ভাই, দুবাই কোন দিকে

ইমদাদুল হক মিলন
পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে জাপানপ্রবাসী বাঙালিরা বৈশাখী মেলার বিশাল আয়োজন করে টোকিওতে। টোকিওতে বসবাস করা বাঙালিরা তো বটেই, জাপানের অন্যান্য শহরে বসবাস করা বাঙালিরাও একত্র হন উৎসবে। বাংলাদেশ থেকেও যান অতিথিরা। নাচগানের শিল্পী, অন্যান্য ক্ষেত্রের বিশিষ্টজন।

সেই অনুষ্ঠানে যাচ্ছি।

সিঙ্গাপুর এয়ারপোর্টে চার ঘণ্টা বসে থাকতে হবে। এয়ারপোর্টে অপেক্ষা করার চেয়ে বিরক্তিকর কাজ আর কিছু হতে পারে না। তাও একা একা। সঙ্গে প্রিয় কেউ থাকলে গল্পগুজব করে সময়টা কাটে। একা থাকলে সময় আর কাটেই না। একেকটা মিনিট যেন একেকটা ঘণ্টা। ট্রানজিট এরিয়ায় একা একা হাঁটছি। চারদিকে আলোর বন্যা। হাজার হাজার মানুষ। ডিউটি ফ্রি শপ, এই দোকান থেকে সেই দোকান, রেস্টুরেন্ট, ক্যাফে, বুকশপ। আমি একটা বুকশপের দিকে যাচ্ছি। এই একটা জায়গা, যেখানে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাটানো যায়।

হঠাৎ কেউ পেছন থেকে ডাকল। এই যে ভাই, এই যে।

বিদেশে বাঙালি কণ্ঠ শুনলেই ভালো লাগে। চমকে পেছন ফিরে তাকিয়েছি। যদি পরিচিত কাউকে পাওয়া যায়, ভালোই হয়। একসঙ্গে চা-কফি খাওয়া যাবে, গল্প করা যাবে। সময়টা ভালো কাটবে।

না, পরিচিত কেউ না। অল্পবয়সী একটা ছেলে। মধ্যবিত্ত ধরনের শার্ট-প্যান্ট পরা। পায়ে খয়েরি রঙের জুতা। এক হাতে একটা শপিংব্যাগ। শপিংব্যাগে প্রিমিয়ামের এক প্যাকেট মিষ্টি। চেহারায় বেশ একটা দিশেহারা ভাব।

জি, বলুন।

আমি আপনার চেহারা দেখে বুঝছি আপনি বাঙালি। আমি ভাইজান একটা বিপদে পড়ছি। আমারে একটু হেল্প করেন।

কী হয়েছে?

এটা সিঙ্গাপুর না?

হ্যাঁ। আপনি যাবেন কোথায়?

সিঙ্গাপুরেই যাব। এখানকার একটা কনস্ট্রাকশন কম্পানিতে কাজ নিয়া আসছি। কিন্তু এয়ারপোর্টে নামার পর কিছুই বুঝতে পারতাছি না। আমার লাগেজ কোথায় গেল, কোন দিক দিয়ে বেরোবে, আমি ভাই রাস্তা হারায়া ফালাইছি।
প্রথমে আমি যে ভয়টা পেলাম, সেই প্রশ্নটাই করলাম। আপনার পাসপোর্ট এবং অন্য কাগজপত্র কোথায়?

সেইসব আছে, ভাইজান। এই যে পকেটে।

সে পকেট থেকে পাসপোর্ট এবং অন্য কাগজপত্র বের করল। দেখে আমি আশ্বস্ত হলাম। অন্য কোনো কিছু হারালেও অসুবিধা নেই। সাবধান, পাসপোর্ট এবং যে কম্পানিতে কাজ নিয়ে আসছেন, ওসব কাগজপত্র যেন না হারায়। তাহলে খুবই বিপদে পড়বেন।

না ভাইজান, এইগুলি সাবধানেই রাখছি। আমাকে নিতে এয়ারপোর্টে লোকও আসবে। কিন্তু এয়ারপোর্ট থেকে বাইর হওনের রাস্তাটাই পাইতাছি না। লাগেজটা যে কই গেল?

ব্যাপারটা আমি তাঁকে বুঝিয়ে বললাম। আপনি ভুল করে ট্রানজিট এরিয়ায় চলে আসছেন। আপনাকে যেতে হবে ইমিগ্রেশনে। সেটা একেবারে উল্টো দিকে। কিছুটা এগিয়ে গিয়ে দিকটা আমি দেখিয়ে দিলাম। কিভাবে ইমিগ্রেশন করতে হবে, লাগেজ কোথায় পাবে, বুঝিয়ে বলে দিলাম।

পরের ঘটনা দুবাইতে। জুলাই মাসের কথা (২০০৯)। ফরিদুর রেজা সাগরের সঙ্গে যাচ্ছি নিউইয়র্কে। সেখানে রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার একক রবীন্দ্রসংগীতের অনুষ্ঠান হবে। অনুষ্ঠানটির বৈশিষ্ট্য হলো, বন্যার সঙ্গের যন্ত্রীরা সব আমেরিকান। দুয়েকজন আমেরিকান বাঙালি আছেন, বাকি সবাই সাদা মানুষ। সাগর আমাকে নিয়ে যাচ্ছে অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করবার জন্য। পরে চ্যানেল আইয়ে প্রচারিত হবে। সাগরের স্ত্রী কণা রেজা দুবাইতে। আমরা দুবাইতে এক রাত থাকব। পরদিন সকালবেলা কণাও আমাদের সঙ্গে নিউইয়র্কে রওনা দেবে। জাহাঙ্গীর নামের গানের জগতের এক যুবক আমাদের সঙ্গে। আমরা তিনজন ইমিগ্রেশনের দিকে হেঁটে যাচ্ছি, মরুভূমিতে পথ হারাবার মতো আতঙ্কিত ভঙ্গিতে দুজন বাঙালি আমাদের সামনে এসে দাঁড়াল। অতি সাধারণ বেশভূষা, দুজনেরই কাঁধে ব্যাগ। দেখেই বোঝা যায়, শ্রমিকের কাজ নিয়ে দুবাইতে এসেছেন। আমরা বাঙালি কি না, বাংলা ভাষা জানি-বুঝি কি না, সেসবের তোয়াক্কা না করে দিশেহারা গলায় বললেন, ভাই, দুবাই কোন দিকে?

আমি আর সাগর হতভম্ব হয়ে গেলাম। দুবাইতে কাজ নিয়ে এসেছেন মানুষ দুজন, যারা পাঠিয়েছে তারা তাঁদের বুঝিয়ে দেয়নি এয়ারপোর্টে নেমে কোথা দিয়ে কিভাবে বের হতে হবে, কী কী করতে হবে। টাকা নিয়ে কম্পানির নিয়োগপত্র আর টিকিট হাতে ধরিয়ে দিয়ে ঠেলে প্লেনে তুলে দিয়েছে!

সাগর খুব সুন্দর করে তাঁদের সব বুঝিয়ে দিচ্ছিল। সেই ফাঁকে আমি গেছি আনমনা হয়ে। আমার মন চলে গেছে ১৯৭৯ সালের অক্টোবরে। আমি আর আমার বন্ধু কামাল জীবন বদলের আশায় চলে গিয়েছিলাম জার্মানিতে। তখন জার্মানি জোড়া লাগেনি। আমরা গিয়েছিলাম ওয়েস্ট জার্মানিতে। ঢাকা থেকে এরোফ্লটের বিমানে দিলি্ল, দিলি্ল থেকে মস্কো, মস্কো থেকে ইস্ট বার্লিন। ইস্ট বার্লিনে নেমে আমাদের অবস্থা হয়েছিল ঠিক এই দুজন মানুষের মতো। কোন দিক দিয়ে কোথায় গেলে বর্ডার পাব, ইস্ট বার্লিনের বর্ডার ক্রস করে ওয়েস্ট বার্লিনে ঢুকব, বার্লিন থেকে কেমন করে যাব বন শহরে_কোনো কিছুরই দিশা পাচ্ছিলাম না। তবে এই দুজন মানুষের সঙ্গে আমাদের ব্যবধান, আমরা কোনো কম্পানির মাধ্যমে যাচ্ছিলাম না। কামাল একটা ট্রাভেল এজেন্সির সঙ্গে জড়িত ছিল। সে টিকিট কাটল আর ইস্ট জার্মানির ভিসা নিল। বাংলাদেশিদের জন্য ওয়েস্ট জার্মানিতে তখন ভিসা লাগত না। গিয়ে পেঁৗছাতে পারলেই হয়। এয়ারপোর্ট কিংবা ট্রেনেই ইমিগ্রেশন অফিসার পাসপোর্টে সিল মেরে দেবেন।

তারপর এত এত বছর কেটে গেছে, পৃথিবীর প্রায় সব দেশে ছড়িয়ে গেছে বাঙালিরা। লাখ লাখ বাঙালি কাজ করছে মধ্যপ্রাচ্য, ইরাক, ইরান, ইংল্যান্ড, আমেরিকা, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ইতালি, অস্ট্রেলিয়া, মরিশাস, লিবিয়া_কোথায় না। গত তিরিশ বছরে প্রবাসীদের আয়ে চেহারা বদলে গেছে বাংলাদেশের। গত অর্থবছরে প্রবাসীদের আয়ে বাংলাদেশে এসেছে ৭৬ হাজার ৮১২ কোটি টাকা। ‘প্রবাসী আয় (রেমিট্যান্স) দিন দিন বেড়েই চলেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৯-১০ অর্থবছরে প্রবাসী আয় হয়েছে ৭৬ হাজার ৮১২ কোটি ৪০ লাখ টাকা (প্রতি ডলার ৭০ টাকা হিসেবে)। মার্কিন ডলার হিসেবে এর পরিমাণ ১০ হাজার ৯৭৩ দশমিক ২০ মিলিয়ন (কালের কণ্ঠ, ৭ জুলাই ২০১০)।

আমি কথায় কথায় মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুরের কথা বলি। এ প্রসঙ্গেও বলতে চাই। স্বাধীনতার আগে মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর ছিল দরিদ্র অঞ্চল। আজ বাংলাদেশের সবচেয়ে ধনী অঞ্চল। ঢাকার ইসলামপুর এলাকার কাপড়ের ব্যবসা একচেটিয়া মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর অঞ্চলের মানুষের হাতে, বায়তুল মোকাররম এলাকার ইলেকট্রনিক ব্যবসা মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর অঞ্চলের মানুষের হাতে। আর মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর অঞ্চলের কমপক্ষে ৭০ শতাংশ বাড়ির কোনো না কোনো মানুষ বিদেশে আছেন। কাজ করছেন, টাকা পাঠাচ্ছেন। নূর আলী নামের এক যুবক বিক্রমপুরের বহু যুবককে জাপানে নিয়ে গিয়েছিল, জাপানে গিয়ে কাজ করার পথ দেখিয়ে দিয়েছিল। মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর অঞ্চলের কোনো কোনো গ্রামকে বলা হয় ‘জাপানি গ্রাম’। যেমন ‘পয়সা’। এই গ্রামের প্রতিটি বাড়ির দু-চারজন জাপানে আছেই। তাদের টাকায় গ্রামটি এখন সোনার গ্রাম। একবার টর্নেডো হলো ‘পয়সা’ গ্রামে। মুহূর্তে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেল গ্রামের ঘরবাড়ি। ঢাকা থেকে সরকারি সাহায্য, বিভিন্ন এনজিও এবং অন্যান্য মানবকল্যাণ সংস্থা সাহায্য-সহযোগিতা নিয়ে গেল। গ্রামের মানুষ সেই সাহায্য-সহযোগিতা প্রত্যাখ্যান করল। কারণ টর্নেডোর খবর মুহূর্তেই পেঁৗছে গেছে জাপানে বসবাস করা গ্রামের মানুষদের কাছে। তারা একত্র হয়ে যে পরিমাণ টাকা পাঠিয়েছে, সেই টাকায় গ্রামটি আগের চেয়ে ভালোভাবে দাঁড়িয়ে যাবে। এ সত্যি এক বিরল উদাহরণ। প্রকৃত অর্থে বাংলাদেশ বেঁচে আছে প্রবাসী বাঙালি সন্তানদের কঠোর পরিশ্রমে, তাদের রোজগারে। তার পরও এই মানুষগুলোর যথাযথ মর্যাদা আমরা দিই না। যে কম্পানিগুলো বিদেশের শ্রমবাজারে আমাদের ভাই-বন্ধু-সন্তানদের পাঠাচ্ছে, তাদের যত্নশীলতার অভাব পদে পদে দেখছি। অনেক লেখাপড়া জানা শিক্ষিত মানুষও দেশের বাইরে পা রাখলে নার্ভাস হয়ে যান। আর এসব সাধারণ মানুষের তো নার্ভাস হওয়ার যথেষ্টই কারণ আছে। তাঁদের খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে প্রতিটি বিষয় বুঝিয়ে দেওয়া উচিত, প্রয়োজন হলে লিখে দেওয়া উচিত যে ঢাকা এয়ারপোর্ট থেকে শুরু করে কোন কোন স্তর কিভাবে তাঁদের ফেস করতে হবে। কেন একজন মানুষ এয়ারপোর্টে নেমে জিজ্ঞেস করবেন, ভাই, দুবাই কোন দিকে? কেন তাঁকে পড়তে হবে নিদারুণ এক মানসিক চাপে? কেন একটি যুবক বুঝতে পারবে না, কোন দিকে ইমিগ্রেশন, কোন দিকে ট্রানজিট? যাঁদের আয়ে দেশ চলে, তাঁদের ব্যাপারে কেন আমরা আরো যত্নশীল হব না? আমাদের দেশের এয়ারপোর্টে এমন অবজ্ঞা করতে দেখেছি এসব প্রবাসী মানুষকে, ভাবা যায় না। যাওয়ার সময়, আসার সময়। অযথা লাগেজ নিয়ে হয়রানি, অযথা একটু বিব্রত করা, টাকা-পয়সার ধান্দা_কত বিচিত্র রকমের হয়রানি! যাঁরা হয়রানিটা করান, তাঁরা একবারও ভাবেন না এই মানুষগুলোর রক্ত পানি করা টাকায় তাঁর গায়ে ভালো পোশাক, তাঁর বাড়িতে ভালো খাবার, তাঁর সন্তান ভালো স্কুলে পড়ছে, স্ত্রীর হাতে-গলায় গয়নার পরিমাণ বাড়ছে। এই মনোভাব বদলাতে হবে। প্রবাসী বাঙালিদের মর্যাদা হওয়া উচিত জাতীয় বীরের। যাঁরা বিদেশে কখনো কাজ করেননি, তাঁরা বুঝতে পারবেন না কী অমানুষিক পরিশ্রমের কাজ সেসব। এ দেশে বসে সেই পরিশ্রম কল্পনা করাও কঠিন।

ইউরোপ-আমেরিকা থেকে ফেরা অনেক তথাকথিত ভদ্রলোককে আমি দেখেছি, দুবাই, সিঙ্গাপুর, কুয়ালালামপুর_এসব রুটে দেশে আসতে চান না, বিদেশে যেতে চান না। কারণ? ওসব এয়ারপোর্ট থেকে প্রবাসী বাঙালি শ্রমিকরা দেশে ফেরেন, কর্মস্থলে যান। এসব মানুষের সঙ্গে প্লেনে চড়তে তাঁদের অনীহা। আজেবাজে মন্তব্য করেন। একবারও ভেবে দেখেন না, দেশটাকে তাঁরা বাঁচিয়ে রাখছেন না, বাঁচিয়ে রাখছেন ওই মানুষগুলো। আমরা তথাকথিত ভদ্রলোকরা আসলে মাখন খাওয়ার দল। জীবনপাত করে এক শ্রেণীর মানুষ মাখন তৈরি করে দেবে, আমরা খাব এবং যাঁরা মাখনটা তৈরি করে দিচ্ছে, তাঁদের উপহাস করব।

এই মনোভাব বদলাতেই হবে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে নতুন নতুন শ্রমবাজার আবিষ্কারের চেষ্টা যেমন করতে হবে, তেমনি যেসব দেশে আমাদের ভাই-বন্ধু-সন্তানরা কাজে নিয়োজিত, তাঁদের যথাযথ মর্যাদা ও সম্মান দিতে হবে। তাঁদের ছোট করে দেখার, অবহেলা করার অধিকার কারো নেই। তাঁদের মর্যাদা আসলে বীরের মর্যাদা।

লেখক : কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক
ih-milan@hotmail.com

[ad#co-1]

Leave a Reply