রিতার শেষ চিঠি : আমার কিছু করার ছিল না

দুই সন্তানসহ মায়ের অস্বাভাবিক মৃত্যু
দুই সন্তান নিয়ে মৃত্যু বেছে নেওয়া ছাড়া আর কোনো পথ খোলা ছিল না রিতার! পুরনো এক ডায়েরির পাতায় স্বল্পভাষী রিতা এমন কথাই বলে গেছেন। তিনি আরো বলেছেন, মায়ের প্রতি বাবার ভালোবাসার অভাব তাঁদের শিশুসন্তানের মনেও খুব প্রভাব ফেলে। দিনে দিনে জমা হওয়া সেই কষ্ট মাঝেমধ্যেই তাদের আচরণে প্রকাশ পেত।

এদিকে রাজধানীর জুরাইনে গৃহবধূ ফারজানা কবির রিতা ও তাঁর দুই সন্তানের অস্বাভাবিক মৃত্যুর পর কয়েক দিন পার হয়ে গেলেও কোনো আসামি ধরা পড়েনি। পুুলিশের দাবি, মামলার আসামি ইত্তেফাকের বিশেষ প্রতিনিধি শফিকুল কবির, তাঁর ছেলে রাশেদুল কবির, তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী স্মৃতিসহ অন্যদের খোঁজে তারা অভিযান চালাচ্ছে। পুলিশ আরো বলছে, স্মৃতি ব্যক্তিগত জীবনে খুবই বেপরোয়া এবং অনেকের সঙ্গেই বিভিন্ন সময়ে তাঁর ঘনিষ্ঠতার কথা তারা জানতে পেরেছে।

মামলার তদন্তকারী একটি সূত্র গতকাল সোমবার কালের কণ্ঠকে জানায়, ঘটনার দিন জুরাইনের আলমবাগের বাসার দ্বিতীয় তলা থেকে আলামত হিসেবে ২০০২ সালের একটি ডায়েরিও জব্দ করা হয়। ওই ডায়েরিতে পাওয়া গেছে রিতার একান্ত কিছু কথা।

রিতা চিঠিতে লিখেছেন, ‘আমার সত্যিকার অর্থেই কিছু করার ছিল না। ওরা যে ভেতরে এত কষ্ট চেপে ছিল, আমি বুঝতে পারি নাই। মাঝে ওদের আচরণে অবাক হতাম। পাবন, পায়েল যে এমন করতে পারে আমি স্বপ্নেও ভাবি নাই। আমি শুধু বলেছি, পরীক্ষা শেষ, আস্তে আস্তে আমরা এই বাসা ছেড়ে দেব। খুব কষ্ট করে পরীক্ষা দিতে রাজি করিয়েছিলাম। আমি জানি, সবাই আমাকে দোষ দিবে। কিন্তু আমি কতটুকু দোষী, আল্লাহ জানে। আমার বাসায় থাকাটা ওরা পছন্দ করছিল না। আমি পাবনের মা, আমি কিছু জানতাম না। আমি যে অবস্থায় লিখছি পৃথিবীর কোন শত্রুরও যেন এ অবস্থায় পড়তে হয় না। সবাই ভাল থাকেন। যত পারেন আমাকে দোষ দেন। আমার ছেলে-মেয়ের সামনে অপমান করেন, বকেন, আমার আর কিছুই গায়ে লাগবে না।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশের একটি সূত্র জানায়, চিঠির ভাষা দেখে তারা মনে করছে মৃত্যুর আগে আগে রিতা এ চিঠি লেখেন। গত শুক্রবার সাংবাদিক শফিকুল কবিরের ছেলে রাশেদুল কবিরের স্ত্রী রিতা ও তাঁর দুই সন্তান কবির ইশরাক পাবন (১৩) ও রাইশা রাসমিন পায়েলের (১২) মৃতদেহ জুরাইনের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। এরপর শনিবার রিতার মা মাজেদা বেগম ‘আত্দহত্যা প্ররোচনা’র অভিযোগে রিতার স্বামী ও শ্বশুরসহ আটজনকে আসামি করে মামলা করেন।

জুরাইনের আলমবাগের সোনার তরী নামের বাড়িটির দোতলার শয়নকক্ষ ও স্নানঘরের প্রতিটি দেয়ালে পাবন ও পায়েল তাদের ক্ষোভের কথা লিখে গেছে। তবে বাসার দেয়ালের একটি জায়গায় শুধু রিতার হাতের লেখা পাওয়া যায়। তিনি স্বামীর উদ্দেশে লিখেছেন, ‘১৮ বছর ধরে তোমাকে ভালোবেসে গেছি। অবুঝ দুটি সন্তানের দিকে তাকিয়ে অনেক কিছু সহ্য করেছি। আর পারলাম না। আত্দহত্যা করলাম।’ দেড় যুগ আগে রিতা ও রাশেদ ভালোবেসে বিয়ে করেন।

পুলিশের ওয়ারী জোনের ডিসি তৌফিক মাহবুব চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ঘটনা এত দূর গড়ানোর পেছনে স্মৃতির বড় ভূমিকা আছে। স্মৃতি বর্তমানে একটি গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানে কর্মরত বলেও তাঁরা জানতে পেরেছেন।
রিতার বোন মিতার স্বামী কাজী আরিফ কালের কণ্ঠকে বলেন, রিতা ও তাঁর দুই শিশুসন্তানের করুণ পরিণতির জন্য সবার আগে স্মৃতিকেই দায়ী করা যায়। রাশেদুলের সঙ্গে রিতার মামাতো বোন রাজিয়া সুলতানা স্মৃতির সম্পর্ক পরে বিয়েতে গড়ায়। এটা মেনে নিতে পারেননি রিতা ও তাঁর দুই সন্তান। এ কারণে দুই বছর ধরে তাদের মধ্যে পারিবারিক বিরোধ চরম পর্যায়ে পেঁৗছায়। রিতা প্রতিবাদ করলে উল্টো তাঁর শ্বশুর-শাশুড়ি ছেলের পক্ষ নেয়। এ নিয়ে রিতার ওপর চালানো হয় নির্যাতন।

জানা গেছে, স্মৃতির পুরো নাম রাজিয়া সুলতানা। বাবা আব্দুর রাজ্জাক দেওয়ান, মা রাশিদা বেগম। দুই ভাইবোনের মধ্যে স্মৃতি বড়। তাঁর বাবার বাসা ৪০৭/১ আলমবাগে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্রমতে, স্মৃতি খুবই উচ্চাভিলাষী ও বেপরোয়া। গণমাধ্যমে সুপরিচিত একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠভাবে চলাফেরা করার গুঞ্জন রয়েছে। এ ছাড়া ২০০৯ সালের শেষের দিকে র‌্যাবের একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার সঙ্গেও স্মৃতির সম্পর্ক গড়ে ওঠে বলে শোনা যায়।

এদিকে রিতা ও তাঁর সন্তানদের স্মৃতিচিহ্ন বুকে নিয়ে মা মাজেদা বেগম শুধু চোখের পানি ফেলছেন। তিনি জানান, আসামিরা এখনো গ্রেপ্তার হয়নি। মামলা তুলে নেওয়া না হলে পরিণতি ভালো হবে না বলে তাঁদের হুমকি দিচ্ছে।
এ ব্যাপারে পুলিশ কর্মকর্তা তৌফিক মাহবুব চৌধুরী বলেন, স্মৃতিসহ মর্মান্তিক এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পুলিশের একাধিক দল আসামিদের ধরতে সোনারগাঁ, উত্তরা, ধানমণ্ডি, রমনা ও ঢাকার বাইরে সম্ভাব্য সব জায়গায় অভিযান চালিয়েছে। গত শনিবার রাত থেকে পুলিশের একাধিক টিম আট আসামিকেই গ্রেপ্তার করতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। রিতার স্বামী ও শ্বশুর ছাড়াও তাঁর শাশুড়ি, ননদ ও রাশেদুলের গাড়িচালক এ মামলার আসামি।

পুলিশের তদন্তকারী সূত্র জানায়, রিতা, পাবন ও পায়েলের হাতের ছাপ ও লেখা সিআইডি পরীক্ষা করছে। জগের পানিতে বিষাক্ত কিছু ছিল কি না সে জন্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। বাসার ভেতরে পেট্রল কেন রাখা হয়েছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পুলিশ আপাতত মনে করছে, তিনজনই অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আত্দহত্যা করেছে। তা ছাড়া হত্যাকাণ্ডের বিষয়টিও পুলিশ উড়িয়ে দিচ্ছে না।

[ad#co-1]

One Response

Write a Comment»
  1. মানুষ কতটা অসহায় হলে আত্মহত্যার স্বিদ্বান্ত নিতে পারে, তাও সন্তানসহ। যদিও এটা ঠিক না আমার মনে হয়। প্রকৃত তদন্ত করে অপরাধীদের শাস্তি দেয়া উচিত, যাতে এমন কঠিন স্বিদ্বান্ত আর কাউকে নিতে না হয়। সাথে সাথে দিক্কার জানাই সো কলড শিক্ষিতদের!!!

Leave a Reply