না’গঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদীর বালুমহাল নিয়ে উত্তেজনা

নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর উপজেলাধীন শীতলক্ষ্যা নদীর মদনগঞ্জ বালুমহাল নিয়ে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। বালুমহালটি বন্ধ ও চালু রাখা নিয়ে যে কোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। এদিকে গত দুদিন আগে এই বালুমহাল নিয়ে পার্শ্ববর্তী জেলা মুন্সীগঞ্জের একটি গ্রুপের সঙ্গে সংঘর্ষ ও একজনের মৃত্যুর ঘটনায় সেখানে বিরাজ করছে টানটান উত্তেজনা। একদিকে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এতে উল্লেখ করা হয়েছে, মদনগঞ্জ বালুমহালের ইজারাদার ও তার লোকজন চরকিশোরগঞ্জে হামলা করেছে। কিন্তু কোন বালুমহাল থেকে তারা ফিরছিল তা মামলায় উল্লেখ করা হয়নি। অপরদিকে অভিযুক্তরা বলছেন, ওইদিন অবৈধভাবে প্রবেশ করে তারাই মদনগঞ্জে টোকেন কাটছিল। ধলেশ্বরী নদী থেকে মদনগঞ্জের বালুমহালের দূরত্ব অনেক বেশি।

এদিকে মদনগঞ্জ বালুমহালের ইজারাদার চান মিয়া রোববার নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিতভাবে একটি আবেদন পেশ করেছেন বলে জানা গেছে। ওই আবেদনে তিনি দাবি করেন, মুন্সীগঞ্জের একটি বালু সন্ত্রাসী গ্রুপ কয়েক সপ্তাহ ধরে তাদের বালুমহালে অনৈতিকভাবে প্রবেশ করে বালুবাহী বাল্কহেড ছিনিয়ে নিয়ে যায়। রোববার ভোররাতে কয়েকটি ট্রলারযোগে ওই গ্রুপটি ধলেশ্বরী নদী পার হয়ে শীতলক্ষ্যার মদনগঞ্জে বালুমহালে প্রবেশ করে টোকেন কাটছিল এবং ভোর ৫টার দিকে তাদের লোকজন এলে তারা ট্রলার নিয়ে পালিয়ে যায়। পালিয়ে যাওয়ার সময় তাদের এক লোক মারা যায় এবং উল্টো চান মিয়াকে ঘটনার জন্য দায়ী করা হয়। চান মিয়া জানান, রোববার মুন্সীগঞ্জের পুলিশ বন্দর থানা এলাকায় প্রবেশ করে তাদের ড্রেজার নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে এলাকাবাসীর প্রতিরোধের মুখে তা বিফল হয়।

এদিকে তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, মদনগঞ্জের বালুমহালটি বাতিল করার জন্য একটি গ্রুপ ষড়যন্ত্র করছে। কারণ এ বালুমহালটি বন্ধ করতে পারলে পার্শ্ববর্তী জেলার বালুমহালটি বেশি লাভজনক হবে। তবে এ বালুমহাল নিয়ে সংঘর্ষ হলে সরকার আগামীতে বড় অঙ্কের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হবে।

[ad#co-1]

Leave a Reply