বিদ্যুৎ সঙ্কটে মুন্সীগঞ্জের ৬৪ হিমাগারে সংরক্ষিত আলু নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা

কাজী দীপ, মুন্সীগঞ্জ: বিদ্যুৎ সংকটের কারণে মুন্সীগঞ্জে ৬৪টি হিমাগারে সংরক্ষিত সাড়ে ৪ লাখ মেট্রিক টর আলু দুঃশ্চিন্তায় পড়েছে হিমাগার মালিক ও আলু চাষীরা। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ না থাকায় সংরক্ষণের শুরুতেই আলুতে অঙ্গুর (গ্যারা) দেখা দিয়েছে। এতে বীজ আলু নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছে কৃষকরা। বিদ্যুৎ সংকট দূরীভূত না হলে অচিরেই হিমাগারগুলোতে সংরক্ষিত কোটি কোটি টাকার আলুতে পচন ধরার সম্ভাবনা রয়েছে বলে ভুক্তভোগীরা মনে করছেন।

সূত্র জানায়, চলতি বছরে মুন্সীগঞ্জের ৬৪টি হিমাগারে সাড়ে ৪ লাখ মেট্রিক টন আলু সংরক্ষণ করা হয়। এই আলু সংরক্ষণ করতে হিমাগারগুলোতে ৩৭-৩৮ ফারেনহাইট ডিগ্রি তাপমাত্রা থাকার কথা থাকলেও রয়েছে ৪০ থেকে ৪২ ফারেনহাইট ডিগ্রি তাপমাত্রা। এ কারণে সংরক্ষণের শুরুতেই আলুতে গ্যারা দেখা দিয়েছে। সাধারণত অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে কম পরিমাণ আলুতে গ্যারা দেখা দিলেও এবার ৬ মাস আগেই তা দেখা দেয়ায় হিমাগার মালিক ও কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় হিমাগার মালিকরা বিষয়টি মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিকে অবগত করেছেন। জানা গেছে, বর্তমানে বিদ্যুৎ সংকট ও প্রচণ্ড গরমে আলুর পচন রোধ করতে অনেক মালিক কর্র্তৃপক্ষ তাদের হিমাগারের ছাদে দুবেলা পানি ঢালছেন। বিদ্যুৎ সংকট প্রসঙ্গে পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম মো. ইমদাদুল ইসলাম জানান, জেলায় প্রতিদন পিক আওয়ারে ৭৮ মেগাওয়াট ও অফপিক আওয়ারে ৬০ থেকে ৬৫ মেগাওয়াট বিদ্যুতে চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে পিক আওয়ারে ৪০-৪৭ মেগাওয়াট ও অফপিক আওয়ারে ৩৫-৩৭ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। এ কারণে ২ ঘণ্টা পরপর লোডশেডিং দিতে হচ্ছে।

আমাদের অর্থনীতি
_____________________________________________________

খোলা আকাশের নিচে আলু

বিদ্যুৎ সঙ্কটরে কারণে মুন্সীগঞ্জের কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষিত প্রায় সাড়ে ৪ লাখ টন আলু নিয়ে দিশাহারা কোল্ড স্টোরেজের মালিক ও আলু চাষিরা। কোল্ড স্টোরেজগুলোতে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ না থাকায় আলু সংরক্ষণের শুরুতে আলুতে অঙ্কুর এসে গেছে। বীজ আলু নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

গেল মার্চ মাস ধরে কোল্ড স্টোরেজগুলোতে কৃষক ও ব্যবসায়ীরা আলু সংরক্ষণ করেন। ওদিকে কোল্ড স্টোরেজগুলোতে জায়গা সঙ্কুলান না হওয়ায় প্রায় ৭ লাখ ৪০ হাজার টন আলু কৃষকের বাড়িতে ও খোলা আকাশের নিচে পড়ে রয়েছে। কোল্ড স্টোরেজগুলোতে জায়গা না থাকায় বাজারে পাইকারও নেই। আবার আলুর দাম কম থাকায় ভবিষ্যতে বেশি দামের অপেক্ষায় বসে রয়েছেন কৃষকরা। জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র মতে, এ বছর জেলার ৬টি উপজেলায় ৩৬ হাজার ৬৭০ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়। আলু উৎপন্ন হয় ১১ লাখ ৭৩ হাজার ৪৪০ টন। জেলার ৭২টি কোল্ড স্টোরেজের মধ্যে সচল রয়েছে ৬৪টি। এই কোল্ড স্টোরেজগুলোতে আলু রাখার ধারণ ক্ষমতা ৪ লাখ ৩৩ হাজার ৪০২ টন। গত বছর আলু উৎপন্ন হয়েছে ১০ লাখ ৬৭ হাজার ৬১০ টন। গত বছর কৃষক ও ব্যবসায়ীরা আলু বিক্রি করে তিনগুণ মুনাফা পান। মুন্সীগঞ্জের চরকেওয়ারের কৃষক গোলাম কিবরিয়া খসরু জানান, তিনি এবার ২ হাজার ৪শ’ শতাংশ জমিতে আলু রোপণ করে ৭ হাজার ৩শ’ মণ আলু পেয়েছেন। কোল্ড স্টোরেজের ভাড়াসহ তার খরচ পড়েছে ৩২ লাখ টাকা। এখন বিক্রি করলে তার লোকসান হবে ১১ লাখ টাকা। তিনি আরও বলেন, জমিতে প্রতি কেজি আলুর খরচ পড়েছে ৯ টাকা ২৫ পয়সা। আর কোল্ড স্টোরেজের ভাড়া, পরিবহন খরচ, বস্তা ক্রয়, লেবার খরচসহ কোল্ড স্টোরেজ পর্যন্ত খরচ পড়েছে কেজি প্রতি ১৪ টাকা। বর্তমানে বাজারদর রয়েছে প্রতি কেজি ৭ টাকা ২৫ পয়সা। প্রতি মণ আলুতে খরচ পড়েছে ৭৪০ টাকা। বর্তমানে বাজার দর রয়েছে প্রতি মণ ২৮০-২৯০ টাকা। সিদ্ধেশ্বরী কোল্ড স্টোরেজের ব্যবস্থাপক প্রশান্ত কুমার মণ্ডল দুলাল বলেন, প্রতিদিন ১০-১২ ঘণ্টা লোডশেডিং হচ্ছে। কোল্ড স্টোরেজগুলোতে ৩৭-৩৮ ফারেনহাইট ডিগ্রি তাপমাত্রা থাকার কথা। কিন্তু রয়েছে ৪০-৪২ ফারেনহাইট ডিগ্রি তাপমাত্রা। সবেমাত্র কৃষকরা কোল্ড স্টোরেজগুলোতে আলু সংরক্ষণ করেছেন। এরই মধ্যে গেঁড় এসে গেছে। সাধারণত খুব কম পরিমাণ আলুতে গেঁড় আসে অক্টোবর-নভেম্বর মাসের দিকে। আলু রোপণের মওসুমকে সামনে রেখে তখন কৃষকরা তাদের সংরক্ষিত আলু নিতে শুরু করেন। এ উদ্ভূত পরিস্থিতির কথা সিদ্ধেশ্বরী কোল্ড স্টোরেজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও মুন্সীগঞ্জ পলস্নী বিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজারকে লিখিতভাবে অবহিত করেছেন গত কয়েক দিন আগে। এদিকে বিদ্যুৎ সঙ্কট ও প্রচণ্ড গরমে আলুর পচন রক্ষা করতে অনেক হিমাগারের মালিক হিমাগারের ছাদে দু’বেলা পানি ঢালছেন। মুন্সীগঞ্জ পলস্নী বিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম মো. ইমদাদুল ইসলাম বলেন, ২ ঘণ্টা পরপর লোডশেডিং দিতে হচ্ছে। জেলায় প্রতিদিন পিক আওয়ারে ৭৮ মেগাওয়াট এবং অফ-পিক আওয়ারে ৬০-৬৫ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদা রয়েছে। পিক আওয়ারে ৪০-৪৭ মেগাওয়াট এবং অফ-পিক আওয়ারে ৩৫-৩৭ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে মুন্সীগঞ্জে।

মানবজমিন

[ad#co-1]

Leave a Reply