জুরাইন ট্রাজেডি: ড্রাইভার আল আমিন ৫ দিনের রিমান্ডে

রাজধানীর কদমতলী থানা এলাকার জুরাইনে রিতা, পাবন ও পায়েলের আত্মহত্যায় প্ররোচনা মামলার অন্যতম আসামি ড্রাইভার আল-আমিনকে ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। আজ শনিবার পুলিশ ড্রাইভার আল আমিনকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করলে ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া কামাল ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গোয়েন্দা সূত্র জানিয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদে সে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলে গোপালগঞ্জ থেকে নিহতদের

গাড়ির ড্রাইভার আল-আমিনকে গ্রেফতার করা হয়। গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল তাকে ঢাকার গোয়েন্দা কার্যালয়ে নিয়ে আসে।

নিহতদের লেখা ডায়েরি, স্ট্যাম্প ও চিরকুটে আল-আমিনকে দিয়ে ঘুমের ওষুধ ও স্ট্যাম্প আনা হয়েছিল বলে উল্লেখ রয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে- নিহতরা মাত্রাতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করেছে।

প্রসঙ্গত, গত ১১ জুন জুরাইনে ফারজানা কবির রিতা, তার ছেলে কবির ইশরাফ বিন পাবন ও মেয়ে রাইশা রাশমিন পায়েল ২২৯, সোনারতরী ভবনের ২য় তলার বাসায় আত্মহত্যা করে। পরদিন ১২ জুন সকালে ত রিতার মা মাজেদা বেগম বাদি হয়ে কদমতলী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে নিহতের স্বামী রাশেদুল কবির, তার দ্বিতীয় স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা স্মৃতি, ইত্তেফাকের বিশেষ প্রতিনিধি শফিকুল কবির, তার স্ত্রী নূর বানু, রিতার ননদ কবিতা কবির, স্বামী দেলোয়ার হোসেন, স্বামী পরিত্যক্তা ননদ সুখন কবির ও ড্রাইভার আল-আমিনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর থেকে আসামিরা পলাতক রয়েছেন।

[ad#co-1]

Leave a Reply