শুধু, সময়ের অপেক্ষা

সবকিছুই ঠিকঠাক। শুধু, সময়ের অপেড়্গা। সানাইয়ের সুরে সুরে প্রেমিক-প্রেমিকার এক ঘরে ওঠা এখন আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। পারিবারিকভাবে দু’পড়্গই গেল প্রায় তিন বছরের তারকা প্রেম মেনে নিয়েছেন। এরই মধ্যে বিয়ের এনেত্মজাম শুরম্ন করেছেন কড়া নজরদারির মধ্য দিয়ে। দুই তারকার ব্যসত্ম সিডিউলের টালি খাতা এক করে নির্ধারণ করছেন বিবাহের দিনক্ষণ।

সংগীত আর মডেলিংয়ের শীর্ষ দুই তারকার বিয়ে বলে কথা! লম্বা এবং অস্পষ্ট প্রেমময় গুঞ্জনের পর্দা তুলে গতকাল এমনটাই জানালেন হাবিবুল ওয়াহিদ হাবিবের একমাত্র গার্ডিয়ান-মুখপাত্র পপ তারকা ফেরদৌস ওয়াহিদ। অন্যদিকে বিয়ের বিষয়টি পুরোপুরি স্বীকার না করলেও এমন জিজ্ঞাসার বিপরীতে মৌনতা ছিল মোনালিসার। তিনি বলেন, টেনশন করবেন না। বিয়ের দাওয়াত নিশ্চয়ই দেবো। তবে বিয়ে কেন্দ্রিক দু’পড়্গের এমন সরল স্বীকারোক্তির আগে গতকাল দিনব্যাপী মোনালিসা-হাবিবকে নিয়ে মিডিয়া তথা ফেসবুক ঘরানার ভক্ত-বন্ধুদের মধ্যে ছোটখাটো একটা খুশির বন্যা বয়ে গেছে। একই সঙ্গে তৈরি হয়েছে খানিক দ্বিধাও। খুশি এবং দ্বিধার কারণ জনপ্রিয় সাইট ‘ফেসবুক’-এ হাবিব ওয়াহিদ নিজের একাউন্টের প্রোফাইল পিক-এ দু’জনার এ ছবিটি ব্যবহার করেছেন। শুধু তাই নয়, একই সঙ্গে তিনি তার ইনফরমেশন বক্সে বৈবাহিক সম্পর্ক ‘সিঙ্গেল’ বদলে ফেলে গতকালই ‘ম্যারেড’ দিয়েছেন। আর ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন ‘সারপ্রাইজ…’। ব্যস, এতেই হয়ে গেল। হাবিব-মোনালিসাকে তার বন্ধু-ভক্তরা শুভেচ্ছা আর সুখের বার্তায় একরকম ভাসিয়েই দিলো। এ কান ও কান হয়ে মিডিয়ার সাদা-নীল আকাশে গতকাল দিনভর উড়লো হাবিব-মোনার বিয়ের রঙিন ঘুড়ি। আর এ সংবাদটির সবচেয়ে শক্ত ভিত্তি দাঁড় করালো দু’জনার ঘরোয়া ছবিটি। এর আগে এ দুজনার এমন ছবি পাওয়া যায়নি। যদিও ফেরদৌস ওয়াহিদ স্পষ্ট করেই বলছেন, ছবিটি আমি দেখিনি। তবে আমি নিশ্চিত এটা আসল ছবি নয়। আমার মনে হয় এটা হাবিবুলের নামে অন্য কেউ চালাচ্ছে। তাছাড়া বিয়ে হলে অবশ্যই জানাবো। আমি তো পিতা হিসেবে ওদের সম্পর্কের বিষয়টি এখন আর অস্বীকার করছি না। আমাদের দুই পরিবারের মধ্যে সব রকম কথা চূড়ানত্ম হয়ে আছে। এরপরেও এটা নিয়ে লুকোচুরি করবো কেন। তবে হাবিবুল দেশে থাকলে ও বিষয়টি আরও ভাল করে স্পষ্ট করতে পারতো। আমার তো বিশ্বাস হয় না এমন ছবি ও ফেসবুকে দিতে পারে। এদিকে এটাও সত্যি, শুধু হাবিবই নয়, অন্য তারকাদের নামেও একাধিক ফেক (ভুয়া) ফেসবুক একাউন্ট রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, এসব একাউন্টের মধ্য দিয়ে প্রায় প্রতিদিনই বিভিন্ন শিল্পী প্রতারিত-বিব্রত হচ্ছেন। ফেসবুকে হাবিবের নামেও একাধিক একাউন্ট রয়েছে। তবে যে একাউন্টটিতে গতকাল আলোচিত এ ছবিটির সন্ধান মিলেছে সেটি হাবিবের আসল একাউন্ট বলেই বিভিন্নভাবে প্রমাণিত। বিশেষ করে ওই একাউন্টের তথ্য বিভাগে নিজের জন্ম তারিখ থেকে শুরম্ন করে হাবিবের মিউজিক্যাল ক্যারিয়ারের প্রায় পুরোটাই তুলে ধরা হয়েছে পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে। সেখানে তার ছোটবেলার রেয়ার কালেকশন ছবি, দেশ-বিদেশের কনসার্ট ও স্টুডিও ওয়ার্কের ছবি, বাবা-মা’র সঙ্গে ছবি, প্রকাশিত অ্যালবামের কাভার, ভক্তদের সঙ্গে ছবিসহ প্রায় ৫০টি অ্যালবাম আপলোড করা আছে। ফেক আইডি হলে একজন শিল্পীর এতসব তথ্য-উপাত্ত একসঙ্গে পেশ করা অসম্ভব। একই সঙ্গে দু’জনার আলোচিত এ ছবিটি গবেষণা করে দেখা যায়, অবশ্যই এটি অরিজিনাল ছবি। এ ছবিটিতে কাটছাঁট করে প্রতারণা করার কোন চিহ্ন নেই। এ প্রসঙ্গে মোনালিসা রেগে নয়, মিষ্টি হেসে বললেন, কি বলবো। আমি তো কিছুই বুঝতে পারছি না। সকাল থেকেই ফোন পাচ্ছি, সঙ্গে শুভবিবাহের শুভেচ্ছাও জানাচ্ছে সবাই। অনেকে আবার বিস্ময় প্রকাশ করছে। কেউ বলছে, এভাবে চোরের মতো বিয়ে করলাম কেন ইত্যাদি ইত্যাদি। আর ছবিটি আসল নাকি নকল সে ব্যাপারেও আমি নিশ্চিত নই। কারণ, ছবিটি এখনও আমি দেখার সুযোগ পাইনি। দেখলে বুঝতে পারবো। তবে এ ব্যাপারে সবচেয়ে ভাল বলতে পারতেন যিনি, তিনি তো ওমরা হজ করতে মক্কা শরিফে অবস্থান করছেন। তবে হাবিবের হবু বধূ মোনালিসা এবং তার হবু শ্বশুর ফেরদৌস ওয়াহিদ আচানক প্রকাশ পাওয়া এ ছবিটির ব্যাপারে খানিক উষ্মা প্রকাশ করলেও দু’জনের ভাষ্য এবং প্রতিক্রিয়ায় এটুকু স্পষ্ট- সবই ঠিকঠাক। শুধু বিয়ের সানাই বাজতে সময়ের অপেড়্গা মাত্র।

মাহমুদ মানজুর

One Response

Write a Comment»
  1. hayyyyyreey preeeem
    biyyyyer poreeeyi deeeaaam

Leave a Reply