অসুস্থ আবদুর রহমান বয়াতীর খবর রাখে না কেউ

সমুদ্র নিলয়
মন আমার দেহঘড়ি সন্ধান করি কোন মিস্তরী বানাইয়াছেঃ
কে জানত, নিজের দেহঘড়ির সময় মেলাতে একদিন এভাবেই হিমশিম খেতে হবে দেশের খ্যাতনামা বয়াতী আবদুর রহমানকে? এখন বিছানার সঙ্গেই নিত্যদিনের সখ্য এই মানুষটার। ঠিকমতো চলাফেরা করা তো দূরের কথা, দু’চোখ ভরে ঠিকমতো দেখতেও পারেন না চারপাশের পৃথিবীটাকে। বাম পা আর হাতটা একেবারেই অবশ হওয়ার পথে। আর্থিক দৈন্যদশায় বন্ধ আছে ডাক্তারের পরামর্শের ফিজিওথেরাপি। খরচ কমাতে দামি ওষুধের বদলে খেতে হচ্ছে কমদামি সাবস্টিটিউট। চোখের ডাক্তার যে অপারেশনটা করাতে বলেছিল সেটিও করানো যাচ্ছে না। তাতেও দরকার প্রায় অর্ধলক্ষাধিক টাকা। এত টাকা আসবে কোথা থেকে! দিনদিন ক্ষীণ হয়ে যাচ্ছে দৃষ্টিশক্তি। মানুষকে অযথাই বিশ্বাস করার একটা ভুলের কারণে মারাÍক মাশুল গুনতে হয় তাকে ২০০৩ সালের দিকে। রাজধানীর নারিন্দায় নিজ বাড়ি বিক্রি করে ভুলের মাশুল দিয়ে আশ্রয় নেন মাতুয়াইলের মৃধাবাড়ি এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে। সে বাড়ির মালিকও গত ক’মাস আগে বকেয়া ভাড়া দেয়ার অপারগতায় মালপত্র আটকে রেখে বাড়ি ছাড়তে বাধ্য করে বয়াতীর পরিবারকে।

একই এলাকায় ছোট একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে মেজ ছেলে আলীমকে অবলম্বন করে আবদুর রহমান বয়াতীর বর্তমানে অসহায় জীবনযাপন করছেন। তিন ছেলে এক মেয়ের মধ্যে বড় আর ছোট ছেলেটা থেকেও নেই। বাবার শারীরিক অসুস্থতার এই দুর্দিনে খোঁজও নেয় না তাদের কেউ, অস্পষ্ট স্বরে এটুকু বলেই কেঁদে উঠলেন রহমান বয়াতী। পাশ থেকে মেজ ছেলে আলীম বাবার হাত ধরে বলে উঠলেন, ‘তারা ভয় পায়, আব্বা যদি আবার ওষুধের জন্য টাকা চাইয়া বসে! আমি তো আর আব্বারে এই অবস্থায় ফালায়া দিতে পারি না। তাই যতদিন আব্বা বাঁইচা আছেন, আমি তার সঙ্গেই থাকব।’ আর্থিক টানাপোড়েনে প্রচণ্ড মানসিক চাপ থেকে স্ট্রোক করেছিলেন রহমান বয়াতী। ফলাফল হিসেবে পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে চলৎশক্তি হারিয়ে ফেলেন তিনি। দিনদিন চিকিৎসার অভাবে যখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে, এগিয়ে আসে চ্যানেল আই কর্তৃপক্ষ।

বয়াতী পুত্র আলীম পাশ থেকে বলে উঠলেন, ‘চ্যানেল আই আব্বার জন্য ২০০৮ থেকে ২০১০ এই দুই বছর যা করছে তা না করলে আব্বা বাঁচতেন না। কিন্তু একজনের পক্ষে কতটুকুইবা করা সম্ভব?’ অনেকেই নানা সময় এ পরিবারকে নানা আশ্বাস দিয়েছেন। খালি কথায় কি আর চিড়া ভেজে। বয়াতীর হাতেরপাঁচ মেজ ছেলে আলীম বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে কোনও মতে অর্থ উপার্জন করে টানছেন সংসারের ঘানি। কোনও একটা চাকরি জুটে গেলে ও কোনও মতে বাবার চিকিৎসাটা চালিয়ে নিতে পারতেন বলে আক্ষেপ বয়াতী পুত্রের। কথার অবসরে মাঝে মাঝই ডুকরে কেঁদে উঠছিলেন বয়াতী রহমান। আবদুর রহমান বয়াতীর চোখ থেকে গড়িয়ে পড়া অশ্র“বিন্দুটি যেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশ-দেশান্তরে ছড়িয়ে থাকা তার ভক্ত-শ্রোতার কাছে জীবন ভিক্ষা চাওয়ার মর্মন্তুদ অনুরোধ।

[ad#co-1]

Leave a Reply