কিশোরী মেয়েগুলোর অপরাধ কী

আমরা কেমন আছি
ইমদাদুল হক মিলন
কিছুদিন আগে মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুরের ইছাপুরা হাই স্কুলের একটি অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। স্কুলটির বয়স ১০০ বছরের ওপরে। ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার সময়ে এটি উপমহাদেশের একটি খুবই নামকরা স্কুল ছিল। দেশবিভাগের পরও, পাকিস্তান আমলের গোড়ার দিক থেকে অনেক দিন পর্যন্ত ইছাপুরা হাই স্কুল ছিল নামকরা। এখন হয়তো আগের মতো ঐতিহ্য অতটা নেই, তার পরও ভালো রেজাল্ট করছে স্কুলটি। প্রশাসন, শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী মিলিয়ে স্কুলটি তার গৌরব কিছুটা হলেও ধরে রেখেছে।

অনুষ্ঠান থেকে ফেরার কয়েক দিন পর সেই স্কুলের এক ছাত্রী আমাকে ফোন করল। তার নাম এবং ক্লাস আমি বলছি না, ছাত্রীটি যা বলল, তা বলি। তাদের এলাকার একটি মেয়ে বিকেলের দিকে একা একা বাড়ির কাছের বাজারে গেছে। নিজের প্রয়োজনীয় কিছু জিনিসপত্র কিনে হেঁটে হেঁটে বাড়ি ফিরছে। একটি ছেলে মেয়েটিকে ফলো করতে করতে তাদের বাড়ি পর্যন্ত এসেছে। ছেলেটিকে মেয়েটি চেনেই না, কথা বলা তো দূরের কথা। কিন্তু ওই যে ছেলেটি তার পিছু পিছু এসেছে এটা দেখেছে পাশের বাড়ির কেউ। মেয়েটির মা-বাবাকে জানিয়েছে। মা-বাবা সঙ্গে সঙ্গে সিদ্ধান্ত নিলেন, না না, এ মেয়েকে আর বাড়ি থেকে বেরোতে দেওয়া যাবে না। তার স্কুল বন্ধ।

মেয়েটি ভালো ছাত্রী। বড় স্বপ্ন নিয়ে পড়াশোনা করছিল। মুহূর্তে শেষ হয়ে গেল তার স্বপ্ন। সে জানতেও পারল না কোন অপরাধে এ শাস্তি নেমে এল তার ওপর। মা-বাবা উঠেপড়ে লাগলেন মেয়ের বিয়ের জন্য। কোনো রকমে বিয়ে দিয়ে শ্বশুরবাড়ি পাঠিয়ে দিতে পারলেই তাঁরা বেঁচে যান। বাড়ির চৌহদ্দির মধ্যে মেয়েটির জীবন কাটছে এ অবস্থায়। স্বপ্নের মৃত্যু দেখে অসহায় কিশোরী মেয়েটি এখন চোখের জলে ভাসে।

আমার এক পরিচিত ভদ্রলোকের ফ্ল্যাটে একদিন বোরখা পরা একটি কিশোরী মেয়ে এসে হাজির। বোরখায় এমন করে শরীর-মুখ ঢাকা, কোনো রকমে তার চোখ দুটো শুধু দেখা যায়। বোরখা খোলার পর মেয়েটিকে তিনি চিনলেন। তিনি যে স্কুলে ছেলেবেলায় পড়তেন সেই স্কুলের ক্লাস এইটের ছাত্রী। কিছুদিন আগে স্কুলের একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে মেয়েটিকে তিনি অভিনয় করতে দেখেছিলেন। ভালো অভিনয় করে। খুব শখ টেলিভিশন নাটকে অভিনয় করবে। ভদ্রলোক তাঁর পরিচিত এক টিভি প্রযোজককে বলে মেয়েটিকে একটি ধারাবাহিক নাটকে ঢুকিয়ে দিলেন। কয়েকটা পর্বে সে ভালোই অভিনয় করেছিল। শখ পূরণ হওয়ার পর আর অভিনয় করেনি সে। লেখাপড়া নিয়ে ব্যস্ত হয়ে গেছে।

এই মেয়েটির পেছনে লেগেছে এক বখাটে। এলাকার একটু প্রভাবশালী, অর্থশালী পরিবারের ছেলে। আর মেয়েটির পরিবার নিম্নমধ্যবিত্ত। বখাটের উৎপাত দেখে মা-বাবা সিদ্ধান্ত নিলেন, ক্লাস এইটে পড়া মেয়েটিকেই তারা বিয়ে দিয়ে দেবেন। এ ছাড়া বখাটের হাত থেকে মেয়েটিকে রক্ষার উপায় নেই। শুনে মেয়েটি দিশেহারা হয়ে গেল। এ বয়সে সে কিছুতেই বিয়ে করবে না। তার ইচ্ছা সে এমএ পাস করবে, স্কুলটিচার হবে, তারপর বিয়ের চিন্তা।
মেয়েটি বাড়ি থেকে পালাল।

পালাল বেশ অভিনব কায়দায়। মায়ের বোরখা পরে নিজের সঞ্চয়ে যেটুকু পয়সা ছিল তা-ই নিয়ে সে ঢাকার বাসে চড়ল। ভদ্রলোকের ঠিকানা, ফোন নম্বর তার কাছে ছিল। সোজা তাঁর ফ্ল্যাটে চলে এল। এই এই ঘটনা। আপনি আমাকে বাঁচান।

কথা বলতে বলতে অঝোর ধারায় কাঁদছিল কিশোরী মেয়েটি।

আমাদের কিশোরী মেয়েগুলো কয়েক বছর ধরে এভাবে কাঁদছে। নিজেদের স্বপ্ন নিয়ে তারা স্কুলে যাচ্ছে, কলেজে যাচ্ছে, হঠাৎই সে স্বপ্ন চূরমার করে দিচ্ছে কোনো বখাটে। স্কুলে যাওয়া বন্ধ হচ্ছে মেয়েটির, বাড়ি থেকে বেরোনো বন্ধ হচ্ছে। রাস্তায় বেরোলে বখাটের উৎপাত। বাড়িতে মা-বাবার ভর্ৎসনা। কোনো অপরাধ না করেও অসহায় মেয়েগুলো হয়ে যাচ্ছে অপরাধী। অভিভাবকরা মনে করছেন নিশ্চয় মেয়েটিরও কোনো দোষ আছে। সে হয়তো বখাটে ছেলেটিকে প্রশ্রয় দিচ্ছে। নিরপরাধ অসহায় মেয়েটি কিছুতেই বোঝাতে পারে না তার অভিভাবককে। শেষ পর্যন্ত গভীর অভিমান ভর করে তার বুকে। কিশোর বয়সের তীব্র অভিমানে সে আত্দহত্যা করে।

এ রকম আত্দহত্যার ঘটনা গত কয়েক বছরে অনেক ঘটেছে। পাশাপাশি ঘটেছে হত্যাকাণ্ড। স্কুল থেকে ফেরার সময় কিশোরী মেয়েটিকে ধরে নিয়ে যাওয়ার জন্য তাড়া করে বখাটে বদমাশরা। অসহায় মেয়েটি চোখে আর কোনো পথ না দেখে বাঁচার আশায় ঝাঁপিয়ে পড়েছে পুকুরে। হায়রে মেয়ে, তুমি সাঁতার জানতে না। পুকুরের জলে ভেসে ওঠে তোমার মৃতদেহ। তোমার এ মৃত্যু আসলে হত্যাকাণ্ড। তোমাকে হত্যা করল মানুষের মতো দেখতে এক শ্রেণীর জানোয়ার, যাদের আমরা বখাটে বলি।

কয়েক দিন আগে কাগজে দেখলাম, বোরখা পরা এক বখাটে ধরা পড়েছে। ইভ টিজিং নিয়ে প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়া সোচ্চার হওয়ার পর র‌্যাব-পুলিশ প্রশাসন কঠোর হয়েছে। স্কুল-কলেজ-ইউনিভার্সিটির ছাত্রীরা নানা রকম সমাবেশ, মিছিল-মিটিং করছে। নারী সংগঠনগুলো মুখর হয়েছে। এই দেখে কোনো কোনো বখাটে মেয়েদের উত্ত্যক্ত করার অভিনব পথ আবিষ্কার করেছে। ওই বোরখা পরা বখাটে বদমাশ সে রকম অভিনব একটা পথ ধরেছে। বোরখা পরে মেয়েলি সাজ সেজে সে মেয়েদের দলে ভিড়ে গেছে। মেয়েরা স্কুল-কলেজে যায় দল বেঁধে, সেই দলে ঢুকে সে নিজের মনোবাঞ্ছা হাসিল করে। শেষ পর্যন্ত র‌্যাব তাকে ধরেছে।
ভাবা যায়, এ বদমাশরা কোন স্তরে গিয়ে পেঁৗছেছে।

কিন্তু যেসব বখাটে এসব কাণ্ড করছে তারাও তো কোনো না কোনো পরিবারের ছেলে। তার বোনটির ক্ষেত্রে যদি এ ধরনের ঘটনা ঘটে তখন তার মনোভাব কী হবে? আর ছেলেটির যে অভিভাবক তাঁরা কি একবারও ভাবছেন না তাঁদের ছেলেটি কী করছে, কোন অপরাধে ধ্বংস করছে নিরীহ মেয়েদের জীবন? যদি তাঁদের পরিবারের মেয়েটি কোনো বখাটের উৎপাতে আত্দহত্যা করে তাঁদের মনের অবস্থা কী হবে? আর যে পরিবারের মেয়েটি ভিকটিম হচ্ছে সেই পরিবারের কর্তারা কোন বিবেচনায় নিরপরাধ মেয়েটিকে ভর্ৎসনা করে তার ওপর সব দোষ চাপিয়ে তাকে ঠেলে দিচ্ছেন আত্দহত্যার দিকে? ‘উচ্ছৃঙ্খল ছেলেরা মেয়েদের জীবন দুর্বিষহ করে ফেলছে, এটা সত্য, কিন্তু আত্দহত্যার মতো চূড়ান্ত পর্বটির জন্য অভিভাবকরাই দায়ী।’ (ইভ টিজিংয়ের শেকড় অনুসন্ধান, মোজাম্মেল বাবু, আমাদের সময়, ২৬ জুন ২০১০)।

বাংলাদেশে একটা সময়ে এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষায় নকলের বাড়াবাড়ি চূড়ান্ত পর্যায়ে গিয়ে পেঁৗছেছিল। স্কুল-কলেজের দেয়াল টপকে বাবা কিংবা বড় ভাই কিংবা শিক্ষক নকল পেঁৗছে দিচ্ছেন ছাত্রছাত্রীকে। পরীক্ষা চলাকালে খবরের কাগজে নিয়মিত এ ধরনের ছবি ছাপা হতো। দেখে এক আড্ডায় হুমায়ুন আজাদ আমাকে বলেছিলেন, শুধু ছেলেমেয়েদের দোষ দিয়ে লাভ নেই। আমাদের এক শ্রেণীর অভিভাবক নষ্ট হয়ে গেছেন, এক শ্রেণীর শিক্ষক নষ্ট হয়ে গেছেন।

আজ হুমায়ুন আজাদের কথাগুলো আমার মনে পড়ছে। সত্যি আমাদের এক শ্রেণীর অভিভাবক নষ্ট হয়ে গেছেন, এক শ্রেণীর শিক্ষক নষ্ট হয়ে গেছেন। শিক্ষকদের ইভ টিজিংয়ের খবরও পত্রিকায় ছাপা হচ্ছে, এ লজ্জা আমরা কোথায় রাখি!

বোরখা পরা একটি কিশোরী মেয়েকে জিজ্ঞেস করেছিলাম, কেন এ বয়সে নিজেকে এভাবে ঢেকে রাখতে হচ্ছে তোমাকে, আরষ্ঠভাবে চলাফেরা করতে হচ্ছে? সে বলেছিল, এভাবে চলাফেরার সুবিধা অনেক। চেহারা চিনতে পারে না বলে ছেলেরা উৎপাত করে না। ভাবে বয়স্ক মহিলা হেঁটে যাচ্ছে। খুবই ছেলেমানুষি যুক্তি। ‘দুর্ঘটনা এড়াতে মেয়েদের উদ্যোগ নিয়ে বাড়তি রক্ষণশীল হওয়ার কিছু নেই। বরং উল্টো আক্রমণাত্দক হওয়ার মধ্যেই প্রতিকার নিহিত।’ (ইভ টিজিংয়ের শেকড় অনুসন্ধান, মোজাম্মেল বাবু, আমাদের সময়, ২৬ জুন ২০১০)।

ইভ টিজিং নিয়ে এত কথা হচ্ছে চারদিকে, এত মিটিং-মিছিল-মানববন্ধন, এত আলোচনা সভা, র‌্যাব-পুলিশের এত তৎপরতা, সামাজিক সংগঠনগুলোর এত রকমের কর্মসূচি, স্কুল-কলেজের মেয়েদের নিয়ে ইভ টিজিং-বিরোধী সমাবেশ করেছেন শিক্ষামন্ত্রী; তার পরও তিনটি শ্রেণীকে আমি কোনো উদ্যোগ নিতে দেখিনি। যেমন অভিভাবকরা একত্রিত হয়ে এমন কোনো সমাবেশ করেননি, যে সমাবেশে তাঁরা বলেছেন, আমার মেয়েটিকে অযথা দোষারোপ করব না, তাকে ঠেলে দেব না আত্দহত্যার দিকে। আমার ছেলেটি যেন বখাটে না হয়, ইভ টিজিংয়ের মতো অন্যায় যেন সে না করে আমি সেই ব্যবস্থা নেব।

কেন অভিভাবকরা এখনো সোচ্চার হচ্ছেন না? শিক্ষকরা কেন একত্রিত হয়ে বলছেন না, এ সামাজিক ব্যাধি নির্মূলে আমরা পালন করব সাহসী ভূমিকা। একটি ছাত্রকেও বখাটে হতে দেব না, ইভ টিজিংয়ের কারণে একটি ছাত্রীরও জীবন ও স্বপ্ন ধ্বংস হতে দেব না। কেন স্কুল-কলেজ-ইউনিভার্সিটির ছেলেরা বলছে না, ইভ টিজিং তো করবই না, বরং যারা করে তাদের প্রতিহত করব।

আমি নিশ্চিত সমাজের এ তিনটি শ্রেণী সোচ্চার হলে, সঠিক পদক্ষেপ নিলে ইভ টিজিং বন্ধ হবে।

লেখক : কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক
ih-milan@hotmail.com

[ad#co-1]

Leave a Reply