মুন্সীগঞ্জ আদালতের ১০ বিচারকের পদে কেউ নেই ফাইলবন্দি ৩ হাজার মামলা

সেতু ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ
মুন্সীগঞ্জে দেওয়ানি ও ফৌজদারি আদালতের ১০ বিচারকের চেয়ারে নেই একজনও বিচারক। জেলার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটসহ ১০ বিচারকের চেয়ার খালি পড়ে আছে। বিচারকের চেয়ারে বসেন না এমন পদও খালি রয়েছে দুবছর যাবৎ। বিচারকের একাধিক পদশূন্যতার মধ্য দিয়ে মুন্সীগঞ্জের আদালতের বিচারকাজ চলছে ঝিমিয়ে। এতে ওই দুটি আদালতে প্রায় ৩ হাজার মামলা ফাইলবন্দি হয়ে আছে। বিচারিক কাজে নেমে এসেছে স্থবিরতা। ফাইলবন্দি মামলার জটে পড়ে বিচার প্রার্থীরা পড়েছেন বিপাকে।

বিচারকের বহু পদে কেউ না থাকলে কি হবে, মুন্সীগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ মো. মোর্শেদ এলপিআরে গেলেও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তার চাকরির সময়সীমা বেড়েছে ২ বছর। অথচ গেজেটের অভাবে তিনি বিচারক পদে যোগদান করতে পারছেন না।

গতকাল মঙ্গলবার সকালে জেলা আইনজীবী সমিতির লাইব্রেরি কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মলনে এসব তথ্য জানান আইনজীবীরা। জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট আর্শেদ উদ্দিন চৌধুরী সংবাদ সম্মেলনে জানান, মুন্সীগঞ্জে আদালতে ১০ জন বিচারকের অভাব দীর্ঘ দিন যাবৎ চলে আসছে। ফৌজদারি আদালতের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ও সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, দেওয়ানি আদালতের জেলা ও দায়রা জজ, সিনিয়র সহকারী জজ, মুন্সীগঞ্জ সদর ও সহকারী জজ লৌহজং আদালতের বিচারক নেই। তাছাড়া দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল বিচারক পদও শূন্য। আর নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের জন্যও নেই পৃথক কোনো আদালত। কাজেই নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতের বিচারকও নেই মুন্সীগঞ্জে। রাজধানী ঢাকার নিকটবর্তী জেলা মুন্সীগঞ্জের গুরুত্বপূর্ণ ১০টি আদালতের বিচারক না থাকায় হাজার হাজার মামলার জট পেকেছে। ওই জটে পড়ে মামলার বাদী ও আসামি উভয় পক্ষের লোকজনই পড়েছেন বিচারকের রায়ের বিড়ম্বনায়। বিড়ম্বনায় পড়েছেন জেলার ২ শতাধিক আইনজীবীও। ১০টি পদে বিচারক না থাকায় হাজারো বিচারপ্রার্থী মানুষ নানা দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন আইনজীবীরা। এ ছাড়া আদালতপাড়ায় পিয়ন, পেশকার ও কোর্ট পুলিশের ঘুষবাণিজ্য মাত্রারিক্ত আকার ধারণ করেছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা। তাদের কারণে গরিবদের সহায়তায় এগুতে পারছেন না আইনজীবীরা। বিচারক শূন্যতার মধ্য দিয়ে একজন বিচারক একাধিক আদালতের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে চলমান মামলার কাজেও অগ্রগতি হচ্ছে না বলে জানানো হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে সংবাদ সম্মেলনে আদালতের নানা দিক নিয়ে আলোচনা করেন জেলা আইনজীবী সমিতির সম্পাদক অ্যাডভোকেট সালাহউদ্দিন খান স্বপন, সলিল সরকার, শ ম হাবিবুর রহমান হাবিব, মো. আদুল মালেক, আবুল বাশার, মো. এমারত হোসেন, খান আতাউর রহমান হিরু, মুজিবুর রহমান শেখ, নুরুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট হালিম সরদার প্রমুখ।

[ad#co-1]

Leave a Reply