জাপানে বর্ষবরণ

রাহমান মনি
প্রতিবছরের মতো এবারো জাপানের বিভিন্ন শহরে বাংলা নববর্ষ ১৪১৭ অত্যন্ত আনন্দঘন পরিবেশে এবং উৎসবমুখর পরিবেশে উদ্যাপন করা হয়। নব্বইয়ের দশকে কিছুসংখ্যক সংস্কৃতি কর্মীর উদ্যমী উদ্যোগ বাংলার মেলা নামে শুরু হয় বৈশাখী উদ্যাপন। পরে অচঋঝ, টোকিও বৈশাখী হয়ে বর্তমানে সারা জাপানেই যেখানে বাংলাদেশিরা বসবাস করছেন সেখানেই বাংলা নববর্ষ উদ্যাপন করা হয়। কোথাও ঘরোয়াভাবে কোথাও বা বেশ ঘটা করে। ঘরোয়াভাবে পালন করা হচ্ছে সাধারণ ছাত্র অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে। বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডরমিটরিগুলোতে। টোকিও, ওসাকা, নাগোয়া মতো শহরগুলোতে যেখানে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক বাংলাদেশিরা বসবাস করছে সেখানে বেশ উৎসবমুখর পরিবেশে বেশাখী মেলার আয়োজন করছে প্রবাসীরা। এর মধ্যে টোকিওতে বৈশাখী মেলায় সর্বাধিক প্রবাসীরা অংশগ্রহণ করে।

এবার নাগোয়াতে নববর্ষের তিন দিন আগেই নববর্ষ উদ্যাপনের আয়োজন করা হয়। এ ক্ষেত্রে সুবিধাজনক মাঠ কিংবা হল পাওয়া বড় ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করেছে যথা সময় বর্ষকে বরণ করা। নাগোয়াতে দুপুর থেকে শুরু হয়ে রাত পর্যন্ত এই মেলা স্থায়ী হয়। আবহমান কালের বাঙালি খাবার-দাবার, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও বিভিন্ন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান এবং নাটক পরিবেশন করা হয়। সিদ্ধার্থ শংকর রায়ের নির্দেশনা ও পরিচালনায় নাটকটির নাম ছিল চর্বিত চর্বণ।

এই প্রথমবারের মতো সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস বাংলা নববর্ষ উদ্যাপন করা হয়। হঠাৎ করেই এই ঘোষণা দূতাবাস থেকে প্রবাসীদের ফ্যাক্স বার্তা এবং আন্তর্জালে জানানো হয়। ১৭ এপ্রিল ২০১০ দূতাবাস কনফারেন্স হলে বাংলা নববর্ষ যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে বরণ উপলক্ষে এক আলোচনা সভা ও প্রবাসী শিল্পীদের সমন্বয়ে সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী এমপি। তিনি সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত সফরে জাপান এসেছিলেন। দূতাবাসের চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স ইকোনমিক মিনিস্টার একেএম মনজুরুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা পরিচালনা করেন হেড অব দি চ্যান্সারি এবং প্রথম সচিব মোঃ নাজমুল হুদা। বক্তব্য রাখেন দূতাবাসের কমার্স কাউন্সিলর আবুল মনসুর মোঃ ফয়েজুল্লা জাপান বিদেশি সাংবাদিক ক্লাবের নির্বাচিত সভাপতি, দৈনিক প্রথম আলো এবং ডেইলি স্টার টোকিও ব্যুরো প্রধান মনজুরুল হক, কাজী মাহফুজ লাল এবং মীর রেজাউল করীম রেজা প্রমুখ।

প্রধান অতিথি আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী এমপি বলেন, একটি জাতীয় কৃষ্টি ও সংস্কৃতি খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। ১৯৭১ সালের রাষ্ট্রক্ষমতা লোভীদের পরাজয় হয়েছে মাত্র মুক্তি আসেনি। মুক্তি আসে চেতনায়, মননে। বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতিসত্তার জন্ম দেননি। জন্ম দিয়েছেন বাঙালি রাষ্ট্রের। যেই আদর্শে বাঙালি রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল আজকে কি আমরা সেখানে আছি? বাংলাদেশের আন্দোলন হলো মৌসুমী ব্যাপার। সংস্কৃতি যদি বহমান না হয় বহুতা না থাকে, নানা রঙে নানা বর্ণে সময়ের সঙ্গে পরিবর্তন না হয়। উগ্র সংস্কৃতি হয় তবে সে সংস্কৃতি বন্ধ্যা হয়। আর বন্ধ্যা হলে সে সংস্কৃতি টেকে না।
আলোচনা সভা থেকে স্থানীয় উত্তরণ কালচারাল গ্রুপ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।

১৮ এপ্রিল রবিবার নববর্ষের সবচেয়ে বড় আয়োজন টোকিওতে বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। মেলাতে আমন্ত্রিত হয়ে বাংলাদেশ থেকে ক্লোজ আপ ওয়ান তারকা ছালমা এবং কিশোর আসেন। একই দিন কানসাইবাসী ওসাকাতে বৈশাখী মেলা নামে নববর্ষ উদ্যাপনের আয়োজন করে। পশ্চিম জাপানের প্রবাসীরা উক্ত বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এ ছাড়াও নববর্ষ উদ্যাপন করে নিয়ে সাপ্পোরো, সিগাসহ অন্যান্য শহরেও। ২৫ এপ্রিল নাগাসাকিতে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান পালন হয়।

[ad#co-1]

Leave a Reply