নিভৃত স্বপ্নচারী

পটচিত্র শম্ভু আচার্য্য
শম্ভু আচার্য্য অনেকভাবেই জীবনকে সাজিয়ে নিতে পারতেন_নাগরিক সুষমায় থেকে নগরের একজন হয়ে। কিন্তু তাঁর চোখে এখনো জ্বলজ্বলে হয়ে আছে কালিন্দীপাড়ার জল ও হাওয়া, এ মাটিকে ভুলে থাকা শম্ভুর এ জীবনে বোধহয় আর হবে না!
শম্ভু আচার্য পট্ট অর্থাৎ কাপড়ের ক্যানভাস তৈরি করে সেখানে নিভৃত স্বপ্নের ছবি এঁকে চলেন। কখনো প্রগাঢ় নীলের জমিনে ফুটে ওঠে ময়ূর, কখনো চিরায়ত বাংলার কোনো লোককাহিনী, মনসার পট, লক্ষ্মীর পট, গাজীর পট কিংবা কৃষ্টির পট।

সদালাপী, বিনয়ী, নাতিদীর্ঘ শরীরের শ্যামলা মানুষটি ফোনে কথা শুনেই সাগ্রহে বললেন, ‘কাল ঢাকায় আসছি, কথা হবে দাদা।’ এপ্রিলের কড়া রোদ ঠেলে বাসে চেপে শম্ভু শেষ পর্যন্ত এসেছিলেন। ঢাকার গ্যালারি কায়ায় একটা প্রদর্শনী হয়েছিল, তখন শেষ দেখা। এর মধ্যে দুবার চীনে গেছেন। একবার ২০০৬ সালে, ইউনান আর্ট মিউজিয়ামের আমন্ত্রণে, আরেকবার ২০০৭ সালে ফারমারস আর্ট নিয়ে করা একটি অনুষ্ঠানে।

সে সময় তো আপনার দশম পুরুষ আসেনি? অসাধারণ এক হাসিতে শম্ভু আচার্যের মুখটা যেন প্রস্ফুটিত হলো, দাদা, নাম রেখেছি অভিষেক। অভিষেক আচার্য। একদিনের ঘটনা বলি_সে রাতে বোধ হয় একাদশীর চাঁদ ছিল আকাশে, কুমড়ার ফালির মতো চাঁদ। অভিষেকের বয়স তখন ১৪ মাসের মতো, আধো আধো কণ্ঠে সেই চাঁদের দিকে আঙুল দিয়ে শূন্যে ছবি এঁকে সে বলে_ছইয়া দিলাম, মাঝি দিলাম…। শম্ভু বলে চলেন_এ বয়সেই চাঁদের আকারে নৌকা দেখেছে অভিষেক! পুত্রগর্বে মুখটা জ্বলজ্বল করে ওঠে শম্ভু আচার্যের। পটচিত্রকর হিসেবে এখন বাংলাদেশের একমাত্র; আচার্য পরিবারের নবম পুরুষ আমাদের শম্ভু আচার্য।

আমাদের রীতিই বোধ হয় এমন। প্রায় সবকিছুতেই আমরা দেরি করে ফেলি। তা না হলে যে শম্ভু আচার্যের পট ব্রিটেনে প্রশংসিত হয়, যাঁর আঁকা পটচিত্র ব্রিটেনের সংগ্রহশালায় স্থান পায়, শম্ভুর কালিন্দীপাড়ায় হানা দিয়ে যাঁর আঁকা কেশবিন্যাস কিংবা ময়ূর কিনে গাড়ি হাঁকিয়ে রাজধানীতে ফেরত আসেন শহুরে সংগ্রাহকরা, বিশ্বাস করতে কষ্ট হয় এখন পর্যন্ত একবারও এ দেশে কোনো জাতীয় অথবা আন্তর্জাতিক প্রদর্শনীতে অংশ নিতে পারেননি সেই একমাত্র শিল্পী!

অবশ্য এসব বিষয়কে আর আমলেই আনেন না শম্ভু। পট্ট অর্থাৎ কাপড়ের ক্যানভাস তৈরি করে সেখানে নিভৃত স্বপ্নের ছবি এঁকে চলেন। কখনো প্রগাঢ় নীলের জমিনে ফুটে ওঠে ময়ূর, কখনো সেখানে চিরায়ত বাংলার কোনো লোককাহিনী, মনসার পট, লক্ষ্মীর পট, গাজীর পট কিংবা কৃষ্টির পট।

শম্ভু যে পরিবারে বেড়ে উঠছিলেন, সেই আচার্য পরিবারের পটচিত্রের সাধনা চলছিল দীর্ঘ সময় ধরেই। বংশপরম্পরায় এ পরিবার ৯ পুরুষ ধরেই মগ্ন পটচিত্র নিয়ে। দীর্ঘদিন ধরেই এই পরিবারের সদস্যরা একটি ঐতিহ্যমণ্ডিত অথচ প্রায় বিলুপ্ত শিল্পের চর্চা অব্যাহত রেখেছেন আমাদের অগোচরেই। অন্তত তোফায়েল আহমদ নামের এক ভদ্রলোকের কলকাতার আশুতোষ মিউজিয়ামে একটি গাজীর পট দেখতে পাওয়ার আগ পর্যন্ত তো বটেই। সেখানেই খোঁজখবর নিয়ে শেষ পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জে এসে তিনি দেখা পান সুধীর আচার্য এবং শম্ভু আচার্যের।

আচার্য পরিবারের পাঁচ পুরুষের নাম এখনো পর্যন্ত উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। রামগোপাল আচার্য, তৎপুত্র রামসুন্দর আচার্য, তৎপুত্র প্রাণকৃষ্ণ আচার্য, তৎপুত্র সুধীর আচার্য, তৎপুত্র শম্ভু আচার্য। তাঁরা সবাই ছিলেন পটচিত্রশিল্পী। তন্তুবায় অধ্যুষিত নরসিংদী এলাকায় এই পরিবার প্রায় আট পুরুষ ধরে পটচিত্র অঙ্কনের পাশাপাশি তাঁতের শাড়ির পাড়ে নকশা আঁকার কাজে নিয়োজিত ছিলেন। শম্ভু আচার্যের পিতা সুধীর আচার্য পরে মুন্সীগঞ্জের কালিন্দীপাড়ায় বসতি স্থাপন করেন।

‘৯৯ সালে যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ উৎসবের ব্রোসিওরে লেখা হয়েছিল_শম্ভু আচার্য, সাধারণ মতে বাংলাদেশের খ্যাতনামা সর্বশেষ পটচিত্রকর। ১৯৯৯ সালের ১১ জুলাই শম্ভু আচার্যের পটচিত্রের প্রদর্শনী হয়েছিল লন্ডনের স্পিটজ্ গ্যালারিতে। শম্ভু আচার্যের পটচিত্রের সঙ্গে গাজীর গান দিয়ে খোদ বাংলাদেশ উৎসবের উদ্বোধন করেছিলেন বাংলাদেশের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার। সুধীর আচার্য গত হয়েছেন তারও প্রায় এক যুগ আগে। সন্তানের এই সাফল্যের বিষয়টি দেখে যেতে পারেননি।

ছোটবেলায় যখন আদর্শলিপিও পড়েননি, তখন থেকেই আঁকতেন শম্ভু। সে সময় সুধীররা থাকতেন কালিন্দীপাড়া গ্রামে। এর অধিকাংশ বাড়িই ছিল টিনের। সেসব টিনের দেয়াল ক্রমশ ভরে উঠত শম্ভুর আঁকা শৈশব চিন্তার নানা ধরনের ছবিতে। পড়শিরা অনুযোগ করতেন মা কমলা বালাকে, মায়ের বকাঝকার চোটে শম্ভু সেগুলো মুছতে যেতেন। পরে দেখা যেত, পড়শিরাই শম্ভুকে ডাকছেন_শম্ভু এখানে এটা এঁকে দাও তো, ওখানে ওটা।

একসময় শম্ভু স্কুলে গেলেন, স্কুলেও যথারীতি চিত্রাঙ্কন পর্ব চলল, আর ফলস্বরূপ শিক্ষকের হাতে দু-চার ঘা। মারের পরই অবশ্য শিক্ষকের স্তুতি, ‘না রে শম্ভু, তোর আঁকার হাত আছে।’

এরপর নানাজনের উৎসাহে শম্ভু একসময় কমার্শিয়াল পেইন্টিংয়ের দিকে ঝুঁকে পড়লেন। ‘৭১ সালের শুরুর দিকে মুক্তিযুদ্ধের সময় শম্ভু একজন শিল্পী হিসেবেই যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। সে সময় তার লেখা, আঁকা দেয়ালচিত্র স্বৈরাচারী পাকিস্তানি বাহিনীর প্রতি ঘৃণা আর প্রতিবাদে মুখর ছিল।

‘৭১ সালের শেষদিকে নারায়ণগঞ্জে একটি কমার্শিয়াল আর্টের প্রতিষ্ঠানে চাকরিই শুরু করেন তিনি। একটানা তিন বছর কাটিয়ে ‘৭৪-এ আবারো নিজ গৃহে প্রত্যাবর্তন ঘটল শম্ভুর। বাবা সুধীর আচার্য তখনো প্রতিমা গড়ছেন, পটচিত্র তৈরি করছেন, গাজীর পট, কখনো রাধা-কৃষ্ণের পট, কখনো শ্রীকৃষ্ণের পট, মনসার পট। ‘৭৪ সালের দিকে শম্ভু নিজেরই একটি প্রতিষ্ঠান শুরু করেন শিল্পালয় নামে। পটচিত্রের পাশাপাশি কখনো কোনো সংকলনের প্রচ্ছদ করেছেন, দেয়াল পত্রিকা, বিভিন্ন গ্রন্থ, এমনকি স্থানীয় নাটকের দলের মেকআপ থেকে শুরু করে সে সময় নাটকের মঞ্চ পরিকল্পনাও করেছিলেন তিনি।

এরই মধ্যে ভাস্করগোষ্ঠী নামে একটি সাংস্কৃতিক দলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে সংস্কৃতিচর্চাও বেশ জোরেশোরে চলছিল। ১৯৭৪ সালে ভাস্কর সাহিত্য পত্রিকার ২১শে সংখ্যার প্রচ্ছদ এঁকে জেলাভিত্তিক শ্রেষ্ঠ পুরস্কারটিও পেয়েছিলেন শম্ভু। কিন্তু একসময় এসব বিষয় ছাপিয়ে শিল্পী শম্ভুকে আবার হাতছানি দিল পারিবারিক ঐতিহ্য। শম্ভু আবারো পটচিত্রের কাজ শুরু করলেন।

পটচিত্রে নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন শম্ভু। বাবা সুধীর যেমন লোমের তুলিকা পছন্দ করতেন, শম্ভু ঠিক সে রকম বাছবিচার করেন না। এমনিতে পটচিত্র আঁকার জন্য পছন্দ করেন মোটা মার্কিন কাপড়।

১৯৮২ সালে তোফায়েল আবার কালিন্দীপাড়ায় হাজির। লন্ডনের একটি অনুষ্ঠানের জন্য শম্ভুর পটচিত্রের প্রয়োজন। যথারীতি পটচিত্র নিয়ে তোফায়েল প্রস্থান করলেন। ১৯৮৫ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনে মোস্তাফা জামান আব্বাসীর উপস্থাপনায় ‘ভরা নদীর বাঁকে’ অনুষ্ঠানে সুধীর ও শম্ভু আচার্যের ছবি দেখানো হয়। এর আগেই শম্ভুর পরিচয় ঘটেছে ড. কামাল হোসেনের স্ত্রী হামিদা হোসেনের সঙ্গে। তিনিই শম্ভুকে কারুশিল্প পরিষদের সদস্য হওয়ার কথা বলেছিলেন। কারুশিল্প পরিষদের সদস্য হওয়ার পর হামিদা হোসেন, মালেকা খান, রুবী গজনবী, আড়ংয়ের শিলু আবেদ, কুমুদিনীর জয়াবতী_তাঁরা নিয়মিত শম্ভুর পটচিত্র নেওয়া শুরু করলেন। ইতিমধ্যে ১৯৯৫ সালে হঠাৎ শম্ভু ইন্দোনেশিয়া যাওয়ার সুযোগ পেলেন কারুশিল্প পরিষদ থেকে, সেখানে শম্ভু নিয়ে গেলেন তাঁর আঁকা রামায়ণের পট, আর তাঁর প্রিয় বিষয়_এ দেশের কৃষ্টির পট; তাতে থাকল বাংলাদেশের কামার, কুমার ও জেলের জীবনপটের বাংলাদেশের জীবন। এরই মধ্যে শম্ভু আচার্যের দেখা হয়েছে তারিক সুজাতের সঙ্গেও। শম্ভু অকপটে কবি ও শিল্পানুরাগী তারিক সুজাতের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

ইন্দোনেশিয়া থেকে দেশে ফিরে আসার বেশ কিছু দিন পর সোনারগাঁওয়ে মাসব্যাপী যে মেলা হয় তাতে শম্ভুর পটচিত্রের প্রদর্শনী হয়েছিল। মোস্তফা নূরউল ইসলাম, সেলিম আল দীন প্রমুখ বিদগ্ধজন ছিলেন সেই আসরে।

বহু দিন ধরেই তাঁর একটি স্বপ্ন ছিল_এ দেশের প্রবহমান ইতিহাসের বিষয়টি নিয়ে বড় মাপের কোনো কাজ করার। দীর্ঘ ১৮ মাসের একটানা আঁকার কাজও শেষ করেছিলেন শম্ভু। ১৭৫৭ থেকে ১৯৭১ সালের বিভিন্ন উল্লেখযোগ্য এবং ঐতিহাসিক পরিবর্তন, সংগ্রাম ও তাঁর মুহূর্ত নিয়েই এই কাজ। স্মিত হেসে শম্ভু বলেন, অনেক দিন অপেক্ষা করলাম, এবার সম্ভবত প্রতীক্ষার অবসান ঘটতে যাচ্ছে।

মহাপুরুষের অন্তর্ধান ছহী শহীদ মুজিবনামা নামের এই চিত্রমালা সম্ভবত শম্ভুর সর্বশেষ কাজ হিসেবে প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে। বেঙ্গল গ্যালারিতে এই প্রদর্শনীটি হলে শম্ভুর দীর্ঘদিনের লালিত এক স্বপ্নের বাস্তবায়ন ঘটবে।

হুমায়ুন রেজা

Leave a Reply