মুন্সিগঞ্জে আ.লীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষ

একটু হাঁটলেই চোখে পড়ে গুলির খোসা ও বোমার স্প্লিন্টার
মুন্সিগঞ্জের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে একটু হাঁটলেই চোখে পড়বে গুলির খোসা, বোমার স্প্লিন্টার। আরও মিলবে অবিস্ফোরিত বোমা, যা পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে ঝোপজঙ্গলে। গতকাল বৃহস্পতিবার সরেজমিন মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের আমঘাটা, কংশপুরা, চরডুমুরিয়া, মাকহাটি, নয়াকান্দি গ্রাম ঘুরে এমনই দৃশ্য দেখা গেছে।

জানা গেছে, প্রথম দিন গত সোমবার আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে গুলিবিনিময় ও বোমা বিস্ফোরণের পর দুই পক্ষই পাল্টাপাল্টি মামলা করে। এ ছাড়া গত বুধবারও দুই পক্ষের মধ্যে ফের সংঘর্ষ হয়। এই দুই দিনে উভয় পক্ষের অন্তত ১০০ জন আহত হয়েছেন। তবে দুটি মামলায় দুই পক্ষের নেতৃত্বদানকারী শাহ আলম মল্লিক, ফরহাদ খান ও মোস্তফা মোল্লার নাম নেই। তিনজনই স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা।

এলাকাবাসী জানান, গত দুই দিনের সংঘর্ষে অনেক গুলি ও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। গ্রামের সাধারণ নারী-পুরুষকে ঘরের দরজা বন্ধ করে থাকতে হয়েছে। টিনের চালের ওপর অনেক সময় গুলির খোসা ও বোমার স্প্লিন্টার এসে পড়েছে। এলাকাবাসী বলছেন, পুলিশ যদি প্রথম দিনের পরেই পদক্ষেপ নিত, তাহলে দ্বিতীয় দিনে এ ঘটনা ঘটত না। অনেক আসামি এলাকায় আত্মগোপন করে আছে। যেকোনো সময় ফের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ঘটতে পারে।

এদিকে তিন দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ এখন পর্যন্ত একজনকেও গ্রেপ্তার করতে পারেনি। অভিযোগ রয়েছে, মামলা থেকে ওই তিন নেতাকে বাদ দেওয়ার পেছনে পুলিশের চাপ ছিল।

সাবেক চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা মোস্তফা মোল্লা অভিযোগ করেন, ‘আমার লোকজনের ওপর শাহ আলম মল্লিক ও ফরহাদ খানের লোকজন হামলা করে। আমার লোকজন পাল্টা জবাব দেয়।’ তবে মামলায় শাহ আলম মল্লিক ও ফরহাদ খানের নাম না থাকা প্রসঙ্গে তিনি জানান, এতে পুলিশের চাপ ছিল। জেলা আওয়ামী লীগের সহসভপতি শাহ আলম মল্লিক জানান, ‘আমার লোকজনের ওপরই উল্টো মোস্তফা মোল্লা, আজিজ মল্লিক ও রিপনের লোকজন হামলা করে। আমার লোকজনের বাড়িঘরে ভাঙচুর ও লুটপাট করে তারা।’

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদুল ইসলাম জানান, ইউনিয়নের কয়েকটি পয়েন্টে পুলিশ মোতায়েন আছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। আসামিরা আত্মগোপনে আছে। ঘটনাস্থল থেকে অনেকগুলো গুলির খোসা ও বোমার স্প্লিন্টার আলামত হিসেবে উদ্ধার করা হয়েছে। মামলায় দুই পক্ষের নেতাদের নাম না থাকার ক্ষেত্রে পুলিশের চাপ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কারও নাম বাদ দেওয়ার জন্য পুলিশ বলতে যাবে কেন? এখানে পুলিশের লাভ কী?

ভানভীর হাসান, মুন্সিগঞ্জ

[ad#co-1]

Leave a Reply