গজারিয়া স্বাস্থ্য কমপ্রেক্স ৫০ শয্যায় উন্নীত হলেও সুবিধা বাড়েনি

মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ ॥ গজারিয়া উপজেলাস্থ ভবেরচর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৫০ শয্যায় উন্নীত হয়েছে পয়লা জুন। কিন্তু অবকাঠামো ছাড়া আর কোন সুবিধাই বাড়েনি। জনবল ও যন্ত্রপাতি বৃদ্ধি না হওয়ায় এর সুবিধা সঠিকভাবে প্রয়োগ করা যাচ্ছে না বলে জানান উপজেলা চেয়ারম্যান রেফায়েতউল্লাহ খান তোতা। পর্যায়ক্রমে তা ফুলফিল করা হবে আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে এই স্বাস্থ্য কমপেস্নঙ্টির অবস্থান হওয়ায় নানা জরুরী পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়। কিন্তু তা মোকাবেলার জন্য এ হাসপাতালের আরও আধুনিকায়ন জরম্নরী।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. বিজন কুমার দাস জানান, ৫০ শয্যার প্রথম দিনে মঙ্গলবার এখানে বহির্বিভাগে ২৭৪ রোগী চিকিৎসা নেন। এর মধ্যে মহিলা ১২৭, শিশু ৬৪ এবং পুরম্নষ ৮৩৮ রোগীর সংখ্যা ৮৩। আর ইনডোরে ভর্তি ছিলেন ৩২ জন। তিনি জানান, কাগজে কলমে এই শয্যা বাড়লেও এখন পর্যনত্ম বেড আসেনি। তবে এখন থেকে ৫০ জন রোগীর পর্যনত্ম খাবার দেয়া যাবে। গড়ে তিন শ’ রোগী এখানে চিকিৎসা নেয় আউটডোরে। আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. মোঃ লিয়াকত আলী খান জানান, এখানে এতদিন গড়ে ১শ’ ৫ শতাংশ রোগী অথর্াৎ ৩৫ জন রোগী ভর্তি থাকেন। তবে এখন ৩১ থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত হওয়ায় রোগী বাড়বে।

এঙ্-রে টেকনিশিয়ান প্রায় ৭ মাস আগে হৃদরোগে আক্রানত্ম হয়ে মারা যান। এর পর থেকে এঙ্-রে বিভাগ বন্ধ রয়েছে। দীর্ঘ সময় ধরে এঙ্-রে টেকনিশিয়ান না থাকায় মূল্যবান এঙ্-রে মেশিনটি নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ইসিজি মেশিন আছে। কার্ডিওলজিস্ট বা এই মেশিন চালানোর মতো লোক নেই। নেই মেডিসিন কনসালটেন্টও। ১৫ জনের স্থলে নার্স আছে মাত্র ৬ জন। তাই স্বাভাবিক স্বাস্থ্যসেবা দেয়া এখানে কঠিন।

সমৃদ্ধ ল্যাবরেটরি নেই। নেই প্যাথলজিস্ট। তাই রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা নিয়ে নানা জটিলতার সৃষ্টি হয়। এখানে এ্যাম্বুলেন্স অতি জরম্নরী। প্রায়ই সড়ক দুর্ঘটনায় এ্যাম্বুলেন্সের অভাবে অনেক মুমূর্ষু রোগী উন্নত চিকিৎসার অভাবে মারা যাচ্ছেন।

৩টি আধুনিক শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ওটি হয়েছে। কিন্তু ওটি লাইট ও টেবিলসহ অন্য সরঞ্জামাদি ও জনবল নেই। তাই এখানে কোন অপারেশন করা যাচ্ছে না। এখানে কোন বস্নাড ব্যাংকও নেই। এখানে এনেস্থেশিয়ার মেশিন এসেছে ঠিক, কিন্তু এটি ব্যবহার করার টেকনিশিয়ান না থাকায় বাঙ্বন্দী অবস্থায় রয়েছে। এখানে ডেন্টাল চেয়ার আছে, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি নেই। তবে উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুদানে কিছু যন্ত্রপাতি দিয়ে দাঁতের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
এখানে চিকিৎসকের পদ ২০ জন। তবে ১৩ জন এখন কর্মরত। এদিকে মেডিক্যাল অফিসার রিংকু বিশ্বাস গত ৭ ডিসেম্বর থেকে ৬ মাস ধরে অনুমতি ছাড়াই কর্মস্থলে অনুপস্থিত।

মহাসড়কের পাশে হওয়ার কারণে নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়। সমাজসেবার বিভাগ না থাকায় বিপদগ্রসত্ম অবস্থায় মুমূর্ষু রোগীকে চিকিৎসা দেয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। মেডিক্যাল অফিসার আসাদুর রহমান জানান, অনেক সময় বিত্তশালী লোকও দুর্ঘটনায় পড়েন। কিন্তু ঐ অবস্থায় তাঁকে এ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় পাঠানোও কঠিন হয়ে পড়ে অর্থের অভাবে। অনেক সময় ডাক্তাররা চাঁদা তুলেও ঢাকায় পাঠান, ওষুধ কেনেন। এমন নানা সমস্যার মধ্যে চলছে এই স্বাস্থ্য কমপেস্নঙ্।

গজারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান রেফায়েতউলস্নাহ খান তোতা জানান, মানুষের স্বাস্থ্য ও শিক্ষা এই দু’টি বিষয় ঠিক থাকলে অনেক সমস্যারই সমাধান হয়।

[ad#co-1]

[ad#co-1]

Leave a Reply