বেপরোয়া ডাকাত শহীদের সহযোগীরা : পুরনো ঢাকায় নিরাপদ নয় কেউই

মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন
নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছে পুরনো ঢাকা। সাধারণ মানুষ এবং ব্যবসায়ী ছাড়াও সন্ত্রাসী চক্রের কাছে অসহায় আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরাও। বেপরোয়া ও অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে শীর্ষ সন্ত্রাসী ডাকাত শহীদের সহযোগীরা। সন্ত্রাসীদের দাবি পূরণ করতে ব্যর্থ হলেই জীবন দিতে হচ্ছে ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষকে। আইন-শৃংখলা বাহিনীর নানা উদ্যোগও ব্যর্থ করে দিচ্ছে সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজরা। শীর্ষ সন্ত্রাসী ও গডফাদারদের হুকুম পেলেই পেশাদার কিলাররা একের পর এক খুন করছে। এলাকাবাসী ও পুলিশের দেয়া তথ্য মতে, পুরনো ঢাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী ডাকাত শহীদ, কালা খোকন ও আইজি গেটের কচি গ্র“প নিয়ন্ত্রণ করছে পুরনো ঢাকা। এসব সন্ত্রাসীকে কোনভাবেই বাগে নিতে পারছে না আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা। চাঁদাবাজি, ছিনতাই, জায়গা দখল ও এলাকার আধিপত্য ঠিক রাখতে নানা সন্ত্রাসী কার্যকলাপে মরিয়া তারা। গত কয়েক মাসে পুরনো ঢাকা এলাকায় অপরাধ নিয়ন্ত্রণে ৪টি থানা বাড়ালেও আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির কোন উন্নতি হয়নি। ওই এলাকার বাসিন্দা ও ব্যাবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা এতটাই আতংকগ্রস্ত যে ব্যবসার প্রয়োজনে চাঁদা হিসেবে নগদ টাকা গুনতে চান তবু সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে চান না। বংশাল থানার এসআই গৌতম হত্যাকাণ্ডের পর পুরনো ঢাকার মানুষ এখন বাকরুদ্ধ। কার কাছে তারা নালিশ করে জানমাল খোয়াবেন। মার্চে লাশ কাঁধে নিয়ে ব্যবসায়ীরা মিছিল করেছেন পুরনো ঢাকায়। দোকানপাট বন্ধ রেখে ধর্মঘট পালন করেছেন। কোন কিছুতেই মিলছে না তাদের জানমালের নিরাপত্তা।

এলাকাবাসী বলছেন, চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধের কোন হিসাব নেই পুরনো ঢাকায়। ডাকাত শহীদসহ শীর্ষ সন্ত্রাসীদের কথার ব্যতিক্রম হলেই পড়ছে লাশ। সাধারণ মানুষ আর ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদা চেয়ে এবং দায়িত্বশীল পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছে সন্ত্রাসী গ্রেফতার না করার হুমকি দেয় সন্ত্রাসীরা। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি পুলিশ সদস্যরাও সন্ত্রাসীদের হুমকির মুখে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। এসআই গৌতমকেও শীর্ষ সন্ত্রাসী ডাকাত শহীদের পরিচয় দিয়ে তার সহযোগীদের গ্রেফতার না করার হুমকি দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি কায়সার, বিদ্যুৎ, নান্টুসহ ডাকাত শহীদের বেশকিছু সহযোগীকে গ্রেফতার ও গ্রেফতারে সহযোগিতা করেছিলেন। এ দায়িত্ব পালন করতে গিয়েই তাকে জীবন দিতে হয়েছে। মোবাইল ফোনে হুমকি দিয়ে তাকে বলা হয়েছিল, শীর্ষ সন্ত্রাসীদের লোকজন গ্রেফতার হলে তাকে মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। শেষ পর্যন্ত তিনি মৃত্যুই বরণ করেছেন। মতিঝিল থানার উপ-পরিদর্শক সফিকুল ইসলাম বলেছেন, তাকে ফোন করে অব্যাহতভাবেই অকথ্য ভাষায় গালাগাল দেয়া হচ্ছিল। ১ এপ্রিল তিনি জিডি করেছেন। গোয়েন্দা পুলিশের জঙ্গি প্রতিরোধ টিমের এক সদস্যকে মোবাইলে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়ার পর তিনিও জিডি করেছেন। বিএনপি নেতা ও ওয়ার্ড কমিশনার আহম্মদ হোসেন, বাবু বাজারের ব্যবসায়ী আফিল উদ্দিন, স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রেম কৃষ্ণ রায় ও সুমন কর্মকারসহ অনেকেই গত কয়েক মাসে ডাকাত শহীদের সহযোগীদের হাতে জীবন দিয়েছেন। আর ছিনতাই, ডাকাতি, চাঁদাবাজির ঘটনা ঘটছে হরদম। ডাকাত শহীদ কলকাতা পুলিশের হাতে আটক রয়েছে। কালা খোকন ওয়ান-ইলেভেনের সময় আমেরিকায় আÍগোপনে থাকার পর ফের এলাকায় ফিরে এসেছে বলে তথ্য রয়েছে। কচি ভারতে আÍগোপন করে আছে। শীর্ষ সন্ত্রাসীদের নাম করে চাঁদা দাবি করছে উঠতি সন্ত্রাসীরা। শীর্ষ সন্ত্রাসী ডাকাত শহীদ, কালা খোকন ও কচির সহযোগীরা ইসলামপুর, ধোলাইখাল, তাঁতীবাজার, বাংলাবাজার, সদরঘাট, পাটুয়াটুলী, রায়সাহেববাজার, শ্যামবাজার, কেরানীগঞ্জের নাজিরেরবাগ, কদমতলী, নামা শ্যামপুর, জুরাইন, কুতুবখালীসহ আশপাশের এলাকায় সক্রিয় রয়েছে। এদিকে মহানগর পুলিশ কমিশনার একেএম শহীদুল হক সাংবাদিকদের জানান, এসআই গৌতম হত্যাকাণ্ডের পর পুলিশ সদস্যদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। মোবাইল ফোনে কোন পুলিশ সদস্যকে হুমকি দেয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তা মোবাইল মনিটরিং সেলকে জানাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত লিখিত আদেশ আগামী সপ্তাহেই থানাগুলোতে পাঠানো হবে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply