রূপনগরের রাজকন্যা

নজরুল একাডেমী এবারের নজরুল জয়ন্তীতে বিশেষ সম্মাননা দিয়েছে ফেরদৌসী রহমানকে। তাঁকে নিয়ে লিখেছেন ইমদাদুল হক মিলন
মাঝেমধ্যেই স্মৃতির ভেতরে গান গেয়ে ওঠেন মধুকণ্ঠী এক মহান শিল্পী। ‘পদ্মার ঢেউ রে, মোর শূন্য হৃদয় পদ্ম নিয়ে যা, যা রে…’। তাঁর নামের সঙ্গে তখনো ‘রহমান’ যুক্ত হয়নি। তিনি তখন ফেরদৌসী বেগম। ১৯৬২-৬৩ সালের কথা। আমার আব্বা একটা রেডিও কিনলেন। ‘মারফি’ কম্পানির রেডিও। আমি বিক্রমপুরের মেদিনীমণ্ডল গ্রামে নানির কাছে থাকি। ঈদের ছুটিতে গ্রামে এসেছেন আব্বা। সঙ্গে মারফি রেডিও। তখন কোনো বাড়িতে রেডিও থাকা মানে বিশাল ব্যাপার! পুরো পাড়া ভেঙে পড়ল আমাদের বাড়িতে। বাড়ির উঠোনে চেয়ার পেতে রাখা হলো রেডিও। আব্বা নব ঘুরিয়ে অন করলেন। সঙ্গে সঙ্গে শুরু হলো এক মধুকণ্ঠীর গান ‘পদ্মার ঢেউ রে…’।

আব্বা বললেন, ‘এটা ফেরদৌসী বেগমের গান। তিনি হচ্ছেন আব্বাসউদ্দীন আহমদের মেয়ে।’

উঠোনভর্তি মানুষ মুগ্ধ-বিস্ময়ে গান শুনতে লাগল। আমি দাঁড়িয়ে আছি সেই ভিড়ের মধ্যে। গান শুনছি। মানুষের কণ্ঠ এত মধুর হতে পারে?

তারপর শুরু হয়েছিল আমার ঢাকার জীবন। ফেরদৌসী বেগম তত দিনে ফেরদৌসী রহমান হয়ে গেছেন। খবরের কাগজে তাঁর ছবি দেখি, টেলিভিশনে তাঁর গানের অনুষ্ঠান দেখি। ছোটদের জন্য গান শেখার অনুষ্ঠান করেন টিভিতে ‘এসো, গান শিখি’। মুগ্ধ হয়ে ফেরদৌসী রহমানকে শুনি।

একজন মানুষ এত দিক দিয়ে সুন্দর হন কী করে? এত সুন্দর, অসাধারণ গান করেন। দেখতে এত সুন্দর। কথা বলেন কী মিষ্টি-মধুর করে। আর হাসি? প্রতি কথায় হাসেন, তাঁর হাসিতে মুহূর্তে আলোকিত হয়ে যায় চারদিক। আর ফেরদৌসী রহমানের কখনোই বয়স বাড়ে না। তিনি চিরকাল রয়ে গেলেন ‘১৮ বছর বয়সে’।

বড় হয়ে উঠছি, স্কুল-কলেজের সীমানা ছাড়াচ্ছি আর প্রতিদিনই যেন নতুন করে আবিষ্কার করছি ফেরদৌসী রহমানকে। একটার পর একটা দুর্দান্ত আধুনিক গান গাইছেন। সিনেমায় গাওয়া তাঁর গানগুলো মানুষের মুখে মুখে। নজরুলগীতি গাইছেন, উর্দু গান গাইছেন। ‘রাজধানীর বুকে’ ছবির সংগীত পরিচালনা করলেন। আর ভাওয়াইয়া! ‘ও কি গাড়িয়াল ভাই…’। বাংলা সংগীতে ফেরদৌসী রহমানের অসংখ্য গানের কোনো তুলনা মিলবে না। ওসব গান ফেরদৌসী রহমানেরই গান। ফেরদৌসী রহমানের তুলনা শুধুই ফেরদৌসী রহমান। রবীন্দ্রনাথের ভাষায়, ‘তোমার তুলনা তুমি’।

একটা অনুষ্ঠান করতাম এনটিভিতে। ‘কী কথা তাহার সাথে’। ফেরদৌসী আপা এলেন সেই অনুষ্ঠানে। অনেক কথার মাঝখানে আমি হঠাৎ তাঁকে জিজ্ঞেস করলাম, আপনি সব সময় এক রকম। আপনার কখনো বয়স বাড়ে না। রহস্যটা কী?

আপা তাঁর সেই স্নিগ্ধ হাসিটি হাসলেন। কোনো রহস্য নেই ভাইয়া। তবে ছোটবেলা থেকে একটা জিনিসই আমি মেনে চলেছি, সব সময় হাসিমুখে থাকা। এ ছাড়া আর কখনোই কিছু ভাবিনি।

কণ্ঠের মতোই তাঁর রুচি, ব্যক্তিত্ব এবং গুছিয়ে কথা বলা_সব মিলিয়ে ফেরদৌসী রহমান দীর্ঘকাল ধরে তাঁর নিজের জায়গাটিতে বসে আছেন। নিজেকে কিভাবে কিংবদন্তিতে রূপান্তর করতে হয় ফেরদৌসী আপার দিকে তাকালেই তা বোঝা যায়।

কোনো কোনো মানুষ আছেন সামান্য লেখালেখির মধ্য দিয়ে তাঁদের সম্পূর্ণ কৃতিত্ব তুলে ধরা যায় না। তাঁরা হচ্ছেন হিমালয়ের মতো। বহু বহুদূর থেকে দেখা যায়, কাছাকাছি দাঁড়ালে চোখ যতটা সম্ভব উপর দিকে তুলেও তাঁর পুরোটা দেখা যায় না। ফেরদৌসী আপা তেমন এক হিমালয়।

তাঁর জনপ্রিয় গানের একটির কথা এই মুহূর্তে খুব বলতে ইচ্ছে করছে।

‘আমি রূপনগরের রাজকন্যা রূপের জাদু এনেছি / ইরান তুরান পার হয়ে আজ তোমার দেশে এসেছি।’

আমরা ভাগ্যবান যে ফেরদৌসী রহমান আমাদের দেশে জন্মেছেন। ইরান তুরানে না পাঠিয়ে পরম করুণাময় তাঁকে আমাদের দেশে পাঠিয়েছেন।

ফেরদৌসী আপা, আপনাকে আমার শ্রদ্ধা, ভালোবাসা।

[ad#co-1]

Leave a Reply