মুন্সীগঞ্জে ওসি সাসপেন্ড এএসপি প্রত্যাহার, অবশেষে স্পিডব্রেকার

গুলিতে নিহত যুবকের পরিবারে শোকের মাতম ॥ ভরণপোষণের দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
পুলিশের গুলিতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে যুবক নিহতের ঘটনায় সিরাজদিখান থানার ওসি মিজানুর রহমানকে সাসপেন্ড করা হয়েছে; প্রত্যাহার করা হয়েছে সহকারী পুলিশ সুপার (শ্রীনগর সার্কেল) সায়ফুজ্জামান ফারম্নকীকে। পুলিশ হেডকায়ার্টার থেকে জারি করা এ আদেশ শুক্রবার মুন্সীগঞ্জে পৌঁছে। ঘটনা তদনত্মে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ বিভাগ এক সদস্যবিশিষ্ট তদনত্ম কমিটি গঠন করেছে।

বৃহস্পতিবার রাতেই সিরাজদিখান থানার তৎকালীন ওসি মিজানুর রহমান বাদী হয়ে দুই থেকে আড়াই হাজার অজ্ঞাতনামাকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং ২। পুলিশ আক্রানত্ম, পুলিশের কাজে বাধাদান, গাড়ি ভাংচুর, জানমাল রক্ষার্থে পুলিশ কতর্ৃক গুলিবর্ষণের ফলে জনৈক মোসলেমের মৃতু্যসংক্রানত্ম বিষয় উলেস্নখ করে দ-বিধি ১৪৭, ১৪৮, ১৪৯, ৩৫৩, ৩৩২, ৩৩৩, ৪২৭, ৩০২ ধারায় মামলাটি রম্নজু করা হয়। ম্যাজিস্ট্রেটের সুরতহাল রিপোর্ট ও ময়নাতদনত্ম শেষে বৃহস্পতিবার রাতে নিজ গ্রাম কুচয়ামোড়া কাইজ্জার চর কবরস্থানে মোসলেমের লাশ দাফন করা হয়। এর আগে সন্ধ্যায় স্পীডব্রেকার নির্মাণের মধ্য দিয়ে মহাসড়কে যান চলাচল শুরম্ন হয়ে এখন স্বাভাবিক রয়েছে।

এদিকে নিহত মোসলেমের পরিবারের মধ্যে চলছে শোকের মাতম। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি এমপি শুক্রবার ঘটনাস্থলে আসেন। পুলিশের গুলিতে হতাহতদের পরিবার পরিজনের সঙ্গে তিনি কথা বলেন এবং নিহত মোসলেমের পরিবারের ভরণপোষণের দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রীর গ্রহণের প্রক্রিয়া শুরম্ন করেন। হুইপ ঘটনাস্থল থেকে জানান, সুষ্ঠু বিচার এবং নেপথ্য কারণ খুঁজে বের করাসহ দোষীদের বিরম্নদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া শুরম্ন হয়েছে। সরকার বিষয়টি গুরম্নত্বের সাথে বিবেচনা করছে।

স্থানীয় সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে কুচয়ামোড়ায় একটি যাত্রী ছাউনি নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরম্ন করেছেন। শুক্রবারই জেলা পরিষদের লোক নিয়ে তিনি সেখানে গিয়ে সাইড সিলেকশন করে দেন। সুকুমার রঞ্জন ঘোষ বলেন, সরকার ভাল কাজ করে চলেছে কিন্তু পুলিশের এমন দায়িত্বহীন কাজের কারণে আমরা বিব্রত এবং সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন্ন হয়েছে। তিনি ঘটনার জন্য পুলিশকে দায়ী করে বলেন, সরকার দায়িত্বহীনতার জন্য কোন প্রকার ছাড় দেবে না।

পুলিশ সুপার সফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে না গিয়ে শুক্রবার সিরাজদিখানেই অবস্থান করেন। এদিকে গুলির এ ঘটনা কিভাবে ঘটল তা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। পুলিশ সুপারের নির্দেশেই নির্বিচারে গুলি করেছে পুলিশ_ এ অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশ সুপার বলেন, “আমিই সেখানে পুলিশ পাঠিয়েছি। গুলির আগেও আমার সঙ্গে কথা হয়েছে সত্য। কিন্তু গুলির নির্দেশ আমার কাছ থেকে নেয়নি। উপস্থিত পরিস্থিতির প্রেক্ষিতেই আত্মরক্ষায় গুলি করা হয়। ”
সাসপেন্ড হওয়া ওসিকে ডিআইজি ঢাকা রেঞ্জে এবং এএসপিকে পুলিশ হেডকায়ার্টারে রিপোর্ট করতে বলা হয়েছে। সিরাজদিখানের ওসির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে থানার সেকেন্ড অফিসার মুশফিকুর রহমানকে। তিনি এ ঘটনার সঙ্গে ছিলেন।

তবে এখনও নিহত মোসলেমের পরিবার কোন মামলা করেনি। শোক আর অসহায়তের কারণে এখনই মামলা না করলেও তারা মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে গ্রামের নেতৃস্থানীয়রা জানান। গ্রামবাসীরা জানান, আমরা হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই। এছাড়া আড়াই হাজার মানুষকে আসামি করে পুলিশের মামলা এবং এ মামলায় পুলিশের পক্ষে লেখার ঘটনায়ও এলাকাবাসী হান্নান মিয়া অসনত্মোষ প্রকাশ করেন।

এদিকে পুলিশের তদনত্ম কমিটি ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট দাখিল করবে। তদনত্ম কমিটির প্রধান মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম শুক্রবার ঘটনাস্থলের প্রায় এক কিলোমিটার দূরে নিমতলীতে বসে এ তদনত্ম কাজ শুরম্ন করেন। নিরাপত্তার অভাবের কারণে ইউএনও এবং দায়িত্ববান লোকজন তাকে ঘটনাস্থলে না যেতে পরামর্শ দেন উলেস্নখ করে তিনি বলেন, পুলিশের বিরম্নদ্ধে গেলেও শতভাগ নিরপেক্ষ রিপোর্ট দেয়া হবে। কিন্তু প্রত্যক্ষদশর্ী বা সাক্ষী না পেলে কিভাবে সত্য উদ্ঘাটন করব। এজন্য তিনি বিভিন্ন মাধ্যমে প্রত্যক্ষদশর্ীদের মতামত আহ্বান করেছেন।

জেলা প্রশাসক আজিজুল আলম ঘটনাস্থলে গিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলেন এবং খুঁটিনাটি জানেন। তিনি শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘটনাস্থল থেকে জানান, পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক।

বৃহস্পতিবার মহাসড়কের ওপর লাশ রেখে হাজার হাজার ক্ষুব্ধ ছাত্র-জনতার বিক্ষোভ আর লাঠি ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মারমুখী অবস্থায় লাশ উদ্ধার করা যাচ্ছিল না। উত্তেজনা ক্রমেই বাড়ছিল। প্রশাসন, র্যাব, পুলিশ কেউই ঘটনাস্থলে যেতে পারছিল না। দু’পাশে হাজার হাজার যান আটকা। অসংখ্য মানুষের দুর্ভোগ আর অনিরাপত্তা। ঠিক সেই মুহূুর্তে চরম ঝুঁকি নিয়ে হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি এমপি কোন প্রোটেকশন ছাড়াই একা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিজের নিয়ন্ত্রণে নেন। হুইপের সিগন্যাল পেয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এ্যাম্বুলেন্স নিয়ে উপস্থিত হন এবং নিজের কাঁধে লাশের খাট নিয়ে লাশ এ্যাম্বুলেন্সে তুলে নিয়ে আসেন। এ লাশ পেয়েই সকল প্রশাসনিক কাজ শুরম্ন হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাফিউল ইসলাম লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে জানান, নিহত মোসলেমের বুকের বাম পাশে রাইফেলের একটি গুলি বিদ্ধ হয়।

উলেস্নখ্য, বুধবার বিকেলে কুচিয়ামোড়ায় স্থানীয় আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র মেহেদী হাসান বাসচাপায় নিহত হয়। এ সময় বিদ্যালয়টির ছাত্ররা বিকেল সোয়া ৬টা পর্যনত্ম ২ ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। স্পীডব্রেকার তৈরি করার শর্তে তারা ব্যারিকেড তুলে নেয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার যথাসময়ে স্পীডব্রেকার তৈরি না করায় ছাত্ররা উত্তেজিত হয়ে উঠে মহাসড়ক অবরোধ করে এবং গাড়ি ভাংচুর শুরম্ন করে। এসব নিয়েই পুলিশের সাথে সংঘর্ষ বাধে।

জনকন্ঠ
—————————————————————-

মুন্সীগঞ্জে পুলিশের গুলিতে জেলে নিহত
এএসপি সার্কেল ক্লোজড ওসি সাসপেন্ড তিন হাজার গ্রামবাসীর নামে মামলা

সেতু ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ
মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে বিক্ষুব্ধ ছাত্র-জনতার ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণের ঘটনায় এএসপি লৌহজং সার্কেল সায়ফুজ্জমান ফারুকীকে ক্লোজড ও সিরাজদিখান থানার অফিসার্স ইনচার্জ মিজানুর রহমানকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। তাছাড়া পুলিশ বাদী হয়ে ৩ হাজার গ্রামবাসীকে আসামি করে মামলা করেছে। পুলিশের গুলিবর্ষণ ঘটনা খতিয়ে দেখতে এক সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট পেশ করার জন্য সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে ওই কমিটিকে। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ঢাকাস্থ পুলিশের হেডকোয়ার্টার মুন্সীগঞ্জের এএসপি সার্কেল সায়ফুজ্জামান ফারুকীকে ক্লোজড করে মুন্সীগঞ্জ জেলা থেকে সরিয়ে নেয়।

গত বৃহস্পতিবার রাত ৩টায় এএসপি সার্কেলকে ক্লোজড করা হয়। ওই রাতে সিরাজদিখান থানার অফিসার্স ইনচার্জ মিজানুর রহমানকেও ক্লোজড করা হয়। পরে গতকাল শুক্রবার বিকালে অফিসার্স ইনচার্জ মিজানুর রহমানকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকালে সিরাজদিখান থানার এসআই মুশফিকুর রহমান বাদী হয়ে কুচিয়ামোড়া কাইজ্জারচর গ্রামের অজ্ঞাতনামা ৩ হাজার লোককে আসামি করে মামলা করেছেন। মামলার বাদী ডেসটিনিকে জানান, ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ব্যাপক ভাঙচুর, পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ, ছাত্র-জনতার ওপর পুলিশকে গুলি করতে বাধ্য করা ও পুলিশের গুলিতে একজন নিহত হওয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় অভিযোগ আনা হয়েছে। পুলিশের গুলিতে কাইজ্জারচর গ্রামের জেলে মোসলেম উদ্দিন (৩২) নিহত হলেও দায়েরকৃত মামলায় ৩ হাজার গ্রামবাসীকেই অভিযুক্ত করা হয়েছে ওই হত্যাকা-ের জন্য। অপর দিকে বৃহস্পতিবার রাতেই নিহত মোসলেম উদ্দিনকে নিজ গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হয়েছে। এর আগে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে তার লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়।

অন্যদিকে পুলিশের গুলিবর্ষণ ও গুলিতে নিহতের ঘটনা খতিয়ে দেখছে গঠিত এক সদস্যের তদন্ত টিম। শুক্রবার সকালে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলামকে প্রধান করে এক সদস্যের ওই তদন্ত টিম গঠিত হয়েছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সুষ্ঠু তদন্ত শেষে তদন্ত টিমকে রিপোর্ট পেশ করতে বলা হয়েছে।

ছাত্র-জনতার বিক্ষোভের নেপথ্য কারণ পুলিশ ও প্রশাসনের মিথ্যা আশ্বাস

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কুচিয়ামোড়া কাইজ্জারচর গ্রামের লোকজন ও কুচিয়ামোড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের নেপথ্য কারণ ছিল সিরাজদিখান থানা পুলিশ ও প্রশাসনের মিথ্যা আশ্বাস। স্কুলছাত্র নিহতের ঘটনায় ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ধলেশ্বরী ১ নং সেতুর পাদদেশে ওই স্কুলের সংলগ্নস্থানে একটি স্পিডব্রেকার নির্মাণ করার কথায় আশ্বস্ত করেছিলেন সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিযুক্ত এক প্রতিনিধি ও লৌহজং সার্কেল এএসপি সায়ফুজ্জামান ফারুকী। গত বুধবার বিকালে ইলিশ পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসের চাপায় স্কুলছাত্র মেহেদী হাসান নিহত হলে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ করে সহপাঠীরা। এতে একাত্মতা প্রকাশ করে অবরোধে অংশ নেয় কাইজ্জারচর গ্রামের হাজার হাজার লোক।

গত বুধবার সন্ধ্যায় সিরাজদিখান উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ মহাসড়কে ওই স্কুলের সামনে স্পিডব্রেকার নির্মাণের আশ্বাস দেয়। পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে ছাত্ররা স্কুলে এলে দেখেন মহাসড়কে স্পিডব্রেকার বা গতিরোধক নির্মাণের কোনো কার্যক্রম নেয়া হয়নি। প্রশাসনের ওই মিথ্যা আশ্বাসের কারণেই বিক্ষোভে ফেটে পড়েন ছাত্র-জনতা।
পুলিশ ও প্রশাসন দায়ী করছে সড়ক ও জনপথকে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ছাত্র-জনতাকে দেয়া গতিরোধক নির্মাণের আশ্বাসের পর পরই বুধবার রাতে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম ও পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম আশ্বাস রক্ষার্থে মুন্সীগঞ্জের সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলীর দ্বারস্থ হন। সওজের সঙ্গে যোগাযোগ করে ওই রাতের মধ্যে কুচিয়ামোড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে মহাসড়কে স্পিডব্রেকার নির্মাণের কথা জানানো হয়। তদুপরি পরদিন সওজ কর্তৃপক্ষ স্পিডব্রেকার নির্মাণে টালবাহানা করে। আর ওই স্পিডব্রেকার নির্মাণ না হওয়াই পুলিশের কাল হয়ে দাঁড়ায়। এতে জেলা পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ছাত্র-জনতার বিক্ষোভ ও পুলিশের গুলিবর্ষণের জন্য দায়ী করলেন সড়ক ও জনপদকে। তিনি বলেন- স্পিড বেকার নির্মানের জন্য আমরা আশ্বাস দেই। কিন্তু এটা রক্ষার দায়িত্ব সড়ক ও জনপদের। তাদের গাফলতির কারনেই ওই অনাকাংিঙখত ঘটনা ঘটেছে। প্রশাসন ও পুলিশের আশ্বাস রক্ষা করতে না পারায় ছাত্র-জনতা পর দিন পুলিশের উপর বিক্ষোভরত অবস্থায় চড়াও হয়। এতে পুলিশ নিজেদের জীবন বাঁচাতে গুলি ছোড়ে।

৩ দিনের শোকে স্কুল বন্ধ-
বাস চাঁপায় স্কুল নিহত ও পরের দিনের পুলিশের গুলিবর্ষনে ও গুলিতে আরো এক জেলে নিহত হওয়ার ঘটনায় সিরাজদিখান উপজেলার কুচিয়ামোড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ৩ দিনের জন্য বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। আজ শনিবার থেকে স্কুল বন্ধ শুরু হচ্ছে। স্কুল পরিচালনা কমিটি ও গ্রামবাসীদের সিদ্বান্তের ভিত্তিতে ৩ দিনের শোক হিসেবে স্কুল বন্ধের ঘোষনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধান শিক্ষক উমা কান্ত রায়।

ডেসটিনি

[ad#co-1]

Leave a Reply