পদ্মা সেতুর খরচ বাড়ছে সাত হাজার কোটি টাকা

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য প্রায় এক কিলোমিটার বৃদ্ধি ও নকশা বদলের কারণে সেতু নির্মাণে অতিরিক্ত আরো সাত হাজার কোটি টাকা (এক বিলিয়ন ডলার) ব্যয় হবে বলে জানিয়েছে সেতুর নকশা বিষয়ক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান মনসেল এ কম লিমিটেড।

আগামী মে মাসের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটি সেতুর নকশা যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে হস্তান্তর করবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। ২০০৫ সালে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানটি সেতু নির্মাণে সম্ভাব্য খরচ নির্ধারণ করেছিল এক দশমিক চার বিলিয়ন ডলার। চলতি বছরের ফেব্র“য়ারির ২ তারিখে জমা দেয়া নতুন প্রস্তাবে সেতুর সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে দুই দশমিক চার বিলিয়ন ডলার।

সেতু কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, ২০০৩ সালে পদ্মা সেতুর ডিজাইন তৈরীর জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ করা হয়। ২০০৫ সালের মে মাসে প্রতিষ্ঠানটি তাদের প্রথম প্রতিবেদন যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়। সেই সময়কার নকশায় সেতুর দৈর্ঘ্য ধরা হয়েছিল পাঁচ দশমিক ৫৮ কিলোমিটার। ২০১০ সালে জমা দেয়া নতুন ডিজাইনে সেতুর দৈর্ঘ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ছয় দশমিক ১৫ কিলোমিটার। আগের ডিজাইনে সেতুটি নির্মাণ করার কথা ছিল সম্পূর্ণ কনক্রিটে। সেতুর পাশেই রেল সড়কের নকশা ছিল। টোল প্লাজা ছিল একপাশে। নতুন নকশায় সেতুটি হবে দুই তলা। প্রথম তলায় থাকবে রেল সড়ক । এটি হবে সম্পূর্ণ স্টিলের। উপরে থাকবে কনক্রিটের রাস্তা। এ দু’টি রাস্তা ধাপে ধাপে যাতে সহজে নীচে নামতে পারে এজন্য প্রকৌশলগত কিছু পরিবর্তন করা হয়েছে। এর বাইরে সেতুর দুই পাশে টোল প্লাজা নির্মাণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সেতু প্রকল্পের একজন কর্মকর্তা জানান, আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই সেতুর কাজ শুরু হবে। ইতিমধ্যে ঠিকাদারদের প্রাক মূল্যায়ন শুরু হয়েছে। সেতুর অতিরিক্ত ব্যয় যোগানে দাতা সংস্থাগুলোও আগ্রহ দেখিয়েছে। এছাড়াও বিশ্বব্যাংক সেতু নির্মাণে এক দশমিক দুই বিলিয়ন ডলার যোগান দেবে বলে ঘোষণা দিয়েছে। এডিবি তাদের ঋণ এক দশমিক ৫০ মিলিয়ন থেকে ৩০০ মিলিয়নে উন্নীত করেছে। অন্যান্যদের মধ্যে জাইকা, আবুধাবি গ্র“প, ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক তাদের ঋণ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। আগামী ডিসেম্বরে এসব দাতা সংস্থার কাছ থেকে ঋণ পাওয়ার বিষয়ে সরকার আলোচনা শুরু করবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply