মুন্সিগঞ্জে হরতালে বিএনপি নেতাদের কারখানা চালু!

তানভীর হাসান, মুন্সিগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জে জেলা বিএনপির ডাকে গতকাল রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল আংশিক পালিত হয়েছে। শহরের কয়েকটি পয়েন্টে দোকানপাট বন্ধ থাকলেও অফিস, আদালত, ব্যাংক-বিমার কার্যক্রম স্বাভাবিক ছিল। শহরে রিকশা, ভ্যান, টেম্পো ও অটোরিকশা চললেও ভারী যানবাহন বন্ধ ছিল। মুন্সিগঞ্জ-ঢাকা রুটে কোনো যাত্রীবাহী বাস চলেনি। তবে লঞ্চ চলেছে। হরতালের সমর্থনে গাড়ির চাকা ঘুরবে না, কলকারখানা চলবে না—এমন স্লোগান দিয়ে শহরের বিভিন্ন স্থানে খণ্ড খণ্ড মিছিল হলেও দলের অনেক নেতার মালিকানাধীন কলকারখানা চালু ছিল।

মুন্সিগঞ্জের মিরকাদিম পৌর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আকবর হোসেন হত্যার প্রতিবাদে এ হরতাল ডাকা হয়। বিএনপির দাবি, আকবর গত বুধবার মুন্সিগঞ্জ থেকে ঢাকায় দলের মহাসমাবেশে যাওয়ার পথে সদরঘাটে যুবলীগ-শ্রমিক লীগের কর্মীদের হামলার পর থেকে নিখোঁজ হন। পরদিন ঢাকার সদরঘাটে বুড়িগঙ্গা নদী থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়।

দুপুর ১২টার দিকে মুক্তারপুরে জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাইয়ের কারেন্ট জাল তৈরির কারখানায় গিয়ে দেখা যায়, কারখানা চালু রয়েছে। কয়েকজন নারীশ্রমিক কাজ করছেন। পাশেই তাঁর ছোট ভাই দলের সদর উপজেলা সভাপতি মহিউদ্দিন আহমদের তন্ময় ফিশিং নেট কারখানাও চালু ছিল। এ কারখানার প্রধান ফটক থেকেই যন্ত্রের শব্দ শোনা যায়। ভেতরে ঢুকতে চাইলে প্রহরী জানান, মালিকের অনুমতি ছাড়া প্রবেশ নিষেধ। মালিক কে জানতে চাইলে বলেন, আবদুল হাইয়ের ভাই মহিউদ্দিন আহমদ।

সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও দলের ইউনিয়ন আহ্বায়ক হাবিবুর রহমানের জাল তৈরির কারখানা আরাফাত ফাইবার ইন্ডাস্ট্রিজ শহরের কাছে নয়াগাঁও এলাকায় অবস্থিত। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, শ্রমিকেরা যন্ত্রে জাল তৈরি করছেন। পাশেই একই মালিকের হার্ডবোর্ড তৈরির কারখানাও চালু ছিল। এ ছাড়া মুক্তারপুরে বিএনপির নেতাদের মালিকানাধীন আরও কয়েকটি কারখানা চালু ছিল।

আরাফাত ফাইবার ইন্ডাস্ট্রিজের সুপারভাইজার মনির হোসেন জানান, হরতালে কারখানা কেন চালু রয়েছে, তা মালিকই ভালো বলতে পারবেন।

হরতালে দলের নেতাদের মালিকানাধীন কলকারখানা চালু প্রসঙ্গে আবদুল হাই প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমারটা বন্ধ আছে। তন্ময় ফিশিং নেট আমার ছোট ভাইয়ের।’ পাশেই ছিলেন ছোট ভাই মহিউদ্দিন। মহিউদ্দিন বলেন, ‘না তো, আমার কারখানা খোলা থাকবে কেন? আমারটাও বন্ধ।’ পাশেই বিএনপির কয়েকজন নেতা বলেন, এখন সবকিছু দেখলে চলবে না।

পৌর মার্কেটের এক ব্যবসায়ী বলেন, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে বলে এখন যদি তাঁরাই (বিএনপির নেতারা) নিজেদের কলকারখানা চালু রাখেন, তবে এর প্রতিবাদ কে করবে। সাধারণ জনগণের সব দিকেই বিপদ।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সকাল নয়টার দিকে আবদুল হাইয়ের নেতৃত্বে একটি মিছিল মুক্তারপুর থেকে শুরু হয়ে দলের জেলা কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। মুক্তারপুরে মহিউদ্দিন আহমদ ও হাবিবুর রহমান দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে মিছিল করেন। গজারিয়ায় বিএনপি মিছিল বের করলে পুলিশ রসুল মার্কেটের সামনে আটকে দেয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মুক্তারপুর সেতুর কাছে একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়। দুপুর দুইটার মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। হরতালে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কোনো বাধার খবর পাওয়া যায়নি।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সাইফুল ইসলাম প্রথম আলোকে জানান, হরতাল শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। তবে মুক্তারপুর সেতুর কাছে একটি বোমা বিস্ফোরিত হলে সেখান থেকে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ছাড়া রামপাল থেকে আরও তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। হরতালের জন্য অতিরিক্ত পুলিশ আনা হয়। শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে পুলিশ মোতায়েন ছিল।

প্রথম আলো

—————————————————————–

মুন্সীগঞ্জে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালিত গ্রেফতার ৮

মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপির ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল রোববার শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয়েছে। হরতাল চলাকালে রিকশা, ভ্যানসহ হালকা যানবাহন ছাড়া কোন ধরনের ভারি যানবাহন চলাচল করেনি, দোকানপাট বন্ধ ছিল। সকাল থেকে ঢাকার সঙ্গে মুন্সীগঞ্জের সড়কপথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল, বাস-ট্রাক-অটোরিকশা চলাচল করেনি। সকালে জেলা বিএনপির সভাপতি মোঃ আবদুল হাইয়ের নেতৃত্বে শহরে বিক্ষোভ মিছিল হয়। এছাড়া আবদুল হাই অধিকাংশ সময় মুক্তারপুরে চীন-বাংলাদেশ ৬ষ্ঠ সেতু মুন্সীগঞ্জ প্রান্তে অবস্থান করে পিকেটিংয়ে অংশ নেন। শহরের পৌর মার্কেট থেকে মুন্সীগঞ্জ লঞ্চঘাট পর্যন্ত দোকানপাট বন্ধ ছিল। শিল্পনগরী মুক্তারপুর, মিরকাদিম, পঞ্চসার, সিপাহীপাড়া, হাতিমাড়া, দর্গাবাড়িতে হরতাল চলাকালে সব দোকানপাট ও মিলকারখানা বন্ধ ছিল। বিভিন্ন স্থানে খণ্ড খণ্ড মিছিল এবং রাস্তায় টায়ারে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়, মুক্তারপুরে পিকেটাররা একটি ট্রাক ভাংচুর করেছে। এ সময় সদর থানার পুলিশ শহরের সুপার মার্কেট চত্বর, হাতিমাড়া, সিপাহীপাড়া এলাকা থেকে রামপাল ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি শফিকুল ইসলাম শওকতসহ ৮ জন পিকেটারকে গ্রেফতার করেছে। টঙ্গীবাড়ি বাজারে উপজেলা বিএনপি সকালে মিছিল করতে চাইলে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও পুলিশ বাধা দেয়। টঙ্গীবাড়ি বাজারে অধিকাংশ দোকানপাট খোলা ছিল। বাস ও ট্রাক ছাড়া অন্যান্য যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। এদিকে গজারিয়া, সিরাজদিখান, লৌহজং ও শ্রীনগর উপজেলায় ঢিলেঢালা হরতাল পালিত হয়েছে। উল্লেখ্য, ১৯ মে ঢাকার পল্টনে বিএনপির মহাসমাবেশে যাওয়ার পথে যুবদল নেতা আকবর হোসেন (৩৫) নিহত হওয়ার প্রতিবাদে মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দেয়।

লৌহজংয়ে হরতাল হয়নি : লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, মুন্সীগঞ্জের যুবদল নেতা আকবর হোসেনের খুনিদের বিচারের দাবিতে ডাকা রোববারের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল লৌহজংয়ে সফল হয়নি। উপজেলার হাট-বাজারের সব দোকানপাট খোলা ছিল, ব্যাংক-অফিস বসেছে যথাসময়ে। স্কুল-কলেজে ক্লাস হয়েছে নিয়মিত। ঢাকা-মাওয়া-বালিগাঁও সড়কে গংচিল ও মহানগর পরিবহনের বাসগুলোর সার্ভিস ছিল স্বাভাবিক। রিকশা, টেম্পো, গাড়িসহ সব ধরনের যান চালাচল স্বাভাবিক ছিল। হরতালের সময় বিএনপি ও যুবদলের কোন নেতাকর্মীকে মাঠে দেখা যায়নি। যুবদলের ডাকা হরতালকে অবৈধ বলে দাবি করে সকালে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠন হরতালের বিরুদ্ধে একটি মিছিল বের করে। মিছিলটি উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে হরতালের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবাদ সমাবেশ করে। সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মোঃ মামুন বেপারীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আঃ রশিদ মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমেদ মোড়ল, উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ ওসমান গনি তালুকদার, যুগ্ম সম্পাদক আঃ রশিদ সিকদার ও বাতেন মৃধা, যুবলীগ সভাপতি মেহেদি হাসান, তোফাজ্জল হোসেন তপন, আলমগীর কবির, পিন্টু, দিদার মোল্লা প্রমুখ।

যুগান্তর
———————————————————————————-

মুন্সীগঞ্জে জীবনযাত্রা ছিল স্বাভাবিক, হরতালে সাড়া মেলেনি

বিএনপির ডাকে রবিবার মুন্সীগঞ্জে হরতালে জীবনযাত্রা ছিল স্বাভাবিক। শহরের উপকণ্ঠ মুক্তারপুর ব্রিজের কাছে বিএনপি কর্মীরা সরব থাকলেও অন্যান্য এলাকায় তেমন উপস্থিতি দেখা যায়নি। শ্রীনগর, লৌহজং, সিরাজদিখান, টঙ্গীবাড়ি ও গজারিয়া উপজেলাসহ সব স্থানেই জীবনযাত্রা স্বাভাবিক ছিল বলে স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে। মুক্তারপুরে বিএনপির মালিকানাধীন মিল ফ্যাক্টরিগুলোতেও স্বাভাবিক কাজকর্ম হয়েছে। সকালে জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হাইয়ের নেতৃত্বে একটি মিছিল হরতালের সমর্থনে মুক্তারপুর থেকে শহরে আসে। তবে শহরে কোন পিকেটিংয়ের ঘটনা ঘটেনি। সকালের দিকে মুন্সীগঞ্জের উত্তরাঞ্চলে কিছু দোকান বন্ধ ছাড়া সবকিছুই স্বাভাবিক ছিল। শহর থেকে ঢাকার উদ্দেশে কোন বাস ছাড়েনি। তবে মুক্তারপুর ব্রিজের অপরপ্রান্ত চরমুক্তারপুর থেকে বাসগুলো স্বাভাবিক চলেছে। মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম জানান, জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে পুলিশ ৯ জনকে গ্রেফতার করে। এর মধ্যে আসাদ মিয়া (১৮), শরীফ হোসেন (২৮), চাঁন মিয়া (৪৫) ও মামুন মিয়া (২৫) নামের চার জনের বিরুদ্ধে বোমা বিস্ফোরণ, ইটপাটকেল নিক্ষেপ চেষ্টার অপরাধে পুলিশ বাদী হয়ে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেছে। ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কেও যানবাহন স্বাভাবিক চলেছে। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, বিএনপি’র মহাসমাবেশে যোগ দিতে গিয়ে ঢাকার সদরঘাটে পানিতে ডুবে মারা যাওয়া আকবর হোসেনকে মিরকাদিমের যুবদল নেতা দাবি করে এবং এজন্য আওয়ামী লীগকে দায়ী করে বিএনপি’র সকাল-সন্ধ্যা এই হরতালের ডাক দেয়।

দু’শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু এদিকে, সিরাজদিখান উপজেলার রামের খোলা গ্রামে পানিতে ডুবে রবিবার মনির হোসেন (৮) ও রাকিব (৫) নামের দু’শিশু পানিতে ডুবে মারা গেছে।
ধারণা করা হচ্ছে, বাড়ির পাশে খেলতে গিয়ে প্রথমে রাকিব পানিতে পড়ে যায়। পরে মনির তাকে তুলতে গিয়ে সেও পানিতে ডুবে। আশপাশের লোকজন বুঝতে পেরে উদ্ধার করে আনলেও তাঁদের আর বাঁচানো যায়নি।

জনকন্ঠ

———————————————————————

মুন্সীগঞ্জে বিএনপির ঢিলেঢালা হরতাল, ৩ নেতা গ্রেফতার

ঢাকার সদরঘাটে শ্রমিক লীগের ক্যাডারদের হামলায় যুবদল নেতা আকবর বেপারী হত্যার বিচারের দাবিতে তিন দিনের আন্দোলন কর্মসূচির শেষ দিনে গতকাল রোববার মুন্সীগঞ্জে বিএনপি আহূত হরতাল ঢিলেঢালাভাবে পালিত হয়েছে। জেলার বিএনপি অধ্যুষিত এলাকা ছাড়া সর্বত্র ছিল জীবনযাত্রা ছিল স্বাভাবিক। তবে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়ক বন্ধ করে দেওয়া হলে হরতালের চিত্র ফুটে ওঠে। বোমা বিস্টেম্ফারণ, রিকশা ভাংচুর, গাড়িতে ধাওয়া ও দলীয় নেতাকর্মীদের পিকেটিংয়ের মধ্য দিয়ে নির্দিষ্ট কিছু এলাকায় রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালিত হয়। হরতালে পিকেটিং করায় সাবেক তথ্যমন্ত্রী এম শামসুল ইসলামের অনুসারী তিন বিএনপি নেতাকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

মুন্সীগঞ্জ শহর ও শহরের বাইরে দলীয় নেতাকর্মীরা সকাল থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল বের করে। সাবেক তথ্যমন্ত্রী ও দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য এম শামসুল ইসলাম সমর্থিত গ্রুপ এবং জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাইয়ের সমর্থিতদের মধ্যে দ্বন্দ্ব থাকলেও দুই গ্রুপই হরতাল পালনে ছিল সক্রিয়। সকাল ৮টা থেকে শহরের উপকণ্ঠ মুক্তারপুর এলাকায় ষষ্ঠ বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু সংলগ্ন পুরাতন ফেরিঘাট এবং সেতুর পাদদেশে বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদল নেতাকর্মীরা গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দেয়। শহরের বাইরের পঞ্চসার ইউনিয়নের অভ্যন্তরীণ রোডগুলো দলীয় কর্মীদের ব্যারিকেডের মুখে অচল হয়ে পড়ে। এ সময় রিকশা আরোহীদের নাজেহাল করা হয়। কয়েকটি রিকশার চাকার হাওয়া ছেড়ে দেওয়া হয়। মুক্তারপুর এলাকার বিভিন্ন শতাধিক শিল্প প্রতিষ্ঠানে উৎপাদন বন্ধ থাকে। এখানকার মার্কেটগুলোর দোকানপাট সকাল ৬টা থেকে বন্ধ রাখা হয়। মুন্সীগঞ্জ শহরের বাইরে বজ্রযোগিনী এলাকার ভাঙ্গা মোড়ে বিএনপির পিকেটাররা ১২ থেকে ১৫টি রিকশা ভাংচুর করে। ন্যাশনাল ব্যাংকের টঙ্গীবাড়ি শাখার ম্যানেজার অফিসে যাওয়ার পথে পিকেটারদের তোপের মুখে পড়েন। এ সময় তার গাড়ি লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোড়ে কর্মীরা। এখান থেকে রামপাল ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি শফিকুল ইসলাম, সিনিয়র সহ-সভাপতি মীর মোঃ সেলিম ও সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান সাজুকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

জেলার গজারিয়া উপজেলার রসুলপুর ফেরিঘাট এলাকায় সাবেক তথ্যমন্ত্রীর অনুসারীরা মিছিল ও পিকেটিং করে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়।

অন্যদিকে জেলার শ্রীনগর উপজেলা বাজারে বিএনপিকর্মীরা পিকেটিং করতে গেলে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে যায়। পরে এখানে ছাত্রলীগের অর্ধশত কর্মী হরতালের বিপক্ষে মিছিল করে।

এদিকে জেলার লৌহজং, শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার ওপর দিয়ে যাওয়া ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক ও জেলার গজারিয়া উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক হরতালের আওতামুক্ত রাখা হলে ওই দুটি সড়ক হয়ে দূরপালল্গার সব যান চলাচল করে।

দেলোয়ারের প্রতিবাদ
সমকাল প্রতিবেদক জানান, আওয়ামী লীগের হামলায় মুন্সীগঞ্জ জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আকবর হোসেন নিহতের প্রতিবাদে হরতাল চলাকালে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার এবং পুলিশি নির্যাতনের নিন্দা জানিয়েছেন দলের মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন। গতকাল এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, গণতন্ত্র বিশ্বাস করে না বলেই আওয়ামী লীগ সরকার হামলা-মামলা এবং হত্যার মাধ্যমে জংলি শাসন প্রতিষ্ঠা করতে চায়।

বিবৃতিতে দেলোয়ার হোসেন দাবি করেন, মুন্সীগঞ্জে হরতাল চলাকালে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের ১৬ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশের ছত্রছায়ায় সরকারদলীয় নেতাকর্মীরা বিএনপির মিছিলে হামলা চালায়। এ ধরনের গ্রেফতার ও নিপীড়ন বাকশালী চরিত্রের নগ্ন বহিঃপ্রকাশ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

গ্রেফতারকৃতদের অবিলম্বে মুক্তি এবং তাদের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক আচরণ দেখানোর আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব।

এদিকে ছাত্রদলের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সংগঠনের নীলফামারী, গোপালগঞ্জ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, সৈয়দপুর ও গাইবান্ধা জেলা আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া রাঙামাটি জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়।

সমকাল
———————————————————————————–

মুন্সীগঞ্জে বিএনপির সর্বাত্মক হরতাল পালিত : গ্রেফতার ৮

খণ্ড খণ্ড মিছিলে পুলিশের বাধা এবং পিকেটিংয়ের অভিযোগে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের ৮ নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে মুন্সীগঞ্জে বিএনপির ডাকে গতকাল সর্বাত্মক হরতাল পালিত হয়েছে। হরতাল চলাকালে বেশিরভাগ দোকান বন্ধ ছিল, পুরো জেলায় গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ মোতায়েন ছিল। ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ ৫টি রুটে কোনো যাত্রীবাহী বাস চলেনি। তবে হরতালের আওতামুক্ত ঢাকা-মাওয়া এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে গজারিয়ায় দূরপাল্লার যান চলেছে।

সকালে জেলা বিএনপি সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাইয়ের নেতৃত্বে মুক্তারপুরে মিছিল শুরু হলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এ সময় যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি আবদুস সালাম আজাদ, জেলা বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম বাচ্চু, আবদুল কুদ্দুস ধীরেন, শাহজাহান খান, যুবদল নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন, আবদুস সালাম, সদর উপজেলা বিএনপি সভাপতি মোঃ মহিউদ্দিন, পঞ্চসার ইউপি চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা হাবিবুর রহমান তার সঙ্গে ছিলেন। ঢাকা-টঙ্গিবাড়ী সড়কে সিপাহীপাড়ায় মিছিল করার সময় রামপাল ইউনিয়ন বিএনপি সভাপতি শফিকুল ইসলাম শওকতকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত অন্যরা হলেন সেলিম, শাহজাহান, আল আমিন, মামুন, সাজন, কাজী কাওসার এবং শরিফ। সবাইকে ১৫১ ধারায় আদালতে চালান দেয়া হয়েছে।

মিরকাদিম পৌরসভা এলাকায় পৌর বিএনপি সভাপতি জসিম উদ্দিন, মফিদুল ইসলাম যাদু, জেলা শহর মুন্সীগঞ্জ পৌর বিএনপি সভাপতি একেএম ইরাদতমানু, আ: আজিম স্বপন, জাকির হোসেন মৃধা, শাহিন ও বকুলের নেতৃত্বে মিছিল হয়েছে।

টঙ্গিবাড়ীতে উপজেলা বিএনপি সভাপতি মনিরুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন দোলনের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত মিছিলে সরকারি দল সমর্থকরা এবং পুলিশ বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এদিকে হরতাল সফল করায় জেলা বিএনপি সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাই জেলাবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন এবং গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের অবিলম্বে মুক্তি দাবি করেছেন।

উল্লেখ্য, ঢাকায় বিএনপি মহাসমাবেশে যাওয়ার পথে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে ঘাট শ্রমিক লীগের হামলায় মিরকাদিম পৌর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আকবর হোসেন হত্যার প্রতিবাদে বিএনপির ৩ দিনব্যাপী কর্মসূচির শেষ দিনে পুরো জেলায় হরতাল পালিত হয়।

আমার দেশ
——————————————————

[ad#co-1]

Leave a Reply