোল্ড স্টোরেজের কোনো দায় নেই’ কথাটি উল্লেখ করে দেয়া হয়। এ কারণে হিমাগারে আলু নষ্ট হলে কৃষকরা কোনো আইনি ব্যবস্থাও নিতে পারেন না। হিমাগারে জেনারেটরের ব্যবস্থা বাধ্যতামূলক থাকলেও জেলার কোনো কোল্ড স্টোরেজে জেনারেটর নেই। আলু সংরক্ষণের জন্য জেনারেটর ব্যবহার করা হয় না। আলুর এক পিঠ ঠা-া রাখা হলেও কৃষকরা বিপদে থাকেন। কারণ, অন্য পিঠ ঠা-া না হলে আলু পচে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়।

স্থানীয় পল্লী বিদ্যুৎ অফিস সূত্রে জানা গেছে, ৭৪ মেগাওয়াট চাহিদার বিপরীতে এলাকায় মাত্র ২৫-৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে। জেলার পল্লী বিদ্যুতের উপ-মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ ইমদাদুল ইসলাম জানান, চাহিদামতো বিদ্যুৎ না পাওয়ায় ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ১২ ঘণ্টাই লোডশেডিং না করে উপায় থাকছে না।

স্থানীয় কয়েকজন আলুচাষী জানান, টাকা দিয়ে আলু কোল্ড স্টোরেজে না রেখে বাসায় রেখে পচানো ভালো। তারা আরও জানান, গত বছর হিমাগারের বস্তাপ্রতি ভাড়া ছিল ১৫০ টাকা। এবার মালিকরা বস্তাপ্রতি ২৬০ টাকা করে ভাড়া ধার্য করেছেন। স্থানীয় এমপি এম ইদ্রস আলী এবং জেলা প্রশাসক ১৮০ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করলেও মানছেন না কোল্ড স্টোরেজ মালিককরা। কৃষকের কাছ থেকে ২৬০ টাকা করে ভাড়া আদায় করছেন। বিদ্যুৎ না থাকলে তারা জেনারেটর চালাবেন না।

উত্তম কুমার সাহা জানান, প্রতি বছর আলুর ফলন ওঠার প্রাক্কালে পল্লী বিদ্যুৎ সভা করে দায় এড়ায়। পল্লী বিদ্যুৎ স্পষ্ট জানিয়ে দেয়, তারা বিদ্যুৎ দিতে পারবে না। আপনারা জেনারেটরের ব্যবস্থা করুন। তিনি আরো জানান, জেনারেটর আর ডিজেলের দাম দিয়ে কোল্ড স্টোরেজ চালানো অসম্ভব।

আলু সংরক্ষণে কৃষকের সমস্যা এবং কোল্ড স্টোরেজ মালিকদের কাছে কৃষকরা জিম্মি প্রসঙ্গে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক একেএম আমিনুর রহমান জানান, হিমাগারে আলু সংরক্ষণে বস্তাপ্রতি ৮০ টাকা খরচ হয়। কিন্তু হিমাগারের মালিকরা আগেই তাদের স্পেস ১০০ টাকায় আলু ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে ফেলেন। কোল্ড স্টোরেজ মালিকরা যেন নিজেদের ইচ্ছামতো আলু রাখার ভাড়া নিতে না পারেন, স্থানীয় প্রশাসন, কৃষি অধিদপ্তর এবং স্থানীয় এমপি এ নিয়ে বৈঠক করেছেন। তিনি আরো জানান, এ ব্যাপারে কোল্ড স্টোরেজ মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের নেতাদের উপস্থিত থাকতে বলা হলেও সমিতির কেউ আসেননি। এ ব্যাপারে কৃষি অধিদপ্তরের করার কিছুই নেই।

[ad#co-1]

Leave a Reply