থাপ্পড়গুলো অনেক আগেই মারা উচিত ছিল

রিতার ডায়েরি-৪
তখন স্মৃতি বলে, আপা আপনি আমাকে ছোটবেলা থেকে চেনেন না? কি বলেন, এইমাত্র গাজীপুর থেকে দোলার সাথে আসছি। এর কিছুক্ষণ পর ওর ফোন বন্ধ। বনশ্রীতে যাই। বাড়িওয়ালার কাছ থেকে যা শুনে আসি তা আমার সহ্যের বাইরে। আমি রাশেদকে ফোন করলে বলে, সব তো দেখেই আসছ। ওর সাথে যেহেতু একটা সম্পর্ক তৈরি হয়ে গেছে তাই আর তোমার সাথে কনটিনিউ করা সম্ভব না। আমি তখন রাশেদকে বলি, তোমার সাথে আমার ১৮ বৎসরের জীবন ও তুমি আমার পাবন-পায়েলের বাপ, তোমার সাথে আমার কথা বলতেই হবে। সে আমাকে বলে, সন্ধ্যার পর আমার সাথে কথা বলবে। আমি বাসায় আসি। পাগল পাগল অবস্থা। এ কী করে সম্ভব, তার মানে রাশেদ যে ১০ বছর ধরে অত্যাচার করে আসছিল তা এর জন্য! এই পর্বটা ছিল রাশেদের সাথে আমার সম্পর্ক। এখানে আমি রাশেদের বাবা, মা, বোনদের কথা উল্লেখ করি নাই, যেটা না করলেই না।

এরপর ১৩ই সেপ্টেম্বর বাচ্চা দুইটা রোজা থাকা সত্ত্বেও ওদের নিয়ে আমি আবার বের হয়ে যাই রাশেদের অফিসের উদ্দেশে। অর্ধেক রাস্তা থেকে জানতে পারি রাশেদ অফিস থেকে বের হয়ে গেছে, এবং ফোন বন্ধ। আমি আবার বাচ্চা দুইটাকে নিয়ে বনশ্রীতে যাই।

ওখানে ওকে পাই না। ওখান থেকেই দীপু ভাইকে ফোনে সব জানাই। উনি অবাক, আমাকে বাসায় চলে যেতে বলে। আমি আসতে পারি না। সন্ধ্যায় রাশেদ মেসেজ পাঠায়। আমি পাবন-পায়েলেকে নিয়ে রাশেদের জন্য রাজধানী সুপার মার্কেটের সামনে অপেক্ষা করতে থাকি। রাশেদকে নিয়ে আমরা নতুন রাস্তায় এসে গাড়ি থামিয়ে ড্রাইভার নামিয়ে আমি রাশেদকে কয়েকটা থাপ্পড় মারি। এই থাপ্পড়গুলো জীবনে অনেক আগেই মারা উচিত ছিল। ও একটা থাপ্পড় মারে, তাতে আমার ঠোঁট কাটে। বাসায় আসি। উপরে আসি। কথা কাটাকাটি হয়। রাত্রে মামুনকে ডেকে সেলাই করাই। তার পরের জীবনটা কত ভয়াবহ, আমি ও আমার ভেতরের আত্দাটা জানে। কারণ বনশ্রীতে রাশেদ ও স্মৃতি যে বাসায় থাকত, সে বাসার বাড়িওয়ালি আমাকে বলেছে, স্মৃতি নাকি ওনাকে বলেছে

১. ১০ বৎসর ধরে প্রেম করছি।
২. নিজেদের আত্দীয়র মধ্যে।
৩. ওর স্বামী এক বাপের এক ছেলে।
৪. ওর স্বামী ওর শরীর ছাড়া কিছু বুঝে না।
৫. রাশেদ, আমি, পাবন, পায়েল যে বছর আম্মা ও মিতাপার সাথে ইন্ডিয়া যাই, ২০০৮-এ, সে বছর স্মৃতি বলেছে, রাশেদ তার মা-বোনের সাথে ইন্ডিয়া গেছে। এর জন্য ইন্ডিয়া থেকে ফিরে স্মৃতিকে নিয়ে রাশেদ ব্যাংকক যায়।
৬. ২০০৯-এ যে আমরা ইন্ডিয়া গেছি, সেটাও বাড়িওয়ালি জানত।
৭. রাশেদ যে ওমরাহ করতে গিয়ে স্মৃতির জন্য দুই ভরি ওজনের চেন এনেছে, সেটাও ওই মহিলা বলল।
৮. স্মৃতির শরীরের কোন কোন জায়গায় রাশেদের ভালো লাগে তা রাশেদ দিনের মধ্যে ১৫ থেকে ২০ বার ফোন অথবা মেসেজ পাঠিয়ে জানাত।

তখন আমি বুঝলাম আমার জীবনের সবই তারা জানে। আমি কোনো দিন রাশেদের মোবাইল ঘাটতাম না। তিন দিন খুব চাপচাপ ছিল। আমি রাশেদকে বললাম, স্মৃতির সাথে শারীরিক সম্পর্ক কি পুরোপুরি হয়েছে? পুরোপুরি হলে আমি তোমাকে একসেপ্ট করতে পারব না। রাশেদ ইয়াসিন সূরা (অজিফা শরিফ) ছুঁয়ে বলল, ১০০% হয় নাই। রাশেদের মোবাইল বিল বাসায় আসে। আমি কোনো দিন চেক করি নাই। এর মধ্যে বিল আসল। বিল দেখে আমার মাথা খারাপ। প্রতিদিন তারা ১৫ থেকে ২০ বার কথা বলত। আমি রাশেদকে প্রশ্ন করলাম, এত কথা কী রাশেদ? তখন সে আমাকে উত্তর দিল, সবচেয়ে বেশি কথা আমি তোমার সঙ্গে বলতাম। আমি আর ও এক না। আমি বললাম, স্মৃতি কেন? অন্য কোনো মেয়ে না কেন? তখন সে উত্তর দিল, ১০ জনের কাছে যাই নাই, একজনের কাছে গেছি। এসব কথার মধ্যেই রাশেদ আমার উপর রাগ দেখিয়ে রোজার ঈদের দিন আমাকে ড্রইংরুমে বাইরে থেকে আটকিয়ে বাসা থেকে চলে যায়। আমার অবস্থা খারাপ। স্যালাইন দেওয়া হলো। দুই দিন পর তিন দিনের দিন আম্মা ও আঁখির আম্মু আসে। আমাকে নিয়ে বের হচ্ছিল। রাশেদের বাবা বলল, তুমি যেও না, রাশেদকে পাওয়া গেছে। ওকে দীপুরা নিয়ে আসতেছে। ওকে খুঁজতে কতগুলো থানা, কতগুলো হোটেল সব খুঁজে তছনছ করে ফেলেছি।

[অথচ সে কবিতার বাসা উত্তরায় ছিল]। রাশেদকে নিয়ে দীপু ভাই, বাসার ভাই আসল। রাশেদের মধ্যে কোনো পরিবর্তন নাই। রাশেদের বাবা পরের দিন সবাইকে বসতে বলল এক সাথে। পরের দিন সবাই বসল। রাশেদের বাবা সবার সামনে বলল, স্মৃতি আপার ক্লাসের কলগার্ল। ওনাদের ইত্তেফাকে এক সাংবাদিকের সাথে ছয় মাস বেড পার্টনার ছিল। রাশেদের জায়গায় রাশেদের বাবা আমার দোষ তুলে ধরল। ছেলের ব্যাপারে বলল, ছেলেরা এ রকম একটু-আধটু ভুল করে। রাশেদ বলল, রিতা আমার সাথে বসতে, খেতে পারবে। কিন্তু ওকে আর স্মৃতির সাথে সম্পর্ক নিয়ে কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারবো না। রাশেদের মাথা ঠিক নাই, রাশেদের বাবা বলল, দুইজন কেউ কারও সাথে কথা বলবা না। এটা যে তাদের মিলিত একটা চাল ছিল, আমি জানতাম না। রাশেদের ভালো কথা বললেও রাশেদ রাগারাগি করত। আমাকে সহ্য করতে পারত না। এর মধ্যে রাশেদ ও স্মৃতি মিলিতভাবে একটা ওয়ারিদ নাম্বার থেকে আমাকে ও আঁখিকে মেসেজ পাঠায়। আমি বলি, স্মৃতি করাচ্ছে। রাশেদ বলে, না। যে মেয়ের নামে মেসেজ পাঠায়, সে মেয়ে থাকে লন্ডনে। রাশেদ তা জানে, আমি বা আঁখি না। আমাদের মিথ্যা প্রমাণিত করার জন্য রাশেদ আঁখিকে আসতে বলে। সামনাসামনি হলে রাশেদ বলে, যে মেয়ের কথা বলছো সে মেয়ে থাকে লন্ডনে। আমি বলি, সেটা তো আমি জানি না। সেটা তুমি জান। তাহলে স্মৃতি এগুলো করছে। রাশেদ মানতে রাজি না, কারণ স্মৃতির সাথে তার সব সময় যোগাযোগ হচ্ছে। আর আমাকে বুঝাচ্ছে, তার সাথে কোনো যোগাযোগ নাই। (চলবে)

[ad#co-1]

Leave a Reply