ছোট হয়ে আসছে মেঘনা

মেঘনা নদী ক্রমশ ছোট হয়ে আসছে। ভূমিদস্যুরা মেঘনা দখল করে পানি ভর্তি নদীকে ভরাট করে বালুভূমিতে পরিণত করার লড়াইয়ে নেমেছে। মেঘনায় প্রখর স্রোত ছিল। ঢেউ আছড়ে পড়তো গ্রামের পারে। বর্তমানে মেঘনা যেখানে প্রবাহিত হচ্ছে একদা সেখানে ছিল গ্রাম, মানুষের বাস। নদী তীরবর্তী সংগ্রামী মানুষরা সর্বনাশা মেঘনার সঙ্গে যুদ্ধ করে বেঁচে আছেন।

প্রতি বছরই মেঘনা নতুন নতুন এলাকা ভাঙছে, জাগছে চর। বাস্তভিটা হারা গ্রামবাসী বুকভরা স্বপ্ন নিয়ে সংসার বাঁধে নতুন চরে। এ মেঘনা নদীতে মাছ শিকার করে ১০ হাজার পরিবার তাদের জীবিকা নির্বাহ করছে। কষকদের ফসলি জমি আজ মেঘনার ১শ ফুট গভীরে। গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দি ইউনিয়নের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘনা সেতু থেকে মাত্র ৫শ’ ফুট দক্ষিণ থেকে মেঘনার ত্রিমোহনা পর্যন্ত পশ্চিম বাহেরচর, চর বেতাকী ও আশ্রাবদি মেওজার নদী ১শ’ ফুট পানির নিচে বিকিকিনি হচ্ছে। দেশের বড় বড় কোম্পানীগুলো মেঘনা নদী দখল করে নিচ্ছে। পানির নিচের জমি পানির দরেই বেচাকেনা হচ্ছে। নদী ভাঙনে হারিয়ে যাওয়া জমি গ্রামবাসীরা কোম্পানির কাছে বিক্রি করে দিচ্ছে। নদীর পারে প্রতি শতাংশ জমির মূল্য ৫০/৬০ হাজার টাকা হলেও নদীর তলদেশের জমি বেচাকেনা হচ্ছে ১০/১২ হাজার টাকা শতাংশ। ৩০/৪০ বছর আগে মেঘনায় বিলীন চর বেতাকী, আশ্রাবদি, বাহেরচর মৌজার কয়েক হাজার একর ফসলি জমি বসত ভিটার চিহ্ন খুঁজে পাওয়া না গেলেও গজারিয়া উপজেলার ভূমি রেকর্ডে এবং কাগজপত্রে উল্লেখ আছে ঠিকই। মেঘনার হোসেন্দি, ইসমানির চর, গোয়ালগাঁও ও ডুবোচর গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে গ্রামের পাশ ঘেঁষে বয়ে চলেছে মেঘনা। নদীর ৮০ থেকে ১০০ ফুট পানির নিচে গ্রামবাসীর ফসলি জমি। গজারিয়ার ভূমি অফিসের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতাদের যোগসাজশে এই জমি বিকিকিনি হচ্ছে। কাগজে কলমে রেকর্ডে জমি থাকলেও বাস্তবে সেখানে বইছে উত্তাল মেঘনা। জেলে রমেশ চন্দ্র, বিমল রায় ও চন্দ্র শেখর বলেন, ‘মেঘনায় মাছ ধরে আমরা সংসার চালাই, এ মেঘনা দখল হয়ে গেলে আমরাতো বেকার হইযা যাইমু, আমরা কি করে চলমু, কি খামু’। গজারিয়া উপজেলার ভূমি কর্মকর্তা মো. সাহাদাত হোসেন জানান, কাগজ কলমে রেকর্ড থাকা সম্পত্তি বেচাকেনা হলে রেজিস্ট্রি করা বৈধ। কোথায় নদী, কোথায় সাগর তা আমাদের দেখার বিষয় নয়। সিএস এসএ পর্চা ও খতিয়ানের উল্লেখ থাকলেই জমি বেচাকেনা ও রেজিস্ট্রি হবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply