বালুমহালে টাকা আনতে গিয়ে হামলায় ছাত্রলীগ নেতা নিহত

তানভীর হাসান, মুন্সিগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় ধলেশ্বরী নদীতে বালুমহালের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে গতকাল রোববার ভোরে প্রতিপক্ষের হামলায় ছাত্রলীগের এক নেতা নিহত হয়েছেন। নিহত ব্যক্তি হলেন শহর ছাত্রলীগের সহসভাপতি আল মামুন মণ্ডল (২৫)। আহত হয়েছেন একই সংগঠনের অপর এক নেতাসহ পাঁচজন। এ ঘটনায় পুলিশ গোলাপ হোসেন নামের একজনকে আটক করেছে।

মামুন মুন্সিগঞ্জ লঞ্চঘাটের কাছে মোল্লারচরে অবস্থান করে চারটি বালুমহালের টাকা সংগ্রহ করতেন। এ বালুমহালের অন্যতম ইজারাদার ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, ‘আমাদের ছেলেরা বালু দিয়ে টাকা সংগ্রহের সময় নারায়ণগঞ্জের চান মিয়ার লোকজন তাঁদের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। এতে মামুনের মৃত্যু হয়।’

চান মিয়া এ অভিযোগ অস্বীকার করেন। তবে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদুল ইসলাম জানান, চান মিয়ার লোকজন এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত বলে প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে।

এদিকে ছাত্রলীগের নেতাকে হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা সকাল ১০টার দিকে শহরে বাসসহ কয়েকটি যানবাহন ভাঙচুর করেন। তাঁরা সকাল সাড়ে নয়টায় শহরে প্রথম দফায় ও দুপুর একটায় মামুনের লাশ নিয়ে দ্বিতীয় দফায় মিছিল করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল ভোর সাড়ে চারটার দিকে মুন্সিগঞ্জ লঞ্চঘাটের কাছে মোল্লারচরে একটি ট্রলারে ছাত্রলীগের নেতা মামুনসহ ছয়জন অবস্থান করছিলেন। এ সময় তিনটি ট্রলারযোগে ৩০-৩৫ জন লোক রড ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে এসে তাঁদের ঘিরে ফেলেন। তাঁরা মামুন ও তাঁর সঙ্গীদের রড দিয়ে পেটাতে শুরু করেন। পিটুনির পর তাঁরা মামুনকে নদীতে ফেলে দিয়ে চলে যান। পরে আহত সঙ্গীরা মামুনকে উদ্ধার করে প্রথমে মুন্সিগঞ্জের একটি ক্লিনিকে ও পরে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মামুনকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত মামুনের বাড়ি শহরের দেওভোগ এলাকায়। তাঁর বাবার নাম শামসুল হক মণ্ডল। তাঁরা দুই ভাই এক বোন। মামুন ছিলেন পরিবারের বড় ছেলে।

আহত ব্যক্তিরা হলেন শহর ছাত্রলীগের অপর সহসভাপতি সুমন মিয়া (২৬) এবং বালুমহালের কর্মী আওলাদ (৪০), খসরু (৪০), ইসমাইল (৩৫) ও কালাম (৪০)। এঁদের মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ছাত্রলীগের বিক্ষোভ, ভাঙচুর: প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, মামুনের হত্যার খবরে শহরে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। তাঁরা সকাল সাড়ে নয়টার দিকে শহরে একটি মিছিল বের করেন। সকাল ১০টার দিকে মাছ বাজারসংলগ্ন সড়কে দুটি বাস ও একটি টেম্পো ভাঙচুর করেন ক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা।

মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে মামুনের লাশের ময়নাতদন্ত শেষ হলে দুপুর একটার দিকে তাঁর মরদেহ নিয়ে শহরে মিছিল করেন ছাত্রলীগ, যুবলীগের নেতা-কর্মীরা। মিছিল শেষে প্রতিবাদ সভায় হত্যাকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানানো হয়। পরে মামুনের লাশ তাঁর বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হলে মা-বাবা, ভাই-বোন ও আত্মীয়রা কান্নায় ভেঙে পড়েন। মামুনের বাবা শামসুল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমার ছেলে বালুমহালে চাকরি করে। প্রতিদিনের মতো আজও (রোববার) দায়িত্ব পালন করতে গিয়েছিল। আজ লাশ হয়ে ফিরল। আমি এর বিচার চাই।’

আহত সুমন মিয়া অভিযোগ করেন, ‘নারায়ণগঞ্জের মদনগঞ্জের চান মিয়ার সন্ত্রাসীরা মোল্লারচরে আমাদের ওপর হামলা করে। পেটানোর পর তারা আমাদের কাছ থেকে প্রায় এক লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়।’ সুমন জানান, তাঁরা ছয়জনই টাকার বিনিময়ে এই বালুমহালে কাজ করতেন। মাস শেষে তাঁদের টাকা দেওয়া হতো।

মুন্সিগঞ্জ শহর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন বলেন, মামুন সংগঠনের একজন সক্রিয় সহসভাপতি ছিলেন।

মুন্সিগঞ্জের বালুমহাল ইজারাদারদের অন্যতম ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, ‘চান মিয়া মদনগঞ্জে বালুমহালের ইজারা নিলেও তিনি বালু উত্তোলন করতে মুন্সিগঞ্জে চলে আসেন। আমরা এ বিষয়টি জেলা প্রশাসককে একাধিকবার জানিয়েছি। তার পরও তাঁরা মুন্সিগঞ্জে ঢুকে বালু কেটে চলেছেন।’

মদনগঞ্জ বালুমহালের ইজারাদার চান মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমার লোকজন হামলা করেছে বলে যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমি আমার মৌজায় বালু কাটি। মুন্সিগঞ্জে যাই না।’ তিনি পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, ‘মদনগঞ্জ মহালটি ইজারা নেওয়ার পর থেকেই মুন্সিগঞ্জের ইজারাদারদের লোকজন আমাদের পেছনে লেগে আছে।’
সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম জানান, মদনগঞ্জের বালুমহালের কাছ থেকে একজনকে আটক করা হয়েছে। তবে ওই ঘটনায় গতকাল রাত আটটা পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি।

জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম বলেন, চান মিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

লাশ দাফন: গতকাল বাদ আসর মুন্সিগঞ্জ ঈদগাহ মাঠে জানাজা শেষে মামুনের লাশ দেওভোগ কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। জানাজার আগে যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মো. ফয়সাল অভিযোগ করেন, পুলিশ যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন না করায় এ ঘটনা ঘটেছে। তিনি হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানান। এ সময় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হাসানুল ইসলাম ছাত্রলীগের নেতা মামুনের হত্যাকারীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিয়ে সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান।

পুলিশ সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেছে উল্লেখ করে পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, পুলিশ সব সময় বালুমহালে থাকতে পারে না। হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি গুরুত্বে সঙ্গে নিয়ে এগোনো হচ্ছে।

প্রথম আলো31-05-2010
—————————————————————-
মুন্সীগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলায় ছাত্রলীগ নেতা নিহত

লাশ নিয়ে বিক্ষোভ, ঘাতকদের শাস্তি দাবি

মুন্সিগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীতে বালু মহালে টোল সংগ্রহ করতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের হামলায় মুন্সিগঞ্জ শহর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মোঃ মামুন (২৬) নিহত হয়েছেন। এ সময় আওলাদ হোসেন, খসরু, সুমন, ইসলাম, আলম ও মাঝি আয়নাল হক গুরুতর আহত হন। তাদেরকে মুন্সিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। গতকাল রবিবার ভোর ৫টার দিকে পশ্চিম মুক্তারপুরের ধলেশ্বরী নদীতে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের বাড়ি শহরের দেওভোগ গ্রামে। তার বাবা মোঃ শামসুল হক স্থানীয় জনতা ব্যাংকে চাকরি করেন। এই ঘটনায় পুলিশ নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার ইসলামপুর গ্রামের গোলাপকে (৪৫) গ্রেফতার করেছে।

নৃশংস এই হত্যার প্রতিবাদে সকালে শহরে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বিক্ষুব্ধ কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলকারীরা শহরের কাচারী এলাকায় কয়েকটি স্কুটার ও ঝিলিক পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ভাঙচুর করে। পরে লাশ নিয়ে শহরে মিছিল বের করে এবং ডিসি অফিস ঘেরাও করে। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে শহরের অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম জানান, বন্দরের মদনগঞ্জ মৌজার চান মিয়া ও মুন্সিগঞ্জের ভুঁইয়া এন্টারপ্রাইজের বালুমহাল ইজারাদার দুই পক্ষের মধ্যে মহাল নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ভুঁইয়া এন্টারপ্রাইজের মালিক সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফছার উদ্দিন ভুঁইয়া বলেন, গত পহেলা বৈশাখ থেকে চান মিয়া গং আমাদের মুন্সিগঞ্জের বালুমহালে প্রবেশ করে জোরপূর্বক বালু উত্তোলন করে আসছিল। এতে প্রশাসনের সহযোগিতায় কয়েকদফা বাধা দিলেও কার্যকর হয়নি। গত রবিবার ভোরে আমাদের মহালের ৫-৭ জন টোল আদায়কারী ট্রলারযোগে টোকেন দিয়ে টাকা আদায় করছিল। এ সময় মদনগঞ্জের চান মিয়া গ্রুপের ফারুকের নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জনের একটি সন্ত্রাসী দল হামলা চালায়। এ সময় মামুন মারাত্মক জখম হয়, তাকে স্থানীয় ক্লিনিকে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করে।

এ দিকে নিহত মামুনের বাবা মোঃ শামসুল হক বলেন, শনিবার রাত আড়াইটায় আমার ছেলেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কে বা কারা ডেকে নিয়ে যায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

বিকালে কালেক্টরেট ভবনের সামনের মাঠে মামুনের জানাজা শেষে দেওভোগস্থ গোরস্থানে দাফন করা হয়। জানাজার আগে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মহিউদ্দিন বলেন, হত্যাকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। পেটের দায়ে ছাত্রলীগের এই কর্মী কাজে গিয়েছিল বলে তিনি জানান।

ইত্তেফাক, 31-05-2010

————————————————————–
নিজ দলের সন্ত্রাসী হামলায় ছাত্রলীগ নেতা মামুন নিহত

মুন্সিগঞ্জ ধলেশ্বরী নদীতে বালুমহালে টোল সংগ্রহ করতে গিয়ে একই দলের সন্ত্রাসীদের হামলায় মুন্সিগঞ্জ শহর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মো. মামুন (২৬) নিহত হয়েছে। এই সময় মুন্সিগঞ্জের আওলাদ হোসেন, খসরু, সুমন, ইসলাম, আলম ও মাঝি আয়নাল হক গুরুতর আহত হয়। তাদের মুন্সিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। গত রোববার ভোর ৫টার দিকে পশ্চিম মুক্তারপুরের ধলেশ্বরী নদীতে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের বাড়ি শহরের দেওভোগ গ্রামে। এই ঘটনায় পুলিশ নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার ইসলামপুর গ্রামের গোলাপকে (৪৫) গ্রেপ্তার করেছে। নৃশংস এই হত্যার প্রতিবাদে রোববার সকালে শহরে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বিক্ষুব্ধ কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলকারীরা কাচারি এলাকায় কয়েকটি স্কুটার ও ঝিলিক পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ভাঙচুর করে। পরে লাশ নিয়ে শহরে মিছিল বের করে ডিসি অফিস ঘেরাও করে। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে শহরের অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম জানান, বন্দরের মদনগঞ্জ মৌজার চান মিয়া ও মুন্সিগঞ্জের ভূইয়া এন্টারপ্রাইজের বালুমহাল ইজারাদার দুই পক্ষের মধ্যে মহাল নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ভূইয়া এন্টারপ্রাইজের মালিক মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফছার উদ্দিন ভূইয়া বলেন, গত পহেলা বৈশাখ থেকে চান মিয়া গং আমাদের মুন্সিগঞ্জের বালুমহালে প্রবেশ করে জোরপূর্বক বালু উত্তোলন করে আসছিল। এতে প্রশাসনের সহযোগিতায় কয়েকদফা বাধা দিলেও কোন কাজ হয়নি। গত রোববার ভোরে আমাদের মহালের ৫-৭ জন টোল আদায়কারী ট্রলারযোগে টোকেন দিয়ে টাকা আদায় করছিল। এ সময় মদনগঞ্জের চান মিয়া গ্রুপের ফারুকের নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জনের একটি সন্ত্রাসী দল এই হামলা চালায়। এ সময় মুন্সিগঞ্জ শহর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মো. মামুন মারাত্মক জখম হয়, তাকে স্থানীয় ক্লিনিকে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করে। এছাড়া আরও ৬জন আহত হয়।

সংবাদ
31-05-2010
——————————————————————–
মুন্সীগঞ্জে সংঘর্ষে ছাত্রলীগ নেতা নিহত

মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীর বালুমহালের কর্তৃত্ব নিয়ে সংঘর্ষে সরকার সমর্থক ছাত্রলীগের এক নেতা নিহত হয়েছে। রোববার ভোরের সংঘর্ষে নিহত মোহাম্মদ মামুন (২৫) ছাত্রলীগের মুন্সীগঞ্জ শহর শাখার সহসভাপতি ছিলেন। শহরের দেওভোগ এলাকার শামসুল হকের ছেলে তিনি। ঘটনার প্রতিবাদে জেলা শহরে ছাত্রলীগ মিছিল করে। মিছিল থেকে কয়েকটি গাড়িও ভাংচুর হয়।

সদর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এই ঘটনায় পুলিশ নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের গোলাপকে (৪৫) গ্রেপ্তার করেছে।

বালুমহালের টাকা ওঠানোকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জের ইজারাদারের সমর্থকদের মধ্যে ভোর ৪টার দিকে নদীতে ওই সংঘর্ষ হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়।

মামুনের বন্ধু রনি ও সোহেল সাংবাদিকদের জানান, তারা আটজন একটি ট্রলারে মুন্সীগঞ্জের ইজারাদারের পক্ষে বালুমহালের টাকা আদায় করছিলেন। ভোর ৪টার দিকে নারায়ণগঞ্জের ইজারাদারের পক্ষের লোকজন একটি ট্রলারে করে এসে তাদের ওপর হামলা চালায়।

প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত মামুন ট্রলার থেকে নদীতে পড়ে যায় বলে রনি জানান। তাকে নদী থেকে তুলে সকাল ৬টার দিকে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা জানান, মামুন মৃত।

সংঘর্ষে আহত কামাল (৩৮), ইসমাইল (২৬), খসরু (৫৫) ও সুমন (২৮) আওলাদ হোসেনকে (৪৮) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ওসি শহিদুল জানান, বালু মহালের আধিপত্য নিয়ে দুই ইজারাদার নারায়ণগঞ্জ বন্দরের উপজেলার মদনগঞ্জ এলাকার চাঁন মিয়া ও মুন্সীগঞ্জের ভূঁইয়া এন্টারপ্রাইজের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। তা অবসানে বেশ কয়েকবার বৈঠকও হয়।

রোববার সংঘর্ষের খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয় বলে তিনি জানান।

মামুনের মৃত্যুর পর সকাল ১০টার দিকে জেলা শহরে মিছিল বের করে ছাত্রলীগ। মিছিলকারীরা শহরের কাছারী এলাকায় কয়েকটি অটো রিকশা এবং টেম্পু ভাংচুর করে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে।

ভাংচুরের পর শহরের পুরনো কাছারী থেকে সুপার মার্কেট পর্যন্ত সব দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়।

দুপুরে ময়না তদন্তের পর লাশ নিয়ে ছাত্রলীগ আবার শহরে মিছিল বের করে। বিকালে শহরের ঈদগাহ মাঠে জানাজার পর দেওভোগ কবরস্থানে মামুনের লাশ দাফন করা হয়।

জানাজায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ মহিউদ্দিনসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

রাত পৌনে ৮টায় পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, শহরের পরিস্থিতি স্বভাবিকের দিকে এখন। গাড়ি চলাচল করছে। এই ঘটনায় মুন্সীগঞ্জ থানায় মামলা হবে।

বালুমহালের ইজারাদার ভূঁইয়া এন্টারপ্রাইজের মালিক মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফছার উদ্দিন ভূঁইয়া দাবি করেন, গত পহেলা বৈশাখ থেকে চাঁন মিয়া তার ইজারা নেওয়া মুন্সীগঞ্জের বালুমহালে ঢুকে বালু উত্তোলন করে আসছিল। প্রশাসনের সহযোগিতায় কয়েক দফা বাধা দিলেও তারা বালু উত্তোলন বন্ধ করেনি।

তিনি অভিযোগ করেন, চাঁন মিয়ার লোক ফারুকের নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জনের একটি দল এই হামলা চালায়।

অভিযোগ অস্বীকার করে চাঁন মিয়া বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তিনি বা তার লোকজন জড়িত নয়।

ঘটনার সময় তার কোনো লোক সেখানে ছিল না দাবি করে তিনি বলেন, “আমি ব্যবসা করি কোনো দল করি না।”

বিডি নিউজ 24 = 30-05-2010

[ad#co-1]

Leave a Reply