শ্রীনগরে জবাই করা লাশের পরিচয় মিলেছে

শ্রীনগরে অজ্ঞাত পরিচয়ের জবাই করা লাশটি এক মাদ্রাসা শিক্ষিকার। তিনি নারায়ণগঞ্জের পাগলা বৌবাজার এলাকার মোহাম্মদিয়া মাদ্রাসার শিক্ষিকা তামান্না (২২)। মামলা করে প্রেমের স্বীকৃতি আদায় করে ঘরসংসার করাই তামান্নার জন্য কাল হয়েছে বলে তার পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। ২৩ এপ্রিল বিকালে তামান্না একটি মোবাইল ফোনের কল পেয়ে পাগলা বৌবাজার এলাকার তার নানার বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন। পরদিন শনিবার সকালে শ্রীনগর উপজেলার ঢাকা-তন্তর-নওপাড়া সড়কের পাশ থেকে থানা পুলিশ তামান্নার জবাই করা ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করে। ওইদিনই শ্রীনগর থানার এসআই শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তামান্নার মামা মিরণ হোসেন ২৭ এপ্রিল রাতে শ্রীনগর থানায় এসে তামান্নার ছবি দেখে হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত হন। তামান্নার খালা হাসিনা বেগম জানান, তামান্না জুরাইন ১০১ আফসার করিম রোডের রফিকুল ইসলামের প্রথম স্ত্রীর ছোট মেয়ে। তামান্না বাবা-মায়ের কলহের কারণে ছোটবেলা থেকেই পাগলায় তার নানার বাসায় বসবাস করতেন। প্রায় ৪ বছর আগে জুরাইনের জাকির মিয়ার ছেলে পলাশের সঙ্গে তামান্নার প্রেম হয়। পলাশ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তামান্নার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। একপর্যায়ে তামান্না বিয়ের জন্য চাপ দিলে পলাশ সটকে পড়ে। কিন্তু তামান্না তার প্রেমের স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য শ্যামপুর থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় পলাশ ১৫ দিন জেল খাটে এবং তামান্নাকে বিয়ে করার শর্তে ছাড়া পায়। এরপর তাদের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে পলাশ ও তার পরিবারের লোকজন তামান্নার সঙ্গে খারাপ আচরণ করতে থাকে। এ নিয়ে একাধিকবার সালিশ হলেও তাদের সম্পর্ক স্বাভাবিক হয়নি। বিয়ের এক বছরের মাথায় পলাশ তামান্নাকে না জানিয়ে ইতালি চলে যায় এবং তামান্নার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। তামান্না কোন উপায় না দেখে তার স্বামীর বাড়ি থেকে নানার বাড়ি নারায়ণগঞ্জের পাগলা চলে আসেন এবং ৮ মাস আগে পাগলা মোহাম্মদিয়া মাদ্রাসায় শিক্ষিকা হিসেবে চাকরি নেন। তামান্নার সংসার টেকানোর জন্য শ্যামপুর এলাকার এমপি সানজিদা খানম দু’বার সালিশ-মীমাংসায় বসলেও পলাশের পরিবার সালিশের সিদ্ধান্ত মেনে নেয়নি। সর্বশেষ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা সালিশ-মীমাংসায় বসেন। সালিশে সিদ্ধান্ত হয় ২৭ এপ্রিল দুই লাখ টাকা দেনমোহরানার বিনিময়ে তাদের দাম্পত্য সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যাবে। এর আগেই ২৩ এপ্রিল তামান্না আসরের নামাজ পড়ার পর তার মোবাইল ফোনে একটি কল আসে। এর পরই তিনি বোরকা পরে বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন।

[ad#co-1]

Leave a Reply